advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

হংকংয়ে নিষিদ্ধ হলো ছাত্র রাজনীতিও

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
১০ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৯ জুলাই ২০২০ ২৩:৪১
advertisement

হংকংয়ের ওপর একের পর এক কঠোর বার্তা নেমে আসছে। বেইজিংয়ের চাপিয়ে দেওয়া নতুন নিরাপত্তা আইনের পর এবার হংকংয়ে ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধ হচ্ছে। গত বুধবার হংকংয়ের শিক্ষামন্ত্রী বলেন, হংকংয়ে শিক্ষার্থীদের যে কোনো ধরনের রাজনৈতিক সেøাগান, ক্লাস বয়কট, এমনকি রাজনৈতিক গান গাওয়া নিষিদ্ধ করেছে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ। খবর বিবিসি।

সম্প্রতি বেইজিংয়ের পাস করা নতুন জাতীয় নিরাপত্তা আইন জারি হয়েছে হংকংয়ে। অনেকের মতে, এই আইনে হংকংয়ের সার্বভৌমত্ব এবং জনগণের স্বাধীনতা হুমকির মুখে পড়েছে। নতুন আইন অনুসারে বুধবার থেকে হংকংয়ে চালু হয়েছে চীনের নতুন জাতীয় নিরাপত্তা অফিস।

গত বছর চীনের প্রস্তাবিত অপরাধী প্রত্যর্পণ বিলের বিরুদ্ধে রাস্তায় নেমে এসেছিল হংকংয়ের হাজার হাজার মানুষ। এদের মধ্যে বেশিরভাগই ছিল বিভিন্ন পর্যায়ের শিক্ষার্থী।

সেসময় আন্দোলনে সহিংসতার অভিযোগ গ্রেপ্তার করা হয় দেড় হাজারেরও বেশি শিক্ষার্থীকে। ধীরে ধীরে প্রত্যর্পণবিরোধী এ বিক্ষোভ রূপ নেয় সরকারবিরোধী এবং গণতন্ত্রকামী আন্দোলনে। আন্দোলকারীরা প্রতিবাদের ভাষা হয়ে ওঠে ‘গ্লোরি টু হংকং’ গানটি।

বুধবার হংকংয়ের শিক্ষামন্ত্রী কেভিন ইয়ুং বলেছেন, স্কুলগুলোকে অবশ্যই এ ধরনের কার্যক্রম বন্ধ করতে হবে। তার কথায়, গ্লোরি টু হংকং গানটি মাসব্যাপী চলা অবৈধ সামাজিক-রাজনৈতিক ঘটনা ও সহিংসতার সঙ্গে সম্পর্কিত। স্কুলগুলোয় এটি গাওয়া বা প্রচার করা বন্ধ করতে হবে। এ ছাড়া শিক্ষার্থীরা মানববন্ধন, সেøাগান দেওয়া বা রাজনৈতিক বার্তা প্রচার করতে পারবে না।

উল্লেখ্য, হংকং এক সময় যুক্তরাজ্যের কলোনি ছিল। সমঝোতার ভিত্তিতে ১৯৯৭ সালে হংকংকে চীনের কাছে হস্তান্তর করে ব্রিটেন। এ সময় স্বায়ত্তশাসনসহ বেশ কিছু সুবিধা হংকবাসীর জন্য বরাদ্দ দেওয়া হয়। এ কারণে চীনের মূল ভূখ-ে যেসব সুবিধা নেই হংকংবাসী সেগুলো পেয়ে থাকে। তবে নতুন আইনের কারণে এসব স্বাধীনতা পুরোপুরি হারাতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

advertisement