advertisement
advertisement

মামলা হলেও আসামিরা ধরাছোঁয়ার বাইরে

বান্দরবান প্রতিনিধি
১০ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৯ জুলাই ২০২০ ২২:৪৩
advertisement

বান্দরবানের বাঘমারা এলাকায় পার্বত্য জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) এমএন লারমা গ্রুপের ছয় নেতাকর্মী হত্যার ঘটনায় ২০ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। কিন্তু গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে এ প্রতিবেদন লেখার সময় পর্যন্ত কোনো আসামিকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। আসামিরা ধরাছোঁয়ার বাইরে থাকায় বাঘমারাসহ আশপাশের বেশ কিছু এলাকার মানুষ আতঙ্কে রয়েছেন। অনেকে নিজের ঘরবাড়ি ছেড়ে অনত্র অবস্থান করছেন।

বান্দরবান সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শহিদুল ইসলাম বলেন, এমএন লারমা গ্রুপের ছয় নেতাকর্মী হত্যায় সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক উবা মং মার্মা বাদী হয়ে বুধবার রাতে মামলা দায়ের করেন। এতে ১০ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে এবং অজ্ঞাত ৮-১০ জনকে আসামি করা হয়েছে। আসামিদের

গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

জানা গেছে, গত ৭ জুলাই সকাল সাড়ে ৬টার দিকে সদর উপজেলার বাঘমারা এলাকায় জেএসএস এমএন লারমা গ্রুপের বান্দরবান জেলার সভাপতি রতন তঞ্চগ্যার বাড়িতে ঢুকে তিনিসহ ছয় নেতাকর্মীকে গুলি করে হত্যা করে অস্ত্রধারীরা। বুধবার সন্ধ্যায় নিহতদের লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। এ হত্যাকা-ের জন্য শুরু থেকেই পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি (জেএসএস) সন্তু লারমা গ্রুপকে দায়ী করা হচ্ছে। এমএন লারমা গ্রুপের বান্দরবান জেলার সাধারণ সম্পাদক উবা মং মার্মার দায়ের করা মামলায় সন্তু লারমা গ্রুপের ১০ জনকে এজাহার নামীয় আসামিও করা হয়। তবে এ ব্যাপারে এখন পর্যন্ত জেএসএস সন্তু লারমা গ্রুপের পক্ষ থেকে কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

মামলার আসামিরা হলেনÑ জরিপ কুমার তংঞ্চগ্যা, উসাইনু মার্মা, বিনয় লাল চাকমা, শান্তি বিকাশ চাকমা, আপাই মার্মা, নিরেক চাকমা, অংপ্রু মার্মা, সুমন চাকমা, মং প্রু মার্মা ও মং শৈসা মার্মা (৪০)। এ ছাড়াও মামলায় আরও ১০ জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়। তবে মামলার কোনো আসামি এখন পর্যন্ত গ্রেপ্তার হয়নি। এদিকে এ ঘটনার পর থেকে বাঘমারাসহ আশপাশের বেশ কিছু এলাকার মানুষ আতঙ্কে রয়েছে। অনেকে নিজের ঘরবাড়ি ছেড়ে অনত্র অবস্থান নিয়েছেন।

advertisement