advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

রাজধানীতে বারে অভিযান, বিপুল পরিমাণ বিদেশি মদ জব্দ

নিজস্ব প্রতিবেদক
১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১৯:৪৮ | আপডেট: ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ ২০:৩৭
হোটেল এরাম ইন্টারন্যাশনালে ভ্যাট গোয়েন্দাদের অভিযান
advertisement

নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মদ ও বিয়ার বিক্রি করায় রাজধানীর শুক্রাবাদে অবস্থিত হোটেল এরাম ইন্টারন্যাশনালে অভিযান চালিয়েছে ভ্যাট গোয়েন্দারা। এ সময় বারটি থেকে বিপুল পরিমাণ অবৈধ মদ ও বিয়ার জব্দ করা হয়েছে।

গত ১৯ মার্চ থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বার বন্ধ রাখার নির্দেশনা দিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। অভিযানকালে ভ্যাট গোয়েন্দারা দেখেন, হোটেল এরাম ইন্টারন্যাশনাল সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মদ ও বিয়ার বিক্রি অব্যাহত রেখেছে। ভ্যাট গোয়েন্দারা এ সময় দেখতে পান, বারটি গত কয়েক মাসে শূন্য বিক্রয় দেখিয়ে মোহাম্মদপুর সার্কেলে ভ্যাট রিটার্ন জমা দিয়েছে। কিন্তু হোটেল এরাম প্রাঙ্গন থেকে জব্দকৃত বাণিজ্যিক কাগজ থেকে জানা যায়, তারা ওই সব মাসে মদ বিক্রয় করেছেন। এ সংক্রান্ত বিক্রি চালানের কপি পাওয়া গেছে। এতে সরকারের ভ্যাট ফাঁকির অপরাধ সংঘটিত হয়েছে।

এ ছাড়া বার প্রাঙ্গনের বিভিন্ন স্থান থেকে উদ্ধার করা মদ ও বিয়ারের স্বপক্ষে কোনো বৈধ কাগজ দেখাতে পারেননি প্রতিষ্ঠানটির কর্তৃপক্ষ। এসব মদ ও বিয়ার বারটির ছাদ, মেঝে ও গ্যারেজের বিভিন্ন স্থানে লুকায়িত ছিল। উদ্ধার করা এসব মদের মধ্যে রয়েছে-৩৭৪ বোতল বিদেশি হুইস্কি ও ৩ হাজার ৬৭২ ক্যান বিদেশি বিয়ার। জব্দকৃত হুইস্কি বিদেশি বিভিন্ন নামী ব্রান্ডের। এদের মধ্যে আছে ভ্যাট ৬৯, হোয়াইট হর্স, ব্লাক অ্যান্ড হোয়াইট, ব্লাক রাম, স্মিরনফ, চেরি ব্রান্ডি, পাসপোর্ট, ভ্যালেন্টাইন, জিন হুইস্কি, আটাস্কা, স্যার পিল্টার সন। অন্যদিকে বিয়ারের মধ্যে আছে হেনিকেন, ব্লাক ডেভিল, হলান্ডিয়া।

ভ্যাট আইন অনুসারে এসব পণ্য ক্রয় রেজিস্ট্রারে এন্ট্রি থাকার বাধ্যবাধকতা থাকলেও প্রতিষ্ঠানটিতে তা নেই। এসব মদ ও বিয়ার চোরাচালানির উৎস থেকে সংগ্রহ করে বারে বিক্রি করার উদ্দেশ্যে মজুদ করা হয়েছে বলে ভ্যাট গোয়েন্দারা প্রমাণ পেয়েছেন। এসব বিক্রি গোপন করে ভ্যাট ফাঁকি দিতো বলে তারা সন্দেহ প্রকাশ করেন। 

হোটেল এরাম ইন্টারন্যাশনাল থেকে জব্দ করা মদ ও বিয়ারের বাজা মূল্য প্রায় এক কোটি টাকা। জব্দকৃত মদ ও বিয়ার ঢাকা কাস্টম হাউজ গুদামে জমা দেওয়া হয়েছে। বারটি থেকে কম্পিউটারের বিক্রি তথ্য ও বাণিজ্যিক দলিলাদিও জব্দ করা হয়েছে। ভ্যাট আইন ও কাস্টমস আইন অনুসারে আরও তদন্ত করে পরবর্তীতে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে ভ্যাট গোয়েন্দারা।

advertisement
Evaly
advertisement