advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

রহস্যাবৃত সাতমুখী গুহা

আমাদের সময় ডেস্ক
১৬ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১৫ জুলাই ২০২০ ২৩:৩২
advertisement

কাশ্মীরের কুপওয়ারার কালারুশ গুহা। মানুষের বিশ্বাস, এই গুহাপথে যাওয়া যায় পাকিস্তান, এমনকি রাশিয়াতেও! কাশ্মীরের লোলাব উপত্যকার কুপওয়ারায় লাশতিয়াল এবং মাধমাদু গ্রাম দুটির মাঝে কবে থেকে এক বিশাল পাথর পড়ে আছে, কেউ জানে না। বাইরে থেকে আপাতভাবে পাথর মনে হলেও এটা আসলে পাহাড়ের

অংশ। তার গায়ে রয়েছে পর পর সাতটি প্রবেশপথ।

প্রাকৃতিক গুহাপথকে পরে মানুষ নিজের মতো করে সাজিয়ে নিয়েছিল, সেটা দেখে বোঝা যায়। কিন্তু কবে এবং কারা এই গুহাপথ ব্যবহার করত, তার কোনো ঐতিহাসিক প্রমাণ নেই। তবে স্থানীয় বাসিন্দারা অনেকে দাবি করেছেন, তারা তাদের পরিবারের বৃদ্ধদের কাছে শুনেছেন, অতীতে ওই গুহাপথে রাশিয়া থেকে মানুষ আসতেন ভারতে।

সাত দরজা থেকে এই পাথরের নাম ‘সাতবারন’। আর বিশ^াস অনুযায়ী, এই সাতটি পথের একটির অন্য প্রান্ত গিয়ে শেষ হয়েছে রাশিয়ায়। সেই বিশ্বাস থেকে স্থানীয় এলাকার নাম হয়েছে কিলা-এ-রুশ বা কালারুশ। অর্থাৎ রুশদেশের কেল্লা।

২০১৮ সালে এ গুহার রহস্যভেদ করতে আমেরিকার ভার্জিনিয়া থেকে এসেছিলেন অ্যাম্বার এবং এরিক ফায়েস। এই দম্পতি অভিযাত্রী গুহার তিনটি প্রবেশপথ নিয়ে অনুসন্ধান করেন। অনুসন্ধানের পরে অভিযাত্রী দম্পতি জানান, তিনটির মধ্যে দুটি গুহাপথে অতীতে যাতায়াত হলেও হতে পারে। এর মধ্যে প্রথমটির যাত্রাপথ ওপরের দিকে উঠে গিয়েছে। দ্বিতীয়টি নিচের দিকে ক্রমশ নেমে গিয়েছিল।

তৃতীয় গুহাপথে অবশ্য অনুসন্ধান শেষ করতে পারেননি দম্পতি। শোনা যায়, সেটি ভারতীয় সেনাবাহিনী বন্ধ করে দিয়েছে। তবে তিনটি গুহাপথেই প্রচুর পরিমাণে হিমালয়ের সজারুর খোঁজ পেয়েছিলেন তারা। এই গুহা যে খনিজ সম্পদে ভরপুর, সে বিষয়েও নিশ্চিত মার্কিন অনুসন্ধানকারী দম্পতি।

advertisement
Evaly
advertisement