advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

কোভিড পজেটিভ-নেগেটিভ এক লাইনে দাঁড়িয়ে টেস্ট করা ভয়ানক : ডা. জিয়া

নিজস্ব প্রতিবেদক
১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১৫:৩৮ | আপডেট: ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১৫:৩৮
পুরোনো ছবি
advertisement

করোনাভাইরাসে মৃত্যু কমাতে এই মুহূর্তে মৃত্যুর কারণ নির্ধারণসহ স্বাস্থ্য তথ্য প্রবাহের গুণগত মান বৃদ্ধির কোনো বিকল্প নেই বলে মন্তব্য করেছেন বিশ্ব ব্যাংকের স্বাস্থ্য, পুষ্টি ও জনসংখ্যা বিষয়ক কর্মকর্তা ডা. জিয়াউদ্দিন হায়দার। তিনি বলেছেন, ‘এ জন্য প্রয়োজন রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ, পরিকল্পনা প্রণয়ন, আর্থিক বরাদ্দ এবং বিভিন্ন স্তরে স্বাস্থ্য কর্মীদের প্রশিক্ষণ। ’

আজ শুক্রবার কম্বোডিয়া থেকে এক লিখিত বক্তব্যে ডা. জিয়াউদ্দিন এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘প্রায় সব দেশেই কোনো ঘরে কোভিড-১৯ এর লক্ষণসহ কোনো ব্যক্তির সন্ধান পেলে সরকারি সংস্থার লোকজন এসে স্যাম্পল নিয়ে যায় এবং টেস্টের ফলাফল না পাওয়া পর্যন্ত বাড়িঘর লকডাউন করে দিয়ে যায়। কিন্তু বাংলাদেশের চেহারা ভিন্ন। এখানে আক্রান্ত মানুষকে টেস্ট করার জন্য ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়াতে হয়, টাকার বিনিময়ে স্যাম্পল দিতে হয়, আর রেজাল্টের জন্য তিন-চার দিন অপেক্ষা করতে হয়।’

ডা. জিয়াউদ্দিন বলেন, ‘সবচেয়ে ভয়ানক হলো কোভিড পজেটিভ-নেগেটিভ সবাইকে এক লাইনেই দাঁড়াতে হয়, যা কোভিড-১৯ এর দ্রুত সংক্রমণের জন্য খুবই সহায়ক।  আর এটা সম্ভব শুধু হীরক রাজার দেশেই। ’

তিনি আরও বলেন, ‘সুতরাং এটা স্পষ্ট যে সরকারিভাবে প্রাপ্ত মৃত্যুর  সংখ্যারটা ভুল এবং বিভ্রান্তিকর। কোভিড নিয়ন্ত্রণে বা মৃত্যুর তালিকা ছোট করতে এই সংখ্যাটা কোনো ভূমিকাই রাখতে পারছে না।  এই অচল অবস্থা  থেকে বেরিয়ে আসার জন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তরকে এখনই ব্যবস্থা নিতে দেশের প্রতিটা আনাচে-কানাচে প্রতিদিন যত মানুষ মারা যাচ্ছে ইউনিয়ন এবং মিউনিসিপালিটি পর্যায়ে স্বাস্থ্য কর্মীদের মাধ্যমে তাদের তথ্য জরুরি ভিত্তিতে সংগ্রহ করতে হবে।’

advertisement
Evaly
advertisement