advertisement
advertisement

ঝাড়ফুঁকের নামে ‘শ্লীলতাহানির চেষ্টা’, মাদ্রাসা শিক্ষক গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক
১৩ জুলাই ২০২০ ১৪:৪২ | আপডেট: ১৩ জুলাই ২০২০ ১৪:৫৬
প্রতীকী ছবি
advertisement

ফেনীর দাগনভূঞা উপজেলায় ঝাড়ফুঁকের কথা বলে এক নারীকে শ্লীলতাহানির চেষ্টার অভিযোগে গতকাল রোববার রাতে এক মাদ্রাসা শিক্ষককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃত ওই শিক্ষকের নাম মাওলানা ইউসুফ সিদ্দিকী (৫৫)। তিনি উপজেলার ইয়াকুবপুর ইউনিয়নের ইছাহাকীয়া দাখিল মাদ্রাসার উপাধ্যক্ষ।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দাগনভূঞা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসলাম শিকদার। তিনি জানান, ভূক্তভোগী ওই নারী মাওলানা ইউসুফ সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন। তার অভিযোগের ভিত্তিতে রোববার রাতে উপজেলার ইয়াকুবপুর ইউনিয়নের এনায়েতনগর গ্রামের বাড়ি থেকে মাওলানা ইউসুফ সিদ্দিকীকে গ্রেপ্তার করা হয়।

আজ সোমবার তাকে আদালতে পাঠানো হবে বলেও জানান দাগনভূঞা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ভুক্তভোগী ওই নারীর শিশু সন্তান বুকের দুধ পান না করায় তিনি শ্বশুর-শাশুড়িসহ গত ৩ জুলাই ইছাহাকীয়া দাখিল মাদ্রাসার উপাধ্যক্ষ মাওলানা ইউসুফ সিদ্দিকীর কাছে তাবিজ ও ঝাড়ফুঁকের জন্য যান। ঝাড়ফুঁকের একপর্যায়ে ইউসুফ সিদ্দিকী কৌশলে ওই নারীর শ্বশুর-শাশুড়িকে মাদ্রাসার পাশের একটি কক্ষে পাঠিয়ে দিয়ে ওই নারীর  শ্লীলতাহানীর চেষ্টা করেন। পরে ওই নারী সেখান থেকে ছুটে বের হয়ে এসে বিষয়টি তার শ্বশুর-শাশুড়িকে জানান।

এ ব্যাপারে ইছাহাকীয়া দাখিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা নুরুল আমিন বলেন, ‘প্রয়াত মাওলানা শাহ্ছুফি মোহাম্মদ ইছহাক সাহেবের হাতে ১৯৩৬ সালে গড়া এই ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠানটি এলাকায় সুনামের সঙ্গে পরিচালিত হচ্ছে। এই শিক্ষকের অপকর্মের দায়ভার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নেবে না। অপরাধ করলে অবশ্যই তার শাস্তি পেতে হবে।’

advertisement