advertisement
advertisement

আইসিসির সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় বিসিবি

ক্রীড়া প্রতিবেদক
১২ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১২ জুলাই ২০২০ ০০:১৪
advertisement

করোনা ভাইরাসের কারণে স্থগিত হয়ে যাওয়া টেস্টগুলো পুনরায় খেলার সুযোগ পাবে তো বাংলাদেশ? বিসিবির ভাষ্য, আইসিসি যদি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের চক্রের সময়কাল না বাড়ায়, তবে স্থগিত হয়ে যাওয়া টেস্টগুলো আর হওয়ার সম্ভাবনা নেই। বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন চৌধুরী সুজন মনে করেন, নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী আগামী বছরের জুনে যদি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল অনুষ্ঠিত হয়, তা হলে বাংলাদেশের স্থগিত হয়ে যাওয়া ৮ টেস্ট নতুন সূচিতে আয়োজনের সম্ভাবনা নেই বললেই চলে। কেননা এই সময়ের (জুন) মধ্যে নতুন সূচিতে টেস্ট ম্যাচ আয়োজন করা অসম্ভব! ফাঁকা সøট খুঁজে পাওয়াটা খুবই কঠিন হবে। বিসিবির সিইও জানান, যদি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের চক্রের সময়কাল বাড়ানো হয়, তা হলে বিসিবির সামনে স্থগিত হয়ে যাওয়া টেস্টগুলো আয়োজনের কিছুটা সুযোগ থাকবে। তার পরও এটা নির্ভর করবে প্রতিপক্ষ দলগুলোর ভবিষ্যৎ ক্রিকেট সূচির ওপর। কেননা ২০২৩ সাল পর্যন্ত সব দলের সামনেই ব্যস্ত সূচি রয়েছে। তার বিশ্বাস, আইসিসি বিষয়টা ভেবে দেখবে।

সবশেষ শ্রীলংকা সফর স্থগিত হয়ে যাওয়ায় এ বছর টাইগারদের আর কোনো টেস্টই খেলা হবে না। তবে টি-টোয়েন্টি এবং ওয়ানডে সিরিজ রয়েছে। এফটিপি অনুযায়ী, সেপ্টেম্বরে ৩ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে নিউজিল্যান্ড সফরে যাবে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। অক্টোবরে ৩ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে বাংলাদেশ সফরে আসবে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। এর পর ডিসেম্বরে শ্রীলংকার বাংলাদেশ সফর দিয়ে এ বছরের ক্রিকেট ক্যালেন্ডার শেষ হবে তামিম, মুশফিদের। লংকানদের বিপক্ষে দেশের মাটিতে ৩ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের আয়োজক বাংলাদেশ। নতুন বছরের শুরুটাই হবে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে বরণ করে নেওয়ার মধ্য দিয়ে।

২০২০ সালে প্রথমবারের মতো এক বছরে সর্বোচ্চ ১০টি টেস্ট খেলার সুযোগ পেয়েছিল বাংলাদেশ। কিন্তু সুযোগটা কেড়ে নিয়েছে করোনা ভাইরাস। মুমিনুল হকদের তাই বছর শেষে দুই টেস্ট খেলেই তৃপ্ত থাকতে হবে। আইসিসি যদি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের চক্রের সময়কাল না বাড়ায়, তবে স্থগিত হয়ে যাওয়া টেস্টগুলো আর হওয়ার সম্ভাবনা নেই। তাই বিসিবিও এখন আইসিসির দিকে তাকিয়ে।

টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের চক্রটা শুরু হয়েছিল ২০১৯ সালের জুলাইয়ে, যা শেষ হওয়ার কথা আগামী বছরের জুনে। বিসিবি চায়, আইসিসি যেন টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের চক্রের এই সময়কাল বাড়ায়। করোনা ভাইরাসের কারণে পাকিস্তান, অস্ট্রেলিয়া, শ্রীলংকা এবং নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ম্যাচ স্থগিত হয়ে গেছে। বলে রাখা ভালো, এপ্রিলে করাচিতে গিয়ে পাকিস্তানের বিপক্ষে একটি টেস্ট খেলার কথা ছিল বাংলাদেশের। জুনে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে বাংলাদেশ সফরে আসার কথা ছিল ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার। জুলাইয়ে তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে শ্রীলংকা সফরে যাওয়ার কথা ছিল বাংলাদেশের। আগস্টে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজের আয়োজক ছিল বাংলাদেশ। টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের এ ম্যাচগুলো অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত হয়ে যাওয়ায় নতুন সূচিতে আয়োজনে বিসিবিকে নতুন সøট খুঁজে নিতে হবে। বিসিবির ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির প্রধান আকরাম খান মনে করেন, আইসিসি যদি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের এই চক্রের সময়কাল না বাড়ায়, তা হলে স্থগিত হয়ে যাওয়া টেস্টগুলো নির্ধারিত চক্রের সময়ের মধ্যে হওয়ার আর কোনো সম্ভাবনা নেই। আইসিসি কী পদক্ষেপ নেয় সেটাই এখন দেখার অপেক্ষায় বিসিবি। ক্রিকেটবিষয়ক একটি ওয়েবসাইটকে এমনটাই জানিয়েছেন তিনি।

আইসিসি টেস্ট খেলুড়ে দেশগুলোকে নিয়ে গত বছরের আগস্ট মাস থেকে শুরু হয়েছে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ। দুই বছরের এই চক্রে প্রতিটা দেশ ছয়টি টেস্ট সিরিজ খেলবে। হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে পদ্ধতিতে অনুষ্ঠিত হবে ম্যাচ। প্রতিটা টেস্ট খেলুড়ে দেশ তিনটি ঘরের মাটিতে এবং তিনটি প্রতিপক্ষের মাটিতে গিয়ে খেলবে। আগামী বছরের জুনে পয়েন্টের ভিত্তিতে টেবিলের শীর্ষে থাকা দুই দল খেলবে ফাইনাল। ৩৬০ পয়েন্ট নিয়ে বর্তমানে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে রয়েছে ভারত। বাংলাদেশের অবস্থান পয়েন্ট টেবিলের একদম তলানিতে।

advertisement
Evaly
advertisement