advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

ফের ২৩ জেলায় বন্যার আশঙ্কায় সরকারের প্রস্তুতি

১০ জুলাই ২০২০ ০৩:০৩
আপডেট: ১০ জুলাই ২০২০ ০৩:০৩
advertisement

বন্যাপূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের তথ্য অনুযায়ী আগামী সপ্তাহে নতুন করে ২৩ জেলায় বন্যা দেখা দেবে বলে জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান। গতকাল বৃহস্পতিবার বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে প্রতিমন্ত্রী এ কথা জানান। এর আগে দেশে ভারীবৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পানিতে উত্তর, উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলে বন্যা দেখা দেয়। গত ২৬ জুন থেকে ৭ জুলাই পর্যন্ত ছিল এই বন্যা।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, বন্যাপূর্বাভাস কেন্দ্রের সতর্কীকরণে বলা হয়েছে, ১১ জুলাই থেকে পানি বাড়বে, ব্রহ্মপুত্র,
যমুনা, পদ্মা ও মেঘনা নদীর। এতে ২৩ জেলার মানুষ বন্যাকবলিত হবে। বন্যার স্থায়ীত্বও দীর্ঘায়িত হবে। এজন্য প্রত্যেক জেলায় ২০০ টন চাল, ৫ লাখ টাকা, ২ লাখ টাকা শিশুখাদ্যের জন্য, ২ লাখ টাকা গবাদিপশুর জন্য এবং ২ হাজার শুকনা খাবারের প্যাকেট ইতিমধ্যে পাঠানো হয়েছে। যেন পানি বাড়লেও মাঠ প্রশাসন ত্রাণসামগ্রী নিয়ে জনগণের পাশে দাঁড়াতে পারে।
প্রতিমন্ত্রী জানান, কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট, রংপুর, নীলফামারী, গইবান্ধা, বগুড়া, সিরাজগঞ্জ, টাঙ্গাইল, জামালপুর, রাজবাড়ী, শরীয়তপুর, ফরিদপুর, মাদারীপুর, মানিকগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জ, চাঁদপুর, সিলেট, সুনামগঞ্জ, নেত্রকোনা, কিশোরগঞ্জ, রাজশাহী, নাটোর ও নওগাঁ জেলায় বন্যা দেখা দেবে। এই ২৩ জেলায় আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রাখার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।
সংশ্লিষ্ট সবাইকে নিয়ে সভা করার কথা জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, যেহেতু বন্যাকবলিত মানুষকে আশ্রয়কেন্দ্রে যেতে হবে, সেজন্য বেশি বেশি আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুতের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছ। স্বাস্থবিধি পালনেও ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, স্কুল-কলেজগুলোকে আশ্রয়কেন্দ্রে রূপান্তর করে সেখানে সব ব্যবস্থা করা হবে। কতটি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হলো এবং সেখানে কতজন আশ্রয় নিয়েছেন, সে তালিকা ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে পাঠাতে বলা হয়েছে।

advertisement
Evaly
advertisement