advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

টিউলিপ রেজওয়ানা সিদ্দিক : আমাদের গৌরব

ড. মিল্টন বিশ্বাস
১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ ২৩:১৩
advertisement

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দৌহিত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছোট বোন শেখ রেহানার কন্যা টিউলিপ রেজওয়ানা সিদ্দিক। তিনি ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের নির্মম হত্যাকা-ের সঙ্গে জড়িতদের মুখে ভস্ম ঢেলে নিজেকে জাগ্রত করেছেন উদ্দীপিত শিখার মতো। আর তার নামটিও সার্থক। ‘টিউলিপ’ শীতপ্রধান দেশের ফুল, যার নীলাভ কিংবা লাল রঙ আগুনের প্রতীক। এদিক থেকে তার নামটি আলোকিত প্রত্যাশার কথা বলে, মানুষের মঙ্গলে নিবেদিত জীবনের গান করে।

১৬ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশের গর্ব ও বঙ্গবন্ধু পরিবারের অহঙ্কার টিউলিপ রেজওয়ানা সিদ্দিকের জন্মদিন। মাত্র ৩৮ বছর বয়সে তিনি বিশ্ববাসীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন কেবল নিজের যোগ্যতা দিয়ে। বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ লেবার পার্টির এই রাজনীতিবিদ তারুণ্যের প্রদীপ্ত শিখা।

শেখ রেহানা ও শফিক সিদ্দিকের মেয়ে টিউলিপ সিদ্দিক ১৯৮২ সালে যুক্তরাজ্যের লন্ডনে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট থেকেই তার মা শেখ রেহানা নিদারুণ দুর্দশার মধ্যে পড়ে বড় বোন শেখ হাসিনাসহ এক দেশ থেকে অন্য দেশে আশ্রয়ের সন্ধানে ঘুরেছেন। তার পর একাকী তিনি দিল্লি থেকে ১৯৭৬ সালে লন্ডনে পৌঁছান এবং ১৯৭৭ সালে লন্ডনে অবস্থানরত ড. শফিক সিদ্দিককে বিয়ে করেন। ওই সময় টিউলিপের রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থী মায়ের চাকরি খোঁজা, বেঁচে থাকার জন্য সংগ্রাম করা আর অন্যদিকে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার দাবির লড়াই মিলেমিশে একাকার ছিল। জন্মের পর বড় হতে থাকা টিউলিপ পরদেশে আশ্রিত জীবনের বাস্তবতা পর্যবেক্ষণ করেছেন নিবিড়ভাবে। বঙ্গবন্ধুর রক্তধারা তাকে আদর্শবাদী রাজনীতি চর্চায় উৎসাহী করেছে। মাতামহ বঙ্গবন্ধু যেমন পাকিস্তান আমলে প্রবল প্রতিকূল অবস্থার মধ্য দিয়ে নিজেকে জনগণের নেতায় পরিণত করেছিলেন, অন্যদিকে খালা শেখ হাসিনা যেমন বাংলাদেশে বারবার হত্যার সম্মুখীন হয়েও নিজেকে জননেত্রীতে পরিণত করেছেন- তেমনি আশ্রিত জীবনের দুঃখ-কষ্ট জয় করে টিউলিপ হয়ে উঠেছেন ফিনিক্স পাখি। বঙ্গবন্ধুর খুনিচক্রকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে নিজে গৌরবান্বিত রাজনীতিবিদে পরিণত হয়েছেন। তেমনি বাংলাদেশকে বিশ্বের দরবারে মর্যাদার সঙ্গে তুলে ধরেছেন।

