advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

‘এমনো সফর গেছে এক জোড়া জুতা পাইনি, একটা জার্সি দিয়ে খেলেছি’

ক্রীড়া প্রতিবেদক
২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১৮:১২ | আপডেট: ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ ২০:১৩
ইশতেহার ঘোষণা অনুষ্ঠানে কাজী সালাহউদ্দিন। ছবি : বাফুফে।
advertisement

বাংলাদেশ ফুটবলের স্বর্ণযুগের অন্যতম ফুটবলার কাজী সালাহউদ্দিন। স্বাধীন বাংলা ফুটবল দল থেকে শুরু করে বিদেশের পেশাদার লিগে দাপিয়ে বেড়ানো সালাহউদ্দিন   এখন দেশের ফুটবলের সবচেয়ে বড় কর্তা। টানা তিনবার নির্বাচিত হওয়ার পর এবার প্রেসিডেন্ট পদের জন্য লড়বেন চতুর্থবারের মতো। নির্বাচনের ইশতেহার প্রকাশ করতে গিয়ে তিনি জানালেন, এমনো সময় গেছে ফুটবল দলের, যখন তিনি এক জোড়া জুতা পাননি। আর এখন সবাই বেশিই পাচ্ছে।

আগামী ৩ অক্টোবর রাজধানীর একটি পাঁচ তারকা হোটেলে অনুষ্ঠিত হবে বাফুফে নির্বাচন। বহুল আলোচিত এবারের নির্বাচনে ২১ পদের জন্য লড়বেন ৪৭ প্রার্থী। এ নির্বাচনের জন্য ৪৯ প্রার্থী মনোনয়নপত্র ক্রয় করেন। আজ রোববার এই নির্বাচনের ইশতেহার প্রকাশ করেন কাজী সালাহউদ্দিনের নেতৃত্বে সম্মিলিত পরিষদ। ইশতেহারে তিনি জাতীয় দল, মহিলা দল ও ঘরোয়া ফুটবলসহ আনুসাঙ্গিক উন্নয়ণের জন্য ৩৬টি ধাপ উল্লেখ করেন।

ইশতেহার প্রকাশ শেষে প্রশ্নোত্তর পর্বে অংশগ্রহণ করে সম্মিলিত পরিষদ। সাংবাদিকদের করা সব প্রশ্নের উত্তর দেন সভাপতি পদপ্রার্থী কাজী সালাহউদ্দিন। জাতীয় দলের সুযোগ সুবিধা ও বেতন ভাতা নিয়ে এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি জানালেন, এখন সবাই বেশ-বেশি পাচ্ছে।

জাতীয় দলে নিজের সময়ের কথা উল্লেখ করে সালাহউদ্দিন বলেন, ‘এমনো সফর গেছে আমি এক জোড়া জুতা পাইনি, বুট পাইনি, একটা জার্সি দিয়ে খেলেছি। এখন সবাই বেশিই পায়। আমাদের খেলোয়াড়রা দুই থেকে তিন সেট জার্সি পায়, বুট পায়, ভাতা পায়। খেলতে যাওয়ার সাত-আট দিন আগে বিদেশে যায়, অনুশীলন করে। পাঁচদিন ছয়দিন আগে বিদেশে পাঠাই, স্থানীয় পরিবেশের সাথে খাপ খাইয়ে নেয়। পাঁচতারকা হোটেলে রেখে তাদের ট্রেনিং করাই।’

গণমাধ্যমসহ সবাইকে একসঙ্গে কাজের আহ্বান জানিয়ে সালাহউদ্দিন বলেন, ‘আমরা সবাই একসাথে কাজ করি, আমার ভুল হলে ধরিয়ে দেবেন, আমি শুধরে নিব। বাফুফে একলা পারবে না, সরকার একলা পারবে না। সবাই একসঙ্গে কাজ করলেই একটা প্ল্যাটফর্মে দাঁড়ানো সম্ভব।’

জাতীয় দল নিয়ে সালাহউদ্দিনের ইশতেহারে উল্লেখযোগ্য বিষয় হলো, ২০২৪ সালের মধ্যে বাংলাদেশ দলকে ১৫০ র‌্যাংকিংয়ের কাছাকাছি নিয়ে আসা। ‘সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ’ ও ‘এসএ গেমস’ এর শিরোপা পুনরুদ্ধারে প্রয়োজনীয় সকল উদ্যোগ গ্রহণ করা, ‘বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ আন্তর্জাতিক ফুটবল টুর্নামেন্ট’ প্রতি বছর আয়োজন করাসহ দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পন নেওয়া।

সফিফা র‌্যাংকিংয়ে বাংলাদশের বর্তমান অবস্থান ১৮৭। তার সময়েই এত পিছিয়ে থাকার কারণ বর্ণনা করতে গিয়ে কাজী সালাহউদ্দিন জানালেন, ফিফা প্রীতি ম্যাচ না খেলার কারণেই এই অবস্থা। তিনি জানান গত তিন বছরে বাংলাদেশ একটা প্রীতি ম্যাচও খেলেনি।

নির্বাচিত হলে আগামী চার বছরে কী ইশতেহার বাস্তাবায়ন সম্ভব-এমন প্রশ্নে সালাহউদ্দিন কোনো রাখ-ঢাক না রেখেই স্পষ্ট করে বলে দিয়েছেন, ‘অবশ্যই সম্ভব।’ ১২ বছরে পদে থেকে যেসব করতে পারেননি, নির্বাচিত হলে সেটিকে পারবেন চার বছরে? তা বলে দেবে সময়।

advertisement
Evaly
advertisement