advertisement
advertisement

বয়স্কদের চেয়ে ১০০ গুণ বেশি করোনা বহন করতে পারে শিশুরা!

অনলাইন ডেস্ক
৩১ জুলাই ২০২০ ২২:০৬ | আপডেট: ১ আগস্ট ২০২০ ০৮:৫২
করোনা পরীক্ষার জন্য এক শিশুর নমুনা নেওয়া হচ্ছে। ছবি : গেটি ইমেজেস
advertisement

করোনাভাইরাস সংক্রমণের শুরুর দিকে শিশুদেরকে বয়স্কদের তুলনায় নিরাপদ মনে করা হতো। শিশুদের আক্রান্তের হার কম হলেও পূর্ণ বয়স্ক ব্যক্তিদের চেয়ে পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুরা তাদের শ্বসনতন্ত্রে ১০০ গুণ বেশি করোনাভাইরাস বহন করতে পারে বলে এক গবেষণায় উঠে এলো।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম নিউইয়র্ক টাইমসের খবরে বলা হয়, গতকাল বৃহস্পতিবার জামা পেডিয়াট্রিকস নামক এক মার্কিন জার্নালে প্রকাশিত এক গবেষণায় চাঞ্চল্যকর এ তথ্য উঠে এসেছে।

এর আগে করোনাভাইরাস নিয়ে করা গবেষণাগুলোতে শিশুদের থেকে এই ভাইরাস ছড়াতে পারে সেটির পক্ষে কোনো শক্ত প্রমাণ পাওয়া যায়নি। তবে শিশুরা করোনা বেশি বহন করতে পারায় তাদের থেকে যদি বয়স্করা সংক্রমিত হয় তাহলে সেটি খুবই আশঙ্কার বিষয়ে হবে বলে মনে করছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

জামা পেডিয়াট্রিকস জার্নালে প্রকাশিত প্রতিবেদনে গবেষকরা বলছেন, শিশুদের থেকে করোনার সংক্রমণের বিষয়টি নিয়ে পরিষ্কার হতে পারলে এটি জনস্বাস্থ্য গাইডলাইন তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

গত ২৩ মার্চ থেকে ২৭ এপ্রিল পর্যন্ত আন অ্যান্ড রবার্ট এইচ লুরিয়ে চিল্ড্রেন হসপিটাল এবং নর্থওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটির একটি যৌথ গবেষকদল গবেষণার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো, ইলিনয়েসের বহিরাগত এবং হাসপাতালের জরুরি বিভাগে ভর্তি হওয়া শিশু এবং পূর্ণ বয়স্কদের কাছ থেকে নমুনা সংগ্রহ করে। গবেষণায় এক মাস থেকে শুরু করে ৬৫ বছর পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত রোগী যারা মৃদু অথবা মাঝারি উপসর্গে ভুগছেন তাদের কাছ থেকে নমুনা সংগ্রহ করা হয়।

গবেষণায় বয়স ভিত্তিক মোট তিনটি গ্রুপ নিয়ে কাজ করা হয়। এদের মধ্যে পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুদের জন্য একটি গ্রুপ করা হয়। এ ছাড়া পাঁচ থেকে ১৭ বছর বয়সী এবং ১৮ থেকে ৬৫ বছর বয়সীদের জন্য আলাদা দুটি গ্রুপ করা হয়।

মার্কিন গবেষকদের গবেষণায় দেখা যায়, শিশুরা তাদের শ্বসনতন্ত্রে পূর্ণাঙ্গ বয়স্কদের চেয়ে ১০ থেকে ১০০ গুণ পর্যন্ত বেশি করোনা বহন করছে। তবে শিশুদের কাছ থেকে এই ভাইরাস ছড়াতে পারে কি না, বা ছড়ালেও কতটা ছড়াতে পারে সে বিষয়ে এখনো নিশ্চিতভাবে কিছু বলতে পারেননি গবেষকরা।

গবেষকরা অল্প বয়সী শিশুদের আচরণগত অভ্যাস এবং জনস্বাস্থ্য বিধিনিষেধ হ্রাস হওয়ায় স্কুল ও ডে-কেয়ার সেন্টারে তাদের সান্নিধ্য সম্পর্কে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

advertisement