advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ব্রিটিশ জাহাজ কোম্পানির বিরুদ্ধে মামলার অনুমতি পেলেন বাংলাদেশি নারী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
১৬ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১৬ জুলাই ২০২০ ০০:২৫
advertisement

ব্রিটিশ জাহাজ কোম্পানি মারান (ইউকে) লিমিটেডের বিরুদ্ধে মামলার অনুমতি পেয়েছেন বাংলাদেশি নারী হামিদা বেগম। প্রতিষ্ঠানটির ইকতা নামের আটতলা সমান উঁচু একটি জাহাজ থেকে পড়ে তার স্বামী মোহাম্মদ খলিল মোল্লাহর (৩২) মৃত্যু হয়েছিল। এ ঘটনায় তাকে প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে মামলার অনুমতি দিয়েছেন যুক্তরাজ্যের আদালত। খবর রয়টার্স।

জানা গেছে, এ মামলায় জিতলে হামিদা বেগমের এক লাখ পাউন্ড ক্ষতিপূরণ পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। মারান (ইউকে) লিমিটেড ওই সুপার ট্যাংকারটি বিক্রির সঙ্গে জড়িত ছিল। ২০১৮ সালে চট্টগ্রামের একটি

শিপ ব্রেকিং ইয়ার্ডে তিন লাখ টন ওজনের বিশালাকৃতির ওই জাহাজে কাজ করছিলেন খলিল। কাজ করার সময় এক পর্যায়ে ওপর থেকে পড়ে তার মৃত্যু হয়। ২০১৯ সালের এপ্রিলে এ নিয়ে ব্রিটিশ আদালতের শরণাপন্ন হন মৃত খলিলের স্ত্রী হামিদা বেগম। এ পরিপ্রেক্ষিতে গত সোমবার ব্রিটিশ হাইকোর্টের আদেশে বলা হয়, খলিলকে সুরক্ষা দেওয়া মারানের দায়িত্ব ছিল। এ রায়ের ব্যাপারে এখনো পর্যন্ত মারান (ইউকে) লিমিটেডের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য, মারান (ইউকে) লিমিটেড মূলত গ্রিসের অ্যাঞ্জেলিকোসিস গ্রুপের একটি অঙ্গ প্রতিষ্ঠান। শ্রমিক খলিল মোল্লাহ সরাসরি প্রতিষ্ঠানটির নিয়োগপ্রাপ্ত ছিলেন না। অন্য একটি কোম্পানিকে পুরনো জাহাজটি ভাঙার দায়িত্ব দিয়েছিল মারান। চট্টগ্রামের শিপ ব্রেকিং ইয়ার্ডে এ কাজ করতে গিয়েই মৃত্যু হয় খলিলের। সোমবারের রায়ে যুক্তরাজ্যের হাইকোর্ট জানিয়েছে, দেশটির কোনো প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ, ভারত বা পাকিস্তানে তাদের কোনো জাহাজ ভাঙার জন্য পাঠালে, এগুলো ভাঙতে গিয়ে কোনো শ্রমিক হতাহত হলে সংশ্লিষ্ট কোম্পানিকে তার দায়ভার গ্রহণ করতে হয়।

advertisement