advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

বিচার শুরু বুয়েটের ২৫ শিক্ষার্থীর

আদালত প্রতিবেদক
১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ ২২:৩১
advertisement

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় চার্জশিটভুক্ত ২৫ আসামির বিরুদ্ধে চার্জগঠন করেছেন ট্রাইব্যুনাল। গতকাল মঙ্গলবার ঢাকার এক নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক আবু জাফর মো. কামরুজ্জামান আসামিদের অব্যাহতির আবেদন নামঞ্জুর করে চার্জগঠনের আদেশ করেন। চার্জগঠনের মাধ্যমে মামলাটির বিচার শুরু হলো। আসামিদের সবাই বুয়েটের শিক্ষার্থী এবং তাদের বেশিরভাগই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের নেতাকর্মী।

গতকাল আদালতে উপস্থিত ২২ আসামিকে বিচারক অভিযোগ পাঠ করে শোনানোর

পর তারা নিজেদের নির্দোষ দাবি করে ন্যায়বিচার প্রার্থনা করেন। ফলে বিচারক ২০-২৪ ও ২৭-৩০ সেপ্টেম্বর এবং ১ অক্টোবর সাক্ষ্যগ্রহণের দিন ধার্য করেন। এ ছাড়া মামলার পলাতক তিন আসামি মোর্শেদ-উজ-জামান ম-ল জিসান, এহতেশামুল রাব্বি তানিম ও মুজতবা রাফিদের পক্ষে আদালত তিনজন আইনজীবীকে নিযুক্ত করেন।

এদিন রাষ্ট্রপক্ষে এ মামলার প্রধান প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট মোশাররফ হোসেন কাজল ও প্রসিকিউটর আবু আবদুল্লাহ ভূঁইয়া এবং রাষ্ট্র ও বুয়েট নিযুক্ত প্রসিকিউটর এহসানুল হক সমাজী ট্রাইব্যুনালে উপস্থিত ছিলেন। আসামিপক্ষে সিনিয়র অ্যাডভোকেট মাহবুবুর রহমান, অ্যাডভোকেট আমিনুল গণি টিটো, অ্যাডভোকেট নজরুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। গত ২ সেপ্টেম্বর এ মামলায় চার্জগঠনের শুনানি শুরু হয়।

কারাগারে থাকা ২২ আসামি হলেন- বুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান রাসেল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মুহতামিম ফুয়াদ, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক মো. অনিক সরকার, ক্রীড়া সম্পাদক মেফতাহুল ইসলাম জিয়ন, সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান রবিন, মনিরুজ্জামান মনির, খন্দকার তাবাখখারুল ইসলাম তানভীর, উপ-সমাজসেবা সম্পাদক ইফতি মোশাররফ সকাল, আইন উপ-সম্পাদক অমিত সাহা, গ্রন্থ ও প্রকাশনা সম্পাদক ইসতিয়াক আহম্মেদ মুন্না, ছাত্রলীগকর্মী মুনতাসির আল জেমি, নিহত ফাহাদের রুমমেট মিজানুর রহমান, শিক্ষার্থী মুজাহিদুর রহমান, এএসএম নাজমুস সাদাত, শাসছুল আরেফিন রাফাত, আকাশ হোসেন, মাজেদুর রহমান মাজেদ, শামীম বিল্লাহ, হোসেন মোহাম্মাদ তোহা, আবু হুরায়রা মুয়াজ, মোর্শেদ অমর্ত্য ইসলাম ও এসএম মাহমুদ সেতু।

আবরার ফাহাদ বুয়েটের তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক প্রকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের (১৭তম ব্যাচ) ছাত্র ছিলেন। থাকতেন বুয়েটের শেরেবাংলা হলের নিচতলার ১০১১ নম্বর কক্ষে। গত বছরের ৬ অক্টোবর শিবিরকর্মী সন্দেহে হলের ২০১১ নম্বর কক্ষে তাকে নির্যাতন করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। নির্যাতনের পর অর্ধমৃত অবস্থায় তাকে দোতলার সিঁড়িতে ফেলে রাখা হয়। রাত ৩টার দিকে হল থেকে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। হত্যাকা-ের পর ফাহাদের বাবা বরকত উল্লাহ ১৯ জনকে আসামি করে পরদিন চকবাজার থানায় হত্যা মামলা করেন।

১৩ নভেম্বর ডিবি পুলিশের পরিদর্শক (নিরস্ত্র) ওয়াহিদুজ্জামান ২৫ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। চলতি বছরের ২১ জানুয়ারি ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালত চার্জশিট গ্রহণ করেন। এপ্রিলে মামলাটি দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল ১-এ আসে এবং ৬ এপ্রিল ট্রাইব্যুনালে শুনানির প্রথম তারিখ ঠিক হয়। কিন্তু তার আগে করোনা ভাইরাসের কারণে আদালতের কার্যক্রম বন্ধ থাকায় বিচার শুরু করা যায়নি।

advertisement
Evaly
advertisement