advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতই হবে চ্যালেঞ্জ

এম এইচ রবিন
১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ ২২:৩১
advertisement

করোনাপরবর্তী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্বাস্থ্যবিধি বাস্তবায়ন নিশ্চিত করাই হবে শিক্ষা প্রশাসনের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। খোলার আগে প্রয়োজন কোভিড ১৯-এর জোনভিত্তিক রেড-গ্রিনে ভাগ করা। গ্রিন জোনে আগে চালু করা। স্তরভিত্তিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চালু যেমন- বিশ্ববিদ্যালয় খোলার পর পর্যায়ক্রমে কলেজ, মাধ্যমিক- সবশেষে প্রাথমিক স্তরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার পরামর্শ দিয়েছেন একজন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, দেশে করোনা সংক্রমণের সাত মাস পার হলেও এখনো পরিস্থিতি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার অনুকূলে নয়। বিভিন্ন খাত স্বাভাবিক চালু হলেও চলতি সেপ্টেম্বর মাস করোনা সংক্রমণ পর্যবেক্ষণের পরই সিদ্ধান্ত আসবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে। সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য স্বাস্থ্যবিধি প্রণয়ন করেছে শিক্ষা প্রশাসন।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা প্রসঙ্গে গতকাল সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম ব্রিফিংয়ে বলেন, (শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়টি) আমরা এখন সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের ওপর দিয়ে দিয়েছি। তারা চিন্তাভাবনা করছে কী করা যায়। (মন্ত্রিসভায় সিদ্ধান্ত নিয়ে) কওমি মাদ্রাসা খুলে দেওয়া হয়েছে।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে আইইডিসিআরের সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডা. মুশতাক হোসেন

আমাদের সময়কে বলেন, স্বাস্থ্যবিধি বাস্তবায়ন করাটাই হবে বড় চ্যালেঞ্জ। সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এক সঙ্গে খোলা যাবে না। আগে বড়দের (বিশ্ববিদ্যালয়) শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে স্বাস্থ্যবিধি বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে কী কী সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়, তা পর্যবেক্ষণ করে পর্যায়ক্রমে কলেজ, মাধ্যমিক স্কুল- সবশেষে প্রাথমিক বিদ্যালয় খোলা যেতে পারে।

তিনি বলেন, এখনো প্রতিদিনের সংক্রমণের হার অনেক বেশি। আবার এটাও ভাবতে হবে আর কতদিন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্তের আগে সরকারকে মহামারী সংক্রমণ রেড-গ্রিন জোন ম্যাপিং করতে হবে। সারাদেশের গ্রিন জোনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো আগে খোলা যেতে পারে।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব আকরাম-আল-হোসেন বলেন, সেপ্টেম্বর মাসও আমাদের পর্যবেক্ষণ করতে হবে। বিদ্যালয়গুলো খোলার মতো পরিবেশ এখনো সৃষ্টি হয়নি। আমরা শিশুদের ঝুঁঁকির মধ্যে ফেলব না। তিনি বলেন, ইতোমধ্যে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় প্রাথমিক বিদ্যালয় খোলার পর কীভাবে স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন করা হবে, সেই গাইডলাইন তৈরি করছে।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের স্বাস্থ্যবিধি

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার আগে মহামারী প্রতিরোধক মাস্ক, জীবাণুনাশক এবং নন-কন্ট্যাক্ট থার্মোমিটার সংগ্রহ করে জরুরি কাজের পরিকল্পনা প্রণয়ন করতে হবে। শিক্ষক, শিক্ষাদানকর্মী ও শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যের অবস্থা পর্যবেক্ষণ জোরদার করতে হবে। সকাল ও দুপুরে পরীক্ষার ব্যবস্থা বাস্তবায়ন এবং ‘প্রতিদিনের প্রতিবেদন’ ও ‘শূন্য প্রতিবেদন’ পদ্ধতি চালু করতে হবে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রবেশপথে শিক্ষক, শিক্ষাকর্মী, শিক্ষার্থী এবং বহিরাগত শিক্ষাদানকর্মীদের শরীরের তাপমাত্রা পরীক্ষা করতে হবে। যাদের শরীরের তাপমাত্রা বেশি পাওয়া যাবে, তাদের প্রবেশ নিষেধ। শ্রেণিকক্ষ, খেলার মাঠ এবং পাঠাগারের মতো গুরুত্বপূর্ণ জায়গাগুলোয় পর্যাপ্ত বায়ু চলাচল ব্যবস্থা থাকতে হবে। শ্রেণিকক্ষ, সর্বসাধারণ কর্তৃক ব্যবহৃত হয় এমন জায়গাসহ অন্যান্য জায়গার মেঝে ও ঘরের দরজার হাতল, সিঁড়ির হাতল এবং যেসব বস্তু বারবার ব্যবহৃত হয়, সেসব বস্তুর পৃষ্ঠ ঘন ঘন পরিষ্কার ও জীবাণুমুক্ত করতে হবে। খাবার থালাবাসন (পানির পাত্র) পরিষ্কার ও জীবাণুমুক্ত করা এবং প্রতিবার পরিবেশনের পর পুনরায় ব্যবহারযোগ্য খাবার থালাবাসন (পানির পাত্র) জীবাণুমুক্ত করতে হবে। দূরে দূরে বসে খাবার গ্রহণ করা এবং সম্পূর্ণ নিজস্ব থালাবাসন বা ওয়ানটাইম থালাবাসন ব্যবহার করতে হবে। প্রতিদিন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের চত্বরের আবর্জনা পরিষ্কার এবং আবর্জনা সংরক্ষণকারী পাত্র জীবাণুমুক্ত করতে হবে। শিক্ষাদানকর্মীদের পারস্পরিক শারীরিক যোগাযোগ কমে এবং দূরবর্তী বা অনলাইন শিক্ষাকে অগ্রাধিকার দিতে হবে। স্বাভাবিক অবস্থা না আসা পর্যন্ত কোনো প্রকার অভ্যন্তরীণ জমায়েত বা ক্রিয়াকলাপের আয়োজন করা যাবে না। শিক্ষাদান কর্মকর্তা এবং শিক্ষার্থীদের মাস্ক ব্যবহার করা। হাত ধোয়াসহ অন্যসব স্বাস্থ্যবিধি শক্তিশালী করা। শিক্ষক, শিক্ষাদানকর্মী বা শিক্ষার্থীদের মধ্যে কোভিড ১৯-এর সন্দেহভাজন কোনো কেস থাকলে তাৎক্ষণিকভাবে স্থানীয় স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষকে জানান এবং যারা এই কেসের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে এসেছেন, তাদের দ্রুত শনাক্ত ও কোয়ারেন্টিন করতে হবে।

advertisement
Evaly
advertisement