advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

রুয়েট ছাত্রকে কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে জখম করলেন সৎ ভাই

নিজস্ব প্রতিবেদক,বগুড়া
১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১৭:২৭ | আপডেট: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১৭:৫১
সৎ ভাইয়ের হামলায় আহত রুয়েট শিক্ষার্থী হাফিজুর রহমান
advertisement

বগুড়ার ধুনট উপজেলায় রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (রুয়েট) ছাত্র হাফিজুর রহমানকে (১৯) কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে জখম করেছেন তার সৎ ভাই। আজ বুধবার সকাল ৭টার দিকে উপজেলার চৌকিবাড়ি ইউনিয়নের বিশ্বহরিগাছা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, হাফিজুর রহমান উপজেলার বিশ্বহরিগাছা গ্রামের মৃত আজাহার আলীর ছেলে। করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকায় কয়েক মাস ধরে তিনি নিজ বাড়িতে মা ও ভাইয়ের সঙ্গে অবস্থান করছেন। পারিবারিক বিভিন্ন বিষয় নিয়ে তার সৎ ভাই ফজর আলী (৫০) দীর্ঘদিন ধরে হাফিজুর রহমান ও তার মা-ভাইকে অত্যাচার করে আসছিলেন।

একই আঙিনায় বসবাসের সুবাদে আজ বুধবার সকালের দিকে ফজর আলী ও তার স্ত্রী মেরিনা খাতুন চুলা জ্বালিয়ে ধোঁয়ার কুণ্ডলী হাফিজুরের ঘরের ভেতর দিতে থাকে। ধোঁয়ার কারণে তাদের শ্বাসকষ্ট হতে থাকলে এ ঘটনার প্রতিবাদ করেন হাফিজুর রহমান ও তার বড় ভাই ঢাকা মেডিকেল কলেজের শেষ বর্ষের ছাত্র ফজলুল হক অর্ক।

এতে ক্ষুব্ধ হয়ে ফজর আলী ও তার লোকজন হাফিজুরের একটি কাঁঠাল গাছ কেটে ক্ষতি করেন। এ ঘটনা নিয়ে বাকবিতণ্ডার একপর্যায়ে ফজর আলী ও তার লোকজন কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে হাফিজুর রহমানকে আহত করে। এ সময় ভাইকে রক্ষা করতে গেলে ফজলুল হক অর্ককে পেটায় তারা।

আহত হাফিজুর রহমান ধুনট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিয়ে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। ওই অভিযোগে ফজর আলী, তার স্ত্রী মেরিনা খাতুন ও মেয়ে সনিয়া খাতুনকে আসামি করা হয়েছে। ঘটনার পর থেকে ফজর আলী ও তার পরিবারের লোকজন পলাতক রয়েছে।

ধুনট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কৃপা সিন্ধু বালা বলেন, ‘অভিযোগটি তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য একজন পুলিশ কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।’

advertisement
Evaly
advertisement