advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

বাদল রায়কে ‘হয়রানি’, যা বললেন সালাহউদ্দিন

ক্রীড়া প্রতিবেদক
২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১৬:১৫ | আপডেট: ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১৮:৪০
কাজী সালাহউদ্দিন ও বাদল রায়। পুরোনো ছবি।
advertisement

বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) নির্বাচনের সভাপতি পদ থেকে বাদল রায় সরে দাঁড়ালেও এটা নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা এখনো চলছে। দুদিন আগে বাদল রায় জানিয়েছিলেন, তাকে হয়রানি করছেন বাফুফে সভাপতি কাজী সালাহউদ্দিন। তার এমন অভিযোগের জবাব দিতে গিয়ে সালাহউদ্দিন জানালেন, তিনি ক্ষমতার অপব্যবহার করেন না।

আজ রোববার রাজধানীর একটি পাঁচতারকা হোটেলে কাজী সালাহউদ্দিনের নেতৃত্বে সম্মিলিত পরিষদ আগামী নির্বাচনের জন্য তাদের ইশতেহার প্রকাশ করে। এই ইশতেহার প্রকাশের পর প্রশ্নোত্তর পর্বে বাদল রায়কে হয়রানির বিষয়ে প্রশ্নের মুখোমুখি হন বাফুফে সভাপতি।

বাদল রায় সরে দাঁড়ালেও বাফুফে নির্বাচন কমিশন কিন্তু সেটা মেনে নেয়নি। কারণ তিনি মনোনয়ন প্রত্যাহারের সময় পার হওয়ার পরে প্রত্যাহারপত্র জমা দিয়েছিলেন। তবে বাদল রায় মনে করেন সালাহউদ্দিন চাইলে এই সমস্যা হতো না। এখন নির্বাচনে তিনি না থাকলেও তার নাম ব্যালটে থাকবে।

সালাহউদ্দিন হয়রানির অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে সরাসরি বলে দিয়েছেন, তিনি ক্ষমতার অপব্যবহার করেন না। এর বাইরে কিছু বলতে চাননি।

আজ দুপুরে ইশতেহার ঘোষণার পর সালাহউদ্দিন বলেন, ‘আমি যদি নির্বাচন কমিশনকে চাপ দেই, তাহলে এটা আমার পক্ষে যাবে। তখন কী হবে আমি এটাকে ক্ষমতার অপব্যবহার করলাম। আমি কোনো ব্যাপারেই কারও হস্তক্ষেপ করি না। কখনো আমাকে ক্ষমতার হস্তক্ষেপ করতে দেখবেন না।‘  

আগামী ৩ অক্টোবর রাজধানীর একটি পাঁচ তারকা হোটেলে অনুষ্ঠিত হবে বাফুফে নির্বাচন। বহুল আলোচিত এবারের নির্বাচনে ২১ পদের জন্য লড়বেন ৪৭ প্রার্থী। এ নির্বাচনের জন্য ৪৯ প্রার্থী মনোনয়নপত্র ক্রয় করেন। সব মনোনয়নপত্রের বৈধতা দিলেও দুজন সদস্য প্রার্থী নিজেদের নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছেন।

সভাপতি প্রার্থী বাদল রায়ের পক্ষ থেকে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন নির্ধারিত সময়ের এক ঘণ্টা পর তার স্ত্রী মাধুরী রায় মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের আবেদন নিয়ে বাফুফে ভবনে আসেন। তিনি জানান, অসুস্থতার কারণে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বাদল রায়। নির্বাচন না করলেও সভাপতি পদের ব্যালটে তার নাম থাকছে।

advertisement
Evaly
advertisement