advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

গরম কমবে কাল থেকে

নিজস্ব প্রতিবেদক
৪ আগস্ট ২০২০ ১৩:১৬ | আপডেট: ৪ আগস্ট ২০২০ ১৪:২৮
প্রতীকী ছবি
advertisement

তীব্র গরম অনুভূত হচ্ছে দেশের বিভিন্ন জায়গায়। তবে আগামীকাল থেকে এ তীব্রতা এত বেশি থাকবে না বলে মনে করছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। দেশের কয়কটি অঞ্চলে বৃষ্টিপাত হওয়ায় কাল থেকে গরমের মাত্রা কমতে পারে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়াবিদ রাশেদুল হাসান।

আজ মঙ্গলবার সকালে রাশেদুল বলেন, ‘গত রাত থেকেই দেশের দক্ষিণাঞ্চলে বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে। আজ ঢাকাসহ দেশের আরও কিছু জায়গায় বৃষ্টিপাত হচ্ছে। আশা করা যাচ্ছে, আগামীকাল গরমের তীব্রতা কমে আসবে।’

মৌসুমি বায়ুর অক্ষ বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চল হয়ে আসাম পর্যন্ত বিস্তৃত আছে। এর একটি বর্ধিতাংশ উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে। মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের ওপর মোটামুটি সক্রিয়। উত্তর বঙ্গোপসাগর ও এর আশ-পাশের এলাকায় সৃষ্টি লঘুচাপের প্রভাবে মৌসুমি বায়ু সক্রিয় থাকায় বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকা এবং সমুদ্র বন্দরগুলোর ওপর দিয়ে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। যে কারণে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

একইসঙ্গে উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারগুলোকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি থেকে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে।

ঢাকা, ফরিদপুর, যশোর, কুষ্টিয়া, খুলনা, বরিশাল, পটুয়াখালী, নোয়াখালী, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার ও সিলেট অঞ্চলের ওপর দিয়ে দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব দিক থেকে ঘণ্টায় ৬০ থেকে ৮০ কিলোমিটার বেগে অস্থায়ীভাবে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। যে কারণে এসব নদী বন্দরে দুই নম্বর নৌ হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

এ ছাড়া, দেশের অন্য জায়গায় একই দিক থেকে ঘণ্টায় ৪৫ থেকে ৬০ কিলোমিটার বেগে অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়া বয়ে যেতে পারে। এসব নদী বন্দরে এক নম্বর সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। পূর্বাভাস আরও বলছে, চলতি মাসের শেষের দিকে মৌসুমি ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে উত্তরাঞ্চল, উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে স্বল্প মেয়াদি বন্যার সৃষ্টি হতে পারে।

এর আগে আগস্টের মাঝামাঝিতে দেশের উত্তরাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলের বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হয়ে স্বাভাবিক হয়ে আসবে। এ মাসে বঙ্গোপসাগরে একটি কিংবা দুটি বর্ষাকালীন লঘুচাপের সৃষ্টি হতে পারে। যার একটি বর্ষাকালীন নিম্নচাপে পরিণত হওয়ার সম্ভাবনা আছে।

জুলাই মাসে সারা দেশে স্বাভাবিকের চেয়ে ১১ দশমিক তিন শতাংশ বেশি বৃষ্টিপাত হয়েছে। তবে বরিশালে স্বাভাবিকের চেয়ে কম ছিল। ঢাকা, খুলনা ও চট্টগ্রাম বিভাগে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ স্বাভাবিক ছিল। সক্রিয় মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে ৯ থেকে ১৩ জুলাই এবং ১৯ থেকে ২৩ জুলাই দেশের অনেক জায়গায় ভারী থেকে অতিভারী বর্ষণ হয়। ১ জুলাই নীলফামারীর ডিমলায় গত মাসের দৈনিক সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত ২০২ মিলি মিটার রেকর্ড করা হয়।

গড় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে এক দশমিক তিন ডিগ্রি এবং সর্বনিম্ন শূন্য দশমিক সাত ডিগ্রি সেলসিয়াস বেশি ছিল। গত ২৬ জুলাই দেশের যশোরে দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং ৬ জুলাই টেকনাফে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২২ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়।

advertisement
Evaly
advertisement