advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

পরীক্ষা কম শনাক্ত বেশি কোরবানি ঘিরে উদ্বেগ

চট্টগ্রামে করোনা সংক্রমণ

তৈয়ব সুমন চট্টগ্রাম
১৬ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১৫ জুলাই ২০২০ ২৩:৩২
advertisement

সরকারি ও বেসরকারি ছয়টি ল্যাব নমুনা সংকটের থাকায় নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা কমলেও করোনা রোগীর হার কমছে না চট্টগ্রামে। নমুনার তুলনায় রোগী শনাক্ত হচ্ছে বেশি। আসন্ন কোরবানিতে স্বাস্থ্যবিধি না মানলে শনাক্তের হার আরও বাড়বে বলে সতর্ক করেছে স্বাস্থ্য বিভাগ।

সর্বশেষ শনিবার সক্ষমতার মাত্র এক-তৃতীয়াংশ নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। মানুষ নমুনা পরীক্ষায় আগ্রহ না দেখালে সংক্রমণের হার আরও ব্যাপক হারে ছড়িয়ে পড়ার শঙ্কা প্রকাশ করেছেন চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যসংশ্লিষ্টরা।

সিভিল সার্জন কার্যালয়ের তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায়, চলতি মাসের ১১ দিনের মধ্যে মাত্র ২ দিন ২০ শতাংশের কম করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয় চট্টগ্রামে। এর মধ্যে ১ জুলাই পরীক্ষাকৃত নমুনায় ১৯.৭৩ শতাংশ এবং ১০ জুলাই ১৭.৪৭ শতাংশ করোনা পজিটিভ পাওয়া যায়। বাকি দিনগুলোয় পজিটিভ শনাক্তের হার ২০ শতাংশের ঊর্ধ্বে। আর ১১ জুলাই শনাক্তের হার ছিল সর্বোচ্চ ২৪.৭০ শতাংশ। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ শনাক্তের হার ছিল ৫ জুলাই। ওইদিন ছিল ২২.১৫ শতাংশ।

গত ১ জুলাই ১ হাজার ৩৭৩টি নমুনা পরীক্ষা

হয় চট্টগ্রামের ছয়টি পিসিআর ল্যাবে ২৭১টি নমুনায় করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়। শতকরা হিসাবে শনাক্তের হার ১৯.৭৩ শতাংশ। ২ জুলাই ১ হাজার ৩২৩টি নমুনা পরীক্ষায় পজিটিভ পাওয়া যায় ২৮২ জনের। হিসেবে শনাক্তের হার ২১.৩১ শতাংশ। ৩ জুলাই নমুনা পরীক্ষা হয় ১ হাজার ২৩৬টি। এর মধ্যে পজিটিভ শনাক্ত হয় ২৬৩ জনের। হিসাবে শনাক্তের হার ২১.২৭ শতাংশ। ১ হাজার ৫০টি নমুনায় ২২০ জনের করোনা পজিটিভ পাওয়া যায় ৪ জুলাই। শনাক্তের হার ২০.৯৫ শতাংশ। ৫ জুলাই ১ হাজার ৩১৮টি নমুনায় পজিটিভ শনাক্ত হয় ২৯২ জনের। শনাক্তের হার ছিল ২২.১৫ শতাংশ। ৬ জুলাই ১ হাজার ৩৬০টি নমুনা পরীক্ষা হয়। এতে পজিটিভ শনাক্ত হয় ২৯৭ জনের। শনাক্তের হার দাঁড়ায় ২১.৮৩ শতাংশ। ৭ জুলাই ১ হাজার ৪৭১টি নমুনা পরীক্ষায় পজিটিভ শনাক্ত হয় ২৯৫ জনের। শনাক্তের হার ২০.০৫ শতাংশ। ৮ জুলাই ১ হাজার ২৬৫ টি নমুনায় ২৫৯ জনের করোনা পজিটিভ পাওয়া যায়। শনাক্তের হার ২০.৪৭ শতাংশ। ৯ জুলাই ৭৮৬ নমুনায় পজিটিভ শনাক্ত হয় ১৬২ জনের। হিসেবে শনাক্তের হার ২০.৬১ শতাংশ। বেশ কয়দিন পর শনাক্তের হার কিছুটা কমে ১০ জুলাই। এদিন ১ হাজার ৯৯টি নমুনা পরীক্ষা হয়। এতে ১৯২ জনের করোনা পজিটিভ পাওয়া যায়। শনাক্তের হার দাঁড়ায় ১৭.৪৭ শতাংশ। তবে কমার পর ফের শনাক্তের হার বেড়ে যায়। পরদিন ১১ জুলাই শনাক্তের হার দাঁড়ায় চলতি মাসে সর্বোচ্চ। এদিন ৪২৫টি নমুনা পরীক্ষায় ১০৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়। শনাক্তের হার ২৪.৭০ শতাংশ। যা চলতি মাসে এ পর্যন্ত সর্বোচ্চ। ১২ জুলাই ৫৯৭টি নমুনা থেকে ১০৭টি পজিটিভ, যা ১৭.৯২ শতাংশ আক্রান্ত। আর ১৩ জুলাই ৮৫৬টি নমুনার ১৬টি পজিটিভ। শতকরা হিসাবে ১৯.৫১ শতাংশ আক্রান্ত।

সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি বলেন, সংক্রমণের হার আগে আরও বেশি ছিল। চলতি মাসে তা কিছুটা কমেছে। তবে স্বাস্থ্যবিধি না মানলে সামনের দিনগুলোয় সংক্রমণের হার আবারও বেড়ে যেতে পারে। বিশেষ করে কোরবানির ঈদ ঘিরে সংক্রমণ বাড়তে পারে।

তিনি বলেন, গত ১২ ও ১৩ জুলাই করোনায় একজনেরও মৃত্যু হয়নি চট্টগ্রােম। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনামুক্ত হয়েছেন আরও ১৭ জন। ৮৫৬টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। নতুন আক্রান্ত হয়েছে ১৬৭ জন। এদের মধ্যে নগরে ৯৬ জন এবং উপজেলায় ৬১ জন। এ নিয়ে চট্টগ্রামে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১১ হাজার ৭৬৪। সুস্থ হয়েছে ১৭ জন। এ নিয়ে চট্টগ্রামে মোট কোভিড-১৯ থেকে সুস্থ হয়েছে ১ হাজার ৪১৪ জন।

advertisement
Evaly
advertisement