advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

শিক্ষককে কান ধরে উঠবস : বরিশালে শিক্ষার্থী দম্পতিসহ ৮ জনের বিরুদ্ধে মামলা

বরিশাল প্রতিনিধি
১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১৮:৪২ | আপডেট: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১৮:৪২
শিক্ষার্থীর পা ধরে মাফ চাইছেন শিক্ষক। পুরোনো ছবি
advertisement

বরিশাল নগরীর বেসরকারি জমজম নার্সিং ইনস্টিটিউটের সাবেক শিক্ষক মিজানুর রহমান সজলকে কান ধরে উঠবস করানো এবং ছাত্রীর পা ধরে মাফ চাওয়ার ভিডিও ভাইরালের ঘটনায় মামলা দায়ের হয়েছে। ঘটনার শিকার ওই শিক্ষক বাদী হয়ে মঙ্গলবার রাতে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে কোতোয়ালী মডেল থানায় মামলাটি দায়ের করেন।

মামলায় ইনস্টিটিউটের সাবেক শিক্ষার্থী ইমতিয়াজ ইমন ও তার স্ত্রী একই ইনস্টিটিউটের বর্তমান ছাত্রী মনিরা আক্তারসহ অজ্ঞাতনামা ৭/৮ জনকে আসামি করা হয়েছে। এদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিডিওটি ভাইরাল হওয়ায় এবং দৈনিক আমাদের সময়সহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পর অভিযুক্ত দম্পতি আত্মগোপন করেছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

কোতয়ালী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নুরুল ইসলাম জানান, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে শিক্ষক মিজানুর রহমান সজলকে গত ২৫ আগস্ট নগরীর চৌমাথা থেকে ধরে গোরস্থান রোড এলাকায় নিয়ে যায় তারই সাবেক ছাত্র ইমতিয়াজ ইমন ও তার সহযোগীরা। সেখানে তারা ওই শিক্ষককে শারীরিক নির্যাতন করে কান ধরিয়ে উঠবস করায় এবং ইমনের স্ত্রী মনিরার পায়ে ধরে মাফ চাইতে বাধ্য করে।

ওই নির্যাতনের দৃশ্যের ধারনকৃত ভিডিও চিত্র সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। এই ঘটনার পর শিক্ষক মিজানুর রহমান লজ্জায় বরিশাল থেকে পটুয়াখালীর বাউফলে নিজ বাড়িতে চলে যান। গতকাল মঙ্গলবার তাকে কোতয়ালী থানা পুলিশ ডেকে মামলা নেন।

মামলার বাদী ভুক্তভোগী শিক্ষক মিজানুর রহমান সজল দৈনিক আমাদের সময়কে জানান, জমজম নাসিং ইনস্টিটিউটে শিক্ষকতা করার সময় কয়েকজন শিক্ষার্থীর সঙ্গে তার বিরোধ দেখা দেয়। এর মধ্যে মো. ইমন ও তার স্ত্রী মনিরা অন্যতম। তারা ক্লাস ফাঁকি ও লেখাপড়ায় অমনোযোগী ছিল। তাদের লেখাপড়ায় মনোযোগ দিতে বলা হয়। কিন্তু তারা কর্নপাত না করে উল্টো পরীক্ষায় ভালো নম্বর পাইয়ে দিতে নানা সময় তাদের (ইমন-মনিরা) বহিরাগত বন্ধুদের দিয়ে চাপ দিয়েছে। এছাড়া ইমন আমাকে কখনও সালাম দিত না। এ নিয়ে ইনস্টিটিউটের বেশ কয়েকজন ছাত্র ইমনকে ভৎসনা করেছিল। এসব কারণে গত ২৬ আগস্ট ইমন ও তার ৬-৭ জন বন্ধু আমার এক প্রকার তুলে নিয়ে নগরীর গোরস্তান রোড এলাকায় নিয়ে মারধর করে এবং মুনিরার পা ধরে মাফ চাওয়ানো হয়। এ সময় তারা এই নির্যাতনের চিত্র মোবাইল ফোনে ভিডিও ধারণ করে।

advertisement
Evaly
advertisement