advertisement
advertisement

চট্টগ্রামে রোগী শনাক্তের জন্য নমুনা মিলছে না

চট্টগ্রাম ব্যুরো
১২ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১২ জুলাই ২০২০ ০০:১৪
advertisement

চট্টগ্রামে নমুনা জমা দেওয়ার পর ফল আসতে দেরি হওয়ায় এখন করোনা উপসর্গ দেখা দিলেও অনেকেই পরীক্ষা করছে না। ফলে নমুনা সংগ্রহ কমে যাচ্ছে। এতে কমছে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তদের শনাক্তের সংখ্যাও। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে উপসর্গ দেখা দেওয়ার পর দ্বারস্থ হচ্ছেন টেলিমেডিসিনের। থাকছেন নিজ বাসভবনে আইসোলেশনে।

চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ৬টি ল্যাবে ১০ জুলাই ১০৯৯টি, ৯ জুলাই সবমিলিয়ে ৭৮১টি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে চট্টগ্রামে। অথচ আগের দিন ৮ জুলাই পরীক্ষা হয় ১২৬৫টি। একইভাবে ৭ জুলাই ১৪৭১টি, ৬ জুলাই ১৩৬০টি এবং ৫ জুলাই ১৩১৮টি নমুনা পরীক্ষা হয় এসব ল্যাবে। অথচ চট্টগ্রামের ৬টি পিসিআর মেশিনে দেড় হাজারের বেশি নমুনা পরীক্ষা করতে সক্ষম। কিন্তু ল্যাবগুলোতে এখন হাজারের মতো নমুনা পরীক্ষা হচ্ছে। যেটা দিন দিন কমছে। ল্যাবে পরীক্ষার অপেক্ষায় কোনো নমুনা এখন আর অবশিষ্ট নেই। আগের দিন যে সংখ্যক নমুনা জমা হচ্ছে, তার সবই পরের দিন পরীক্ষা সম্পন্ন হচ্ছে। আর এখন দৈনিক নতুন নমুনা আসার সংখ্যা অনেকটাই কমে গেছে। যা আসছে, তাই পরদিন পরীক্ষা সম্পন্ন হচ্ছে। এতে করে নমুনার কোনো ধরনের জট নেই। বরং দৈনিক কম সংখ্যক নমুনা আসায় পরীক্ষার জন্য পর্যাপ্ত নমুনাই মিলছে না।

চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি আমাদের সময়কে বলেন, এতদিন নমুনাজটের কারণে হিমশিম খাচ্ছিলাম। তখন আমরা পরীক্ষা করে পেরে উঠিনি। বাধ্য হয়ে কয়েক দফায় নমুনা ঢাকায় পাঠাতে হয়। কিন্তু এখন উল্টো, পরীক্ষার জন্য নমুনা মিলছে না। নমুনা কমে যাওয়ার পিছনে সরকারিভাবে ফি নির্ধারণ একটা কারণ হতে পারে।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রাম শহর এলাকায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে কেউ মারা যাননি। একজন মারা গেছেন উপজেলা পর্যায়ে। কোভিড-১৯ থেকে সুস্থ হয়েছে পাঁচজন। করোনা থেকে সুস্থ হওয়া ৫ জনই নগরীর বাসিন্দা। নতুন করে ১ হাজার ৯৯টি নমুনা পরীক্ষায় করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে ১৯২ জনের দেহে। এদের মধ্যে নগরে ১৫৮ জন এবং উপজেলায় ৩৪ জন। এ নিয়ে চট্টগ্রামে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ১১ হাজার ৩৮৫ জন।

advertisement
Evaly
advertisement