পিতা-মাতার সঙ্গে টিউলিপের শৈশব কেটেছে বাংলাদেশ, ভারত ও সিঙ্গাপুরে। ১৫ বছর বয়স থেকে তিনি হ্যাম্পস্টিড ও কিলবার্নে বসবাস করছেন। ওই এলাকায় স্কুলে পড়েছেন ও কাউন্সিলর হিসেবে দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন। লন্ডনের কিংস কলেজ থেকে পলিটিক্স, পলিসি ও গভর্নমেন্ট বিষয়ে তিনি স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। মাত্র ১৬ বছর বয়সে লেবার পার্টির সদস্য হওয়া টিউলিপ অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল গ্রেটার লন্ডন অথরিটি ও সেভ দ্য চিলড্রেনের সঙ্গেও কাজ করেছেন। তিনি ২০১৫ সালের ৭ মে অনুষ্ঠিত যুক্তরাজ্যের সাধারণ নির্বাচনে লন্ডনের হ্যাম্পস্টেড অ্যান্ড কিলবার্ন নির্বাচনী এলাকায় লেবার পার্টির মনোনীত প্রার্থী হিসেবে বিজয়ী হন। ২০১৫ সালে এমপি হওয়ার আগে তিনি রিজেন্ট পার্কের কাউন্সিলর এবং ২০১০ সাল থেকে চার বছর ক্যামডেন কাউন্সিলের কালচার অ্যান্ড কমিউনিটির সদস্য ছিলেন। মূলত ২০১৫ সালে একই দল থেকে তিন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নারী বিজয়ী হন। তাদের মধ্যে টিউলিপ ছিলেন ব্যতিক্রমী। তবে ব্রিটিশ এমপি রুশনারা আলী ও রূপা হকও আমাদের অহঙ্কার।

এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর টিউলিপ লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিনের ছায়া মন্ত্রিসভায় নিযুক্ত হন। পরে তিনি পার্লামেন্টে ব্রেক্সিট বিলের বিরুদ্ধে দৃঢ় অবস্থান গ্রহণপূর্বক লেবার পার্টির ছায়া মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করেন। ২০১৭ সালে অনুষ্ঠিত যুক্তরাজ্যের মধ্যবর্তী নির্বাচনে লন্ডনের হ্যাম্পস্টেড অ্যান্ড কিলবার্ন নির্বাচনী এলাকায় লেবার পার্টির মনোনীত প্রার্থী হিসেবে দ্বিতীয়বারের মতো বিপুল ভোটে বিজয়ী হন। রাজনৈতিক জীবনে তার এই সাফল্যের কারণ পরিশ্রম ও আদর্শবাদী কাঠামোর মধ্যে নিজেকে তৈরি করা। তিনি ২০১৫ সালে পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ হাউস অব কমন্সে প্রথমবারের মতো বক্তব্য রাখেন এবং প্রথম ভাষণেই নজর কাড়েন। ওই ভাষণে শরণার্থী ও আশ্রয়প্রার্থীদের প্রতি ব্রিটেনের সহৃদয়তার ওপর আলোকপাত করেন টিউলিপ সিদ্দিক। বিবিসির তৈরি ব্রিটিশ পার্লামেন্টে সবচেয়ে স্মরণীয় নবনির্বাচিতদের ভাষণের তালিকাতেও স্থান পায় তার ওই ভাষণ। নিজেকে ‘একজন আশ্রয়প্রার্থীর কন্যা’ হিসেবে বর্ণনা করে ওই সময় মা শেখ রেহানার দুর্দশার বিবরণ দেন তিনি।

