advertisement
advertisement

ছাত্রলীগ নেতার পায়ের রগ কেটে হত্যাচেষ্টা

চৌগাছা (যশোর) প্রতিনিধি
১১ জুলাই ২০২০ ১৯:৪১ | আপডেট: ১১ জুলাই ২০২০ ২১:১৫
দুর্বৃত্তের হামলায় আহত চৌগাছা উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি ইব্রাহিম হোসেন। ছবি : আমাদের সময়
advertisement

যশোরের চৌগাছা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ইব্রাহিম হোসেনকে (৩০) পায়ের রগ কেটে ও হাতুড়ি পেটা করে হত্যার চেষ্টা করেছেন দুর্বৃত্তরা। হামলায় ছাত্রলীগের এই নেতার দুই পা-ই ভেঙে গেছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক।

গতকাল শুক্রবার রাত সোয়া ৮টার দিকে চৌগাছা সদর ইউনিয়নের বেড়গোবিন্দপুর বাওড় ব্রিজ সংলগ্ন এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। ইব্রাহিম উপজেলার চৌগাছা সদর ইউনিয়নের বেড়গোবিন্দপুর গ্রামের আবদুল খালেক বিশ্বাসের ছেলে।

এদিকে এই ঘটনার সময় ছাত্রলীগ সভাপতির মোটরসাইকেলে থাকা মিঠুন বিশ্বাসকেও জখম করেছেন দুর্বৃত্তরা। মিঠুন বিশ্বাস বেড়গোবিন্দপুর গ্রামের শ্রী মাইন বিশ্বাসের ছেলে।

চৌগাছা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ইব্রাহিম জানান, গতকাল রাত ৮টার পর তিনি চৌগাছা শহর থেকে নিজ গ্রাম বেড়গোবিন্দপুর যাচ্ছিলেন। পথে তিনি বেড়গোবিন্দপুর বাওড় ব্রিজ সংলগ্ন সড়কের একটি বাঁশ ঝাড়ের কাছে পৌঁছালে সেখানে ওঁৎ পেতে থাকা ১০-১৫ ব্যক্তি রাম দা, লাঠিসোটা নিয়ে তাদের ওপর হামলা করেন।

ছাত্রলীগের এই নেতা বলেন, ‘আমি দৌঁড় দিলে তারা আমাকে ধরে রামদা দিয়ে আমার বাম পায়ে কোপ দিয়ে রগ কেটে দেয়। অন্য পায়ে লাঠি, হাতুড়ি দিয়ে আঘাত করে। এসময় তাদের দুজন আমার মাথা ঠেসে ধরে রেখেছিল যেন আমি মরে যাই। আমি মরে গেছি ভেবে তারা আমাকে ফেলে রেখে যায়। পরে স্থানীয়রা আমাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসে।’

ইব্রাহিম হোসেন আরও বলেন, ‘হামলাকারীদের মধ্যে বেড়গোবিন্দপুর গ্রামের পারভেজ, মহব্বত মল্লিক, রকি, বিপুল মল্লিক ও আলমকে আমি চিনতে পেরেছি। অন্যদের চিনতে পারিনি।’

চৌগাছা হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক হাদিউজ্জামান সিয়াম বলেন, ‘ইব্রাহিমের বাম পায়ের শিরা ধারালো অস্ত্রের আঘাতে কেটে গেছে। তার দুই পা-ই ভারী কিছুর আঘাতে ভেঙে গেছে। আর মিঠুনের মাথায় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে গভীর ক্ষত হয়েছে। উন্নত চিকিৎসার জন্য তাদের যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে।’

এ ঘটনায় শুক্রবার রাতেই ১৩ জনকে আসামি করে চৌগাছা থানায় মামলা করেছেন ইব্রাহিমের ভাই জাহিদুর রহমান মিলন।

মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চৌগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রিফাত খান রাজীব। তিনি বলেন, ‘উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি ইব্রাহিম হোসেন ও মিঠুনের উপর যারা হামলা করেছে তাদের কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। দ্রুতই তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।’

advertisement