advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

বাংলাদেশের বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপের বাছাইপর্ব স্থগিত

ক্রীড়া প্রতিবেদক
১২ আগস্ট ২০২০ ২১:১৫ | আপডেট: ১২ আগস্ট ২০২০ ২১:১৫
advertisement

২০২২ বিশ্বকাপ এবং ২০২৩ এশিয়ান কাপ বাছাইপর্বের খেলা আবার পিছিয়ে গেল। চারটি ম্যাচ খেলার পর করোনা ভাইরাসের কারণে খেলা বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। তাতে বাধ্য হয়েই সূচিতে পরিবর্তন আনা হয়। নতুন সূচি অনুযায়ী অবশিষ্ট চার ম্যাচ আগামী অক্টোবর ও নভেম্বরে পিছিয়ে নেয় ফিফা ও এএফসি।

পুর্ননির্ধারিত সূচি ধরেই আগামী অক্টোবরে জাতীয় দলকে মাঠের নামার পরিকল্পনা অনুযায়ী কার্যক্রম চালিয়ে যায় বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে)। ৩৬ সদস্যের প্রাথমিক দল ঘোষণা দেওয়া হয়। তবে ক্যাম্প শুরুর প্রথম পর্বেই করোনার ছোবলে দিশেহারা হয়ে যায় বাফুফে। ৩০ ফুটবলারের মধ্যে ১৮ জনই করোনায় আক্রান্ত। করোনা পরীক্ষার ফল নিয়েও বিভ্রান্তি তৈরি হয়। এজন্য নতুন করে দুটি আলাদা প্রতিষ্ঠানে সব ফুটবলার, কর্মকর্তা ও স্টাফদের করোনা পরীক্ষা করানো হয়।

কিন্তু এই মধ্যে হতাশার খবর-আগামী অক্টোবর থেকে শুরু হচ্ছে না বাংলাদেশের বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপের যৌথ বাছাই পর্বের খেলা। আবারও করোনাভাইরাসের কারণে বড় ধাক্কা খেল বাংলাদেশ। বিশ্ব ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফার সঙ্গে আলোচনা করে এএফসি আবারও পিছিয়ে দিয়েছে খেলার সূচি। আগামী বছর অনুষ্ঠিত হবে বাছাই পর্বের বাংলাদেশের বাকি চার ম্যাচ।

এএফসির ওয়েবসাইটে জানানো হয়, বিভিন্ন দেশে কোভিড-১৯ ভাইরাস পরিস্থিতি লক্ষ্য করে কাতার বিশ্বকাপ ও চীনে এশিয়ান কাপের জন্য নির্ধারিত ম্যাচের সূচি পরিবর্তন করে ২০২১ সালে নেওয়া হয়েছে। ফিফা ও এএফসি যৌথভাবে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তবে ২০২১ সালে বাংলাদেশের ম্যাচগুলো কবে, কোথায় ও কখন অনুষ্ঠিত হবে-তা জানায়নি এএফসি। ফিফা ও এএফসি পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে বাছাইপর্বের ম্যাচগুলোর সূচি ঠিক করবে। সময় হলেই বাছাইপর্বের এ ম্যাচগুলোর সময়সূচি জানিয়ে দেওয়া হবে। আগামী ৮ অক্টোবর সিলেটের মাঠে আফগানিস্তানের বিপক্ষে করোনা-পরবর্তী প্রথম ম্যাচের সূচি ছিল। এছাড়াও ১২ নভেম্বর ভারত ও ১৭ নভেম্বর ওমানের বিপক্ষে ম্যাচের সূচি ছিল। অপর ম্যাচটি কাতারের বিপক্ষে ১৩ অক্টোবর খেলার কথা ছিল।

বাছাই পর্বে ‘ই’ গ্রুপে চার ম্যাচ খেলে এক পয়েন্টি নিয়ে তালিকায় তলানিতে বাংলাদেশের অবস্থান। বাফুফেও গতকাল এক বিজ্ঞপ্তিতে বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপের বাছাই পর্বের খেলা স্থগিতের খবর জানিয়েছে।

দেশের ফুটবলের অভিভাবক সংস্থাটি জানায়, এ ব্যাপারে চিঠি দিয়েছে এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশন (এএফসি)।

এশিয়ার দেশসমূহে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত পরিস্থিতির কারণে আন্তর্জাতিক ভ্রমনের বিধিনিষেধসহ ফ্লাইট জটিলতার কারণে ফিফার অনুমোদনক্রমে ‘ফিফা ওয়ার্ল্ড কাপ ২০২২, কোয়ালিফায়ার্স’ এবং ‘এএফসি এশিয়ান কাপ চায়না ২০২৩, কোয়ালিফায়ার্স প্রিলিমিনারী জয়েন্ট কোয়ালিফিকেশন রাউন্ড-২’ এর আগামী অক্টোবর ও নভেম্বর ২০২০ এর ম্যাচসমূহ স্থগিত করে আগামী ২০২১ সালে আয়োজন করার বিষয়ে সংশ্লিষ্ট সকলকে অবহিত করা হয়েছে। উক্ত ম্যাচসমূহের পরবর্তী তারিখ ও অন্যান্য বিষয়ে যথাসময়ে ফিফা/এএফসি কর্তৃক অবহিত করা হবে।

খেলা স্থগিত হওয়ায় গাজীপুরে সারা রিসোর্টে চলমান বাংলাদেশ ফুটবল দলের আবাসিক ক্যাম্পও আজ থেকে স্থগিত করা হয়েছে। কোভিড-১৯ আক্রান্ত খেলোয়াড়দের বাফুফের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হবে।

প্রস্তুতি ক্যাম্পে অংশ নেওয়া বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের খেলোয়াড় ও কর্মকর্তাদের গত ৫, ৬ ও ৮ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে কোভিড-১৯ পরীক্ষা করা হয়।

পরবর্তীতে গত ১০ আগস্ট ২০২০ তারিখ দুটি প্রতিষ্ঠান যথাক্রমে-প্রাভা হেলথ ও আইসিডিডিআরবির মাধ্যমে পুনরায় ৩৬ জনের (৩০ জন খেলোয়াড় ও ৬ জন কর্মকর্তা/স্টাফ) কোভিড-১৯ পরীক্ষা করা হয়। গতকাল ফল প্রকাশ করে বাফুফে।

২৬ জন নেগেটিভ, ৭ জন পজিটিভ (এম এস বাবলু, রবিউল হাসান, ফয়সাল আহমেদ ফাহিম, টুটুল হোসেন বাদশা, শহিদুল আলম, আনিসুর রহমান ও বিশ্বনাথ ঘোষ) এবং ৩ জন খেলোয়াড় (রিয়াদুল হাসান, রায়হান হাসান ও রাকিব হোসেন) কে সতর্কভাবে পর্যবেক্ষণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

বাফুফের সাধারণ সম্পাদক আবু নাইম সোহাগ বলেছেন, ৩০ ফুটবলারের মধ্যে ৭ জনের করোনা পজিটিভ এসেছে। ২০ জন করোনা নেগেটিভ। বাকি তিনজনের পজিটিভ ও নেগেটিভ ফল এসেছে। তাই এই তিনজনকে বিশেষ পর্যবেক্ষণে রাখবে বাফুফে।

advertisement
Evaly
advertisement