advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

তামিম রিয়াদ মোস্তাফিজ খেলবেন না সিপিএলে

ক্রীড়া প্রতিবেদক
১৬ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১৬ জুলাই ২০২০ ০০:০৯
advertisement

আসন্ন ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (সিপিএল) খেলার সুযোগ ছিল তামিম ইকবাল, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও মোস্তাফিজুর রহমানের। তবে বাংলাদেশ জাতীয় দলের এই তিন ক্রিকেটার যাচ্ছেন না উইন্ডিজে। কারণ হিসেবে তামিম এবং মোস্তাফিজ বলেছেন, ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের কথা। বলে রাখা ভালো, মার্চে শুরু হয়েছে ঢাকা লিগ। করোনা ভাইরাসের প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় প্রথম রাউন্ড শেষে অনির্দিষ্টকালের জন্য লিগ বন্ধ ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। তবে এ লিগ আবার চালু হতে পারে। সম্প্রতি ক্রিকেট কমিটি অব ঢাকা মেট্রোপলিসের (সিসিডিএম) পক্ষ থেকে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে খেলার প্রস্তুতি নিতে ক্লাবগুলোকে মৌখিক একটা নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি ভালো হলে ১৫ দিনের নোটিশে যেন খেলায় ফিরতে পারে তারা। ক্লাবগুলোও তাতে সম্মতি দিয়েছে।

আইপিএল মাতিয়েছেন মোস্তাফিজ। সানরাইজার্স হায়দরাবাদ, মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে কাটার মাস্টারের। এবার ওয়েস্ট ইন্ডিজের ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি লিগে অভিষেক হতো তার। তবে ১৮ আগস্ট থেকে শুরু হতে যাওয়া সিপিএলে না খেলার কথাই বলেছেন মোস্তাফিজ। মুঠোফোনে তিনি বলেন, ‘ওই সময় ঢাকা লিগ শুরু হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সিপিএলের চেয়েও ঢাকা লিগে খেলাটাই বেশি গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করছি। তা ছাড়া করোনা ভাইরাসের কারণে বিদেশ ভ্রমণও ঝুঁকিপূর্ণ। সব কিছু মিলিয়ে সিপিএলে না খেলাটাই শ্রেয় বলে মনে করেছি।’

বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল ও টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ এ বিষয়ে কথা বলেছেন। তামিম বলেছেন, ‘প্রিমিয়ার লিগে খেলতে আমি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। সিপিএলে না খেলার সিদ্ধান্ত নেওয়ার এটি একটি কারণ। ঢাকা লিগ কবে শুরু হবে তা এখনো নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। তবে আমরা সবাই খেলার জন্য অপেক্ষায় আছি। আমরা জানি যে কোনো সময় ঢাকা লিগ আবারও মাঠে গড়াতে পারে।’ তিনি আরও বলেছেন, ‘ভ্রমণজনিত সমস্যাও কিন্তু রয়েছে। কোভিড ১৯-এর কারণে বিদেশ ভ্রমণে কিছু সীমাবদ্ধতা রয়েছে। এ ছাড়া ওয়েস্ট ইন্ডিজের রুটও অনেক দীর্ঘ। ধরুন আমি ওখানে গেলাম কিন্তু কোনো কারণে যদি আমার পরিবারের আমাকে প্রয়োজন হয় তখন কিন্তু খুব সহজে আমি ফিরতে পারব না। তাই আমি সে সুযোগটি নিতে চাই না।’

মাহমুদউল্লাহ তার পরিবারের আপত্তির কথা জানিয়েছেন। তিনি পরিবারকে বলেছিলেন। কিন্তু তারা রাজি হননি। তিনি বলেন, ‘ কোভিড ১৯-এর কারণে পরিস্থিতি যে সঠিক নয় সে বিষয়ে আমাদের একমত হতে হবে। সিপিএলে খেলার প্রস্তাবের বিষয়টি আমি আমার পরিবারকে জানালে তারা রাজি হয়নি। আমিও ভেবেছিলাম আমার জন্য তাদের চিন্তায় ফেলে রাখা ঠিক হবে না। ওয়েস্ট ইন্ডিজ যাওয়াটা সহজ নয়। দীর্ঘ পথ। অনেক ট্রানজিট এবং আইন অনুসরণ করতে হয়। আপনি জানেন না, আপনাকে কি সব ফেস করতে হবে।’

২০১৩ সালে সেন্ট লুসিয়া চৌকসের হয়ে খেলেছিলেন তামিম। বাঁহাতি এ ব্যাটসম্যান ৭ ম্যাচে ১৬২ রান করেছিলেন। সর্বোচ্চ ৭৫। মাহমুদউল্লাহ ২০১৭ সালে জ্যামাইকা তালাওয়াসের হয়ে খেলেছিলেন। তিনি অবশ্য নজরকাড়া পারফরম্যান্স করতে পারেননি।

৫ ম্যাচে ১১ রান করেছিলেন।

সিপিএলের অষ্টম এ আসর মাঠে গড়ানোর কথা রয়েছে ১৮ আগস্ট থেকে। এতে অংশ নেওয়া ছয়টি দল হলোÑ ত্রিনিদাদ অ্যান্ড টোবাগো, সেইন্ট কিটন অ্যান্ড নেভিস, গায়ানা, বার্বাডোজ, জ্যামাইকা অ্যান্ড সেন্ট লুসিয়া। করোনা ভাইরাস পরিস্থিতির কারণে সব ম্যাচ ত্রিনিদাদে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। ইতোমধ্যে স্থানীয় সরকার টুর্নামেন্ট আয়োজনের অনুমতি দিয়েছে। দুটি ভেন্যুতে দর্শকশূন্য গ্যালারিতে অনুষ্ঠিত হবে ম্যাচ।

advertisement
Evaly
advertisement