২০১৯ সালের জানুয়ারিতে টিউলিপ যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্টে সাবেক প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মের ব্রেক্সিট চুক্তির বিপক্ষে ভোট দেওয়ার লক্ষ্যে দ্বিতীয় সন্তান জন্মদানের অস্ত্রোপচার পিছিয়ে বিশ্বব্যাপী সংবাদ শিরোনাম হয়েছিলেন। তখন পর্যন্ত যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্টে সাধারণত কোনো এমপির সন্তান জন্ম দেওয়ার সময় আসন্ন হলে বা সদ্যোজাত সন্তানের কারণে কিংবা অসুস্থতার কারণে ভোটে অংশ নিতে না পারলে বিরোধীপক্ষেরও একজন সদস্য ভোটদান থেকে বিরত থাকতেন, যাকে ‘পেয়ার’ বলা হতো। কিন্তু ২০১৮ সালের জুলাইয়ে কনজারভেটিভ পার্টির প্রধান ব্রান্ডন লুইস ওই প্রথা লঙ্ঘন করে ভোট দিয়েছিলেন। অতীতের এই ঘটনার কারণে ওই ব্যবস্থায় তার আর আস্থা নেই জানিয়ে টিউলিপ সশরীরে পার্লামেন্টে গিয়ে ভোট দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। তার এই সাহসী সিদ্ধান্তের কারণে সন্তানপ্রত্যাশী ও নবজাতকদের মা-বাবার জন্য ঐতিহাসিক প্রক্সি ভোটিং পদ্ধতি চালু করতে বাধ্য হয় ব্রিটিশ সরকার। এ বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ মর্মে মূল্যায়ন করেছে ‘ইভিনিং স্ট্যান্ডার্ড’ পত্রিকা। আর এ জন্যই লন্ডনের স্বনামধন্য সংবাদপত্র ‘ইভিনিং স্ট্যান্ডার্ড’ কর্তৃক প্রকাশিত ২০১৯ সালে যুক্তরাজ্যের প্রভাবশালী রাজনীতিবিদের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন।

উল্লেখ্য, টিউলিপের সঙ্গে ছিলেন যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন, ডাচি অব ল্যানকাস্টারের চ্যান্সেলর মাইকেল গভ, স্বাস্থ্যমন্ত্রী ম্যাট হ্যানকক ও শিক্ষামন্ত্রী গেভিন উইলিয়ামসনের মতো লন্ডনের শীর্ষস্থানীয় রাজনীতিবিদরা। ওই তালিকায় রাজনীতি ছাড়াও ব্যবসা, প্রযুক্তি, বিজ্ঞান, নকশা, সাহিত্য ও সংস্কৃতিসহ বিভিন্ন খাতের শীর্ষস্থানীয় ব্যক্তিরা স্থান লাভ করেন। ‘ইভিনিং স্ট্যান্ডার্ড’ প্রতিবছর লন্ডনে বিভিন্ন ক্ষেত্রে সবচেয়ে প্রভাব বিস্তারকারী ব্যক্তিদের নিয়ে ‘প্রগ্রেস ১০০০’ শীর্ষক এই তালিকা প্রকাশ করে।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রাজনৈতিক আদর্শ ও দর্শনের উত্তরাধিকারী হিসেবে তার দৌহিত্রী টিউলিপের যুক্তরাজ্যের রাজনীতিতে অংশগ্রহণ বাংলাদেশের জনগণের জন্য এক গৌরবজনক অধ্যায়। তার রাজনৈতিক প্রজ্ঞা, বিচক্ষণতা, সমাজের মূলধারায় অনগ্রসর জনগোষ্ঠীকে সম্পৃক্তকরণের উদ্যোগ, রাজনৈতিক মহল ও সমাজের সর্বস্তরে গ্রহণযোগ্যতা এবং সাধারণ্যে জনপ্রিয়তা বাঙালি জাতিকে আরও গৌরবান্বিত করেছে। তিনি লন্ডনের সবচেয়ে প্রভাবশালী রাজনীতিবিদের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে বাংলাদেশের সম্মানজনক অবস্থান আরও উন্নত ও সুসংহত হয়েছে। বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বলতর হওয়ায় শেখ হাসিনা সরকারের মন্ত্রিসভা ২০১৯ সালের অক্টোবরে তাকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জ্ঞাপন করেছে।

মূলত টিউলিপ রেজওয়ানা সিদ্দিক লন্ডনের সবচেয়ে প্রভাবশালী রাজনীতিবিদের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে বাংলাদেশের সম্মানজনক অবস্থান আরও উন্নত ও সুসংহত হয়েছে। যেন ফিনিক্স পাখির মতো ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের পরবর্তী বাংলাদেশকে পুনর্জাগরণে দীক্ষিত করেছেন তিনি। বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বলতর হওয়ায় আমরা গর্বিত। তিনি আমাদের অহঙ্কার।

ড. মিল্টন বিশ্বাস : অধ্যাপক, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ও কলাম লেখক

advertisement
Evaly
advertisement