advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

আইনি লড়াইয়ে বার্সার জয়

ক্রীড়া ডেস্ক
১২ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১২ জুলাই ২০২০ ০০:১৪
advertisement

ব্রাজিলিয়ান ক্লাব সান্তোস ছেড়ে ২০১৩ সালে বার্সেলোনায় পাড়ি জমিয়েছিলেন নেইমার। তখন থেকেই একটা বিতর্ক তার পিছু লেগেই ছিল। স্প্যানিশ ক্লাবটির কাছে সান্তোসের পাওনা নাকি ৬১.৩ মিলিয়ন ইউরো। এ নিয়ে মামলাও হয়েছে। সে মামলা থেকে খালাস পেয়েছে বার্সেলোনা। একই সঙ্গে নেইমারের পক্ষকে স্বীকার করতে হয়েছে যে, সান্তোস থেকে যখন তিনি বার্সায় যোগ দেন, তখন চুক্তিবহির্ভূত কোনো লেনদেন হয়নি কিংবা আলাদা গোপন চুক্তি হয়নি। একই সঙ্গে ক্রীড়া সম্পর্কিত আন্তর্জাতিক আদালত কোর্ট অব আর্বিট্রেশন ফর স্পোর্টস (সিএএস) সান্তোস ক্লাবকে নির্দেশ দিয়েছে, মামলা পরিচালনার জন্য বার্সার যে খরচ হয়েছে তা মেটানোর জন্য ১৮ হাজার ইউরো প্রদান করতে।

রিলিজ ক্লজ শর্তেই বার্সার কাছে ৬১.৩ মিলিয়ন ইউরো পাবে, এমনটা দাবি করেই সিএএসে মামলা করেছিল সান্তোস। তাদের রায়ে বলা হয়েছে, সাবেক ক্লাবের সঙ্গে সমাঝোতা করেই নেইমার অন্য ক্লাবে যোগ দিয়েছে। সুতরাং বার্সা কোনো কারণেই আর নেইমারের বাবা কিংবা এন অ্যান্ড এন কোম্পানিকে কোনো অর্থ দিতে বাধ্য নয়। এ রায় মেনে নিয়েছে সান্তোস।

বার্সেলোনায় সুখেই ছিলেন নেইমার। মেসি, সুয়ারেজদের সঙ্গে নিজেকে দারুণভাবে মানিয়ে নিয়েছিলেন। তবে সুখের সংসারটা বেশিদিন টেকেনি। ২০১৭ সালে ব্রাজিলিয়ান তারকা স্পেন ছেড়ে পাড়ি জমান প্যারিসে। তাকে দলে ভেড়ায় প্যারিস সেইন্ট জার্মেই (পিএসজি)। তখনো একটা ঝামেলা বাধিয়েছিলেন নেইমার। পিএসজিতে যাওয়ার আগে যে চুক্তি বার্সার সঙ্গে করেছিলেন সেটার সঙ্গে সাইনিং বোনাস হিসেবে ৪৩.৬ মিলিয়ন ইউরো দাবি করে মামলা করেছিলেন। তবে আদালত তার আবেদন বাতিল করে উল্টো নেইমারকে নির্দেশ দেয়, বার্সাকে ৬.৭ মিলিয়ন ইউরো পরিশোধ করার জন্য।

advertisement
Evaly
advertisement