advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

গুরুত্বপূর্ণ চুক্তি থেকে ভারতকে সরাল ইরান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
১৬ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১৫ জুলাই ২০২০ ২৩:১০
advertisement

ইরানের চাবাহার বন্দরের সঙ্গে প্রাদেশিক রাজধানী জাহেদানকে সংযুক্ত করবে, এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ রেল প্রকল্প থেকে ইরান ভারতকে সরিয়ে দেওয়ার পর দিল্লির এ কূটনৈতিক ব্যর্থতা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। ইরান বলছে, এই প্রকল্পে ভারতের অর্থায়নের জন্য তারা আর অপেক্ষা করতে প্রস্তুত নয়। খবর বিবিসি।

অন্যদিকে চীনের সঙ্গে ইরানের সম্প্রতি ৪০০ বিলিয়ন ডলারের স্ট্র্যাটেজিক পার্টনারশিপ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে এবং দিল্লিতেও পর্যবেক্ষকরাও অনেকেই মনে করছেন, ভারতের তৈরি চাবাহার বন্দরেও এখন চীনের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠার পথ প্রশস্ত হল। বিরোধী দল কংগ্রেসও এই ইস্যুতে সরকারকে তীব্র আক্রমণ করেছে।

ইরানের উপকূলে যে চাবাহার বন্দর নির্মাণে ভারত খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে, সেটি আফগানিস্তান ও মধ্য এশিয়ায় স্থলপথে প্রবেশের জন্য ভারতের কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে ধরা হয়। বছর চারেক আগে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ইরান সফরের সময় তিনি আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনির সঙ্গে মিলে তেহরানের সঙ্গে যৌথভাবে একটি চুক্তিতেও স্বাক্ষর করেন, যাতে চাবাহার থেকে আফগানিস্তানের জারাঞ্জ পর্যন্ত রেল ও সড়কপথে পরিবহন করিডর নির্মাণের দায়িত্ব পায় ভারত।

কিন্তু চার বছর পরও সে কাজে বিশেষ অগ্রগতি না-হওয়ায় ইরান এখন নিজেরাই জাহেদান পর্যন্ত ওই রেলপথের সোয়া ছয়শ কিলোমিটার বানাবে বলে ঘোষণা করেছে। ভারতীয় নৌবাহিনীর সাবেক ভাইস অ্যাডমিরাল শেখর সিনহার কথায়, বিদেশে ভারতীয় সংস্থাগুলোই কখনো তাদের প্রকল্প ঠিক সময়ে শেষ করতে পারে না, এই অভিযোগ আমরা হামেশাই শুনি। এখানেও ইরকন নামে যে সংস্থাটি দায়িত্ব পেয়েছিল, তারাও নানা কারণে যন্ত্রপাতি পাচ্ছিল না আমরা জানি। তবে ইরান যে সাহস করে নিজেরাই এর রূপায়ণে এগিয়ে এসেছে, তার পেছনে অবশ্যই চীনের ভরসা আছে। ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে অর্থনৈতিক সম্পর্কবিষয়ক সাবেক সচিব পিনাক রঞ্জন চক্রবর্তীও কার্যত মেনে নিচ্ছেন, চাবাহারে ভারত বিপুল পরিমাণ লগ্নি করার পরও এই বন্দরের নিয়ন্ত্রণ হয়তো শেষ পর্যন্ত চীনের কাছেই হাতছাড়া হয়ে যাবে। বস্তুত মার্কিন নিষেধাজ্ঞার জেরে বিপদের মুখে পড়া ইরান এখন কম দামে চীনকে তেল বিক্রি করছে, সম্প্রতি চীনের সঙ্গে চারশ বিলিয়ন ডলারের স্ট্র্যাটেজিক সমঝোতাও করেছে তারা।

এদিকে দিল্লিতে ইনস্টিটিউট অব চায়না স্টাডিজের ফেলো অধ্যাপক শ্রীমতি চক্রবর্তী মনে করিয়ে দিচ্ছেন, চীন ও ইরানের সম্পর্ক কিন্তু বরাবরই খুব ভালো। ড. চক্রবর্তী বিবিসিকে জানান, বিশেষত ট্রাম্প প্রশাসন ক্ষমতায় আসার পর আমেরিকার সঙ্গে ইরানের যে সংঘাত চরমে উঠেছে, চীন খুব ভালোভাবেই তার অ্যাডভান্টেজ নিচ্ছে।

advertisement
Evaly
advertisement