advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

গরু-মহিষ আমদানি নিষিদ্ধের দাবি মাংস ব্যবসায়ীদের

নিজস্ব প্রতিবেদক
১২ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১২ জুলাই ২০২০ ০০:১৩
advertisement

ভারত ও মিয়ানমার থেকে গরু ও মহিষের মাংস আমদানি নিষিদ্ধ, কোরবানির কাঁচা চামড়ার মূল্য নির্ধারণসহ সরকারের কাছে পাঁচ দফা দাবি জানিয়েছেন মাংস ব্যবসায়ীরা। গতকাল রাজধানীর সেগুনবাগিচায় বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনে এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানানো হয়।

বাংলাদেশ মাংস ব্যবসায়ী সমিতি ও ঢাকা মেট্রোপলিটন মাংস ব্যবসায়ী সমিতির যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত এ সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ভারত-মিয়ানমার গরু পাচার করে প্রতিবছর ৬০ হাজার কোটি টাকা নিয়ে যাচ্ছে। অতিদ্রুত ভারত ও মিয়ানমার থেকে গরু, মহিষ ও মাংস আমদানি বন্ধ করতে হবে। বাংলাদেশের কৃষকদের কৃষিঋণের মাধ্যমে ১০-২০ হাজার কোটি টাকা দিয়ে চরাঞ্চলগুলো পশুপালনের আওতায় আনতে পারলে মাংস ও কোরবানির পশুর চাহিদা পূরণ করেও বিদেশে মাংস, হাড়, শিং, নাড়ি-ভুঁড়ি, চামড়া রপ্তানি করে ৬০ থেকে ৮০ হাজার কোটি টাকা আয় করা সম্ভব।

বক্তারা বলেন, সরকার, শিল্পপতি ব্যবসায়ী, সমাজে প্রতিষ্ঠিতদের জাকাতের অর্থ থেকে গরিব, কৃষক, বিধবা, বেকার যুব সমাজের মাঝে গরু, মহিষ, ছাগল, ভেড়া উপহার দিয়ে পশুপালনে উৎসাহিত করতে পারলে বিশ্বকে তাক লাগিয়ে ৩০০ টাকায় মাংস কিনে খাওয়া সম্ভব হবে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও জানানো হয়, মাংস ব্যবসায়ী সমিতির মাধ্যমে মাংস শ্রমিকদের প্রশিক্ষণ দিতে হবে। শ্রমিকদের প্রশিক্ষণ হাতে-কলমে দিতে পারলে রপ্তানিযোগ্য শত শত কোটি টাকার পশুর বর্জ্য রক্ষা করা যাবে। জবাইখানাভিত্তিক দীর্ঘমেয়াদি প্রশিক্ষণশালা গঠন করতে হবে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়েরর মাধ্যমে কোরবানির কাঁচা চামড়ার মূল্য নির্ধারণ করতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে ভারত ও মিয়ানমারের গরু, মহিষ, মাংস আমদানি নিষিদ্ধ করাসহ পাঁচ দফা দাবি তুলে ধরা হয়। অন্য দাবিগুলো হলো- চামড়াশিল্পের সিইটিপি, রপ্তানির জন্য ছাড়পত্র দিতে হবে, গাবতলী গরুর হাটের অতিরিক্ত খাজনা আদায় বন্ধ করতে হবে, মাংস শ্রমিকদের প্রশিক্ষণ এবং কোরবানির কাঁচা চামড়ার মূল্য নির্ধারণ করতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ মাংস ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ফরিদ আহম্মেদ, মহাসচিব রবিউল আলম, ঢাকা মেট্রোপলিটন মাংস ব্যবসায়ী সমিতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আবদুস সালাম, সাধারণ সম্পাদক শামিম আহম্মেদ কোরেশী, বাংলাদেশ পশুর বর্জ্য সংগ্রহকারী মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সোহেল আহম্মেদ, বাংলাদেশ ডেইরি ফার্ম মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক শাহ ইমরান উপস্থিত ছিলেন।

advertisement
Evaly
advertisement