advertisement
advertisement

অবশেষে জেলে টিকটকের কথিত স্টার অপু-নাজমুল

নিজস্ব প্রতিবেদক
৫ আগস্ট ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৫ আগস্ট ২০২০ ০০:৩৭
advertisement

অবশেষে কারাগারে টিকটকের কথিত স্টার ইয়াছিন আরাফাত অপু। সাধারণ মানুষকে হেনস্তা ও মারধরের অভিযোগে গত সোমবার সন্ধ্যায় উত্তরা থেকে তার সহযোগী নাজমুলসহ অপুকে গ্রেপ্তার করা হয়। গত রবিবার সন্ধ্যায় উত্তরা ছয় নম্বর সেক্টরের স্থানীয় লোকজনকে মারধর করার অভিযোগে অপুর বিরুদ্ধে একটি মামলা হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে তাকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানিয়েছেন উত্তরা মডেল থানার এসআই মো. আজিজুল ইসলাম।

অপু ও নাজমুলকে গতকাল মঙ্গলবার আদালতে হাজিরের পর তাদের পক্ষে জামিনের আবেদন করা হলে তা নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত। সংশ্লিষ্ট থানার সাধারণ নিবন্ধন

কর্মকর্তা (জিআরও) জালাল উদ্দীন জানান, মঙ্গলবার দুপুরে উত্তরা পূর্ব থানার এ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আজিজুর তালুকদার আসামিদের আদালতে হাজির করে তিন দিনের রিমান্ডের আবেদন করেন। অন্যদিকে আসামিপক্ষের আইনজীবী কে এম শফিকুল ইসলাম রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিনের আবেদন করেন। রাষ্ট্রপক্ষ জামিনের বিরোধিতা করে রিমান্ডের দাবি জানায়। ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মাহমুদা বেগম শুনানি শেষে আসামিদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই আজিজুল ইসলাম ও স্থানীয় সূত্র জানায়, গ্রেপ্তার অপুর বাবার নাম শহীদ ইসলাম। গ্রামের বাড়ি নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী। দক্ষিণখান থানাস্থ একটি ভাড়া বাসায় থাকেন তিনি। মোবাইলভিত্তিক অ্যাপস ‘টিকটক’ ও ‘লাইকি’তে নিজের নানা ভিডিও তৈরি করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আপলোড করতেন অপু। তার নিজস্ব একটি ফলোয়ার বাহিনী রয়েছে। গত রবিবার সন্ধ্যায় উত্তরা ছয় নম্বর সেক্টরের আলাওল অ্যাভিনিউতে বেশ কয়েকজন অনুসারী নিয়ে রাস্তা দখল করে আড্ডা দিচ্ছিল অপু। এ সময় মেহেদী হাসান নামে স্থানীয় এক তরুণ ও তার বন্ধুরা গাড়ি নিয়ে ওই সড়ক ধরে যাবার সময় হর্ন বাজিয়ে রাস্তা থেকে সরে যাওয়ার অনুরোধ করে। সড়কে সাইড দেওয়া নিয়ে মেহেদী হাসান ও তার বন্ধুদের সঙ্গে অপুর অনুসারীদের বাগ্বিত-া হয়। একপর্যায়ে অপু ও তার অনুসারীরা মেহেদী ও তার বন্ধুদের বেধড়ক পেটান। ঘটনার রাতেই ভুক্তভোগী তরুণদের একজনের বাবা এসএম মাহবুব হাসান বাদী হয়ে উত্তরা মডেল থানায় অপু ও তার অজ্ঞাত অনুসারীদের নামে মামলা করেন। বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার ঝড় ওঠে।

advertisement