advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ইতালিতে পুলিশ কর্মকর্তার সঙ্গে বাংলাদেশি তরুণীর বিয়ে

ইসমাইল হোসেন স্বপন,ইতালি
১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১৩:২৮ | আপডেট: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১৮:২৬
advertisement

বৈশ্বিক মহামারিতে শুরুর দিকে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত দেশটির নাম ইতালি। আক্রান্ত, মৃত্যুর হারে বিশ্বের এক নম্বর অবস্থানে থাকা দেশটিতে করোনার প্রভাব কমেছে, কিন্তু শেষ হয়ে যায়নি। তবুও স্বাভাবিক জীবনে ফেরার চেষ্টায় আছে মানুষ। এর মধ্যে বিভিন্ন অনুষ্ঠান আয়োজন, দিবস পালন ও বিয়ের ঘটনাও ঘটছে। যে বিষয়টি নিয়ে এ প্রতিবেদন, সেটিও বিয়ে নিয়ে। তবে এটি কোনো সাধারণ বিয়ে নয়।

করোনার মধ্যেও ধর্ম-বর্ণকে তোয়াক্কা না করে দুটি ভিন্ন দেশের ভিন্ন ভাষার মানুষ এক হয়েছেন গত সোমবার। সামাজিক যোগযোগমাধ্যম ফেসবুকে এ খবর চাউর হতেই বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত তরুণী সুমাইয়ারা ও ইতালির পুলিশ কর্মকর্তা দোমেনিকো তামবুররিনোকে সাধুবাদ জানাচ্ছেন নেটিজেনরা। আত্মীয়-স্বজনের পাশাপাশি সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষ তাদের দুজনকে শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন।

তুরিন সিটির পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে অধ্যয়নরত অবস্থায় বছরখানেক আগে পুলিশ কর্মকর্তা দোমেনিকো তামবুররিনোর সঙ্গে পরিচয় হয় সুমাইয়ারার। ইতালির প্রাচীনতম রাজধানী তোরিনোতে তাদের মধ্যে ভালোলাগা ও ভালোবাসার শুরু হয়। সেই নগরীতেই বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ হন দুজন।

সোমবার দক্ষিণ ইতালির কাম্পানিয়া বিভাগের সালের্নো প্রভিন্সের মাইওরি পৌর এলাকায় তাদের বিয়ের অনুষ্ঠান হয়। করোনার মধ্যে কিছুটা ভয় কাজ করলেও সুমাইয়ারা-দোমেনিকোর বিয়ের অনুষ্ঠানে কোনো আয়োজনের কমতি ছিল না। অনুষ্ঠানে লাল রঙের শাড়ি পরেন সুমাইয়ারা, নিজের ইউনিফর্ম পরে আসেন দোমেনিকো। অনুষ্ঠানে দোমেনিকোর পরিবারের সবাই উপস্থিত ছিলেন। তবে করোনার কারণে বাংলাদেশ-ইতালির ফ্লাইট বন্ধ থাকায় সুমাইয়ারার পরিবারের কেউ বিয়েতে অংশগ্রহণ করতে পারেনি।

দীর্ঘদিন প্রেমের পর করোনার মধ্যে বিয়ের এ বিষয়টি ইতালির গণমাধ্যমেও উঠে এসেছে। 'প্রাচ্যের সুন্দরী রাজকুমারী' শিরোনামে ইতালির গণমাধ্যমে বাংলাদেশি তরুণীর প্রশংসা করা হয়েছে।

সুমাইয়ারার স্বামী দোমেনিকো তামবুররিনো ইতালীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ প্যারামিলিটারি পুলিশ ফোর্স 'ক্যারাবিনিয়ারি'র মার্শাল হিসেবে কর্মরত আছেন উত্তর-পশ্চিম ইতালির পিয়েমন্তে বিভাগের তুরিন (তোরিনো) প্রভিন্সে। বাংলাদেশি বংশদ্ভূতকে ইতালির কোনো পুলিশ সদস্যের বিয়ের ঘটনা এটিই প্রথম।

advertisement
Evaly
advertisement