advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

মৌলভীবাজারে মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট সংকটে নমুনা সংগ্রহে ধীরগতি

চৌধুরী ভাস্কর হোম মৌলভীবাজার
১০ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১০ জুলাই ২০২০ ০০:০৪
advertisement

মৌলভীবাজারের ২৫০ শয্যা হাসপাতালসহ ৭ উপজেলার মেডিক্যাল টেকনোলজিস্টের পদের অর্ধেকই শূন্য অবস্থায় রয়েছে। এর মধ্যে তিন উপজেলায় কোনো টেকনোলজিস্টই নেই। এ অবস্থায় কর্মরত কয়েক জন টেকনোলজিস্টকে প্রতিদিন করোনা স্যম্পল সংগ্রহ করতে হিমসিম খেতে হচ্ছে। এই শূন্যতার কারণে নমুনা সংগ্রহ কার্যক্রম ধীরগতিতে চলছে।

জানা যায়, মামলাজনিত কারণে ১১ বছর ধরে সারাদেশের সঙ্গে মৌলভীবাজারের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোয় নিয়োগ হচ্ছে না মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট। অনেকেই চলে গেছেন অবসরে। উপজেলার প্রত্যেক হাসপাতালে দুটি করে পদ থাকলেও মাত্র ৪টিতে আছেন একজন করে আর ৩ উপজেলায় কোনো মেডিক্যাল টেকনোলজিস্টই নেই। হাতেগোনা কয়েক জন মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট ল্যাব ও কয়েক জন মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট ইপিআই দিয়ে করা হচ্ছে করোনার নমুনা সংগ্রহ। মৌলভীবাজার সিভিল সার্জন মো. তাউহীদ আহমদ জানান, একজন একজন করে অবসরে চলে যাওয়ায় ব্যাপক শূন্যতা সৃষ্টি হয়েছে মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট পদে। মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট রয়েছেন চার জন আর ৭ উপজেলায় রয়েছেন তিনজন। স্থায়ী বা অস্থায়ী যেভাবেই হোক এই মুহূর্তে মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট নিয়োগ দেওয়া জরুরি। তা না হলে করোনার নমুনা সংগ্রহ বেগবান হবে না।

এদিকে ল্যাবে কাজ করার মতো কেউ না থাকায় মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট করোনার নমুনা সংগ্রহ করতে বাইরে গেলে ল্যাব বন্ধ করে যেতে হয়। এতে বাধাগ্রস্ত হচ্ছে অনান্য পরীক্ষা-নিরীক্ষা। এ অবস্থায় পাস করা মেডিক্যাল টেকনোলজিস্টদের স্বেচ্ছাশ্রমে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছে সরকার। এমনটি জানিয়েছেন শ্রীমঙ্গল উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. সাজ্জাত হোসেন চৌধুরী।

শুধু মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট ল্যাব নয়; সংকট রয়েছে ইপিআই, ডেন্টাল, এক্সরে ও অ্যাসিস্ট্যান্ট টেকনোলজিস্ট পদের। মামলার জটিলতা অবসান করে এই মুহূর্তে এর জরুরি সমাধান প্রয়োজন বলে মনে করেছেন সেবাগ্রহণকারীরা।

advertisement