advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

আধিপত্যের জেরে কুমিল্লায় ব্যবসায়ীকে পিটিয়ে হত্যা

নিজস্ব প্রতিবেদক, কুমিল্লা
১১ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১০ জুলাই ২০২০ ২৩:১৫
advertisement

আধিপত্য বিস্তার নিয়ে কুমিল্লা মহানগরীর ২৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আলমগীর হোসেন ও তার ৩ ভাইসহ সঙ্গীরা আক্তার হোসেন নামে নির্মাণসামগ্রীর ব্যবসায়ীকে পিটিয়ে হত্যা করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় নিহতের ভাইসহ অন্তত ৫ জন আহত হয়েছেন। শুক্রবার জুমার নামাজের পর চাঙ্গিনী মোড় এলাকায় কাউন্সিলরের বাড়ির পাশে মসজিদের সামনে এ ঘটনা ঘটে। নিহত আক্তার হোসেন ওই ওয়ার্ড যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আলালের বড় ভাই ও চাঙ্গিনী এলাকার মরহুম আলী হোসেনের ছেলে। এ ঘটনায় কাউন্সিলরের ৩ ভাইকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

এ ছাড়া একই দিন সকালে ব্রাহ্মণপাড়া থানাপুলিশ অজ্ঞাতপরিচয় এক যুবকের মস্তকবিহীন লাশ উদ্ধার করেছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আক্তার হোসেনের পরিবার এবং কাউন্সিলর আলমগীর হোসেনের পরিবার পরস্পরের প্রতিবেশী। এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে ওই দুই পরিবারের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। সম্প্রতি নিহতের ছোট ভাই যুবলীগ নেতা আলাল ও কাউন্সিলর আলমগীরের মধ্যে বিরোধ তীব্র হয়। আলাল বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে শুক্রবার বিকালে এলাকায় ঘুড়ি উৎসবের আয়োজন করে। তিনি জানান, ঘুড়ি উৎসবে আমন্ত্রণ না পেয়ে ও পূর্ববিরোধের জের ধরে কাউন্সিলর আলমগীর হোসেন ও তার ৩ ভাইসহ তাদের লোকজন লোহার রড ও লাঠি নিয়ে জুমার নামাজ শেষে পূর্বপরিকল্পিতভাবে আমাদের ওপর হামলা চালায়। আমরা দৌড়ে মসজিদের

সামনে গেলে সেখানেও আমাকে (আলাল) ও আমার বড় ভাই আক্তার হোসেনের ওপর তারা আবার হামলা করে। স্থানীয়রা আহত অবস্থায় আমাদের উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে ডাক্তার আমার ভাই আক্তার হোসেনকে মৃত ঘোষণা করেন।

সদর দক্ষিণ মডেল থানার ওসি নজরুল ইসলাম জানান, ওই ব্যবসায়ীর নিহত হওয়ার খবরে এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। তবে অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনার পর থেকে কাউন্সিলর পলাতক রয়েছেন। তবে তার ভাই আমির হোসেন, জাহাঙ্গীর হোসেন ও বিল্লাল হোসেনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রাখা হয়েছে।

advertisement
Evaly
advertisement