advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

মেরি স্টোপস ক্লিনিকে ভুল চিকিৎসায় নারীর মৃত্যু

কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি
২১ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১৪:০৫ | আপডেট: ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১৪:১০
ছবি : আমাদের সময়
advertisement

কেরানীগঞ্জে মেরি স্টোপস ক্লিনিকে ভুল চিকিৎসায় সুমি আক্তার (২৪) নামে এক গৃহবধূর মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। গতকাল রোববার সন্ধ্যায় সিজারের সময় তার মৃত্যু হয় বলে অভিযোগ করেন সুমির স্বামী জান শরীফ।

নিহতের স্বামীর অভিযোগ, রোববার সকাল ১১টার দিকে সুমিকে মেরি স্টোপস ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালে ভর্তির পর জরুরিভাবে তার সিজার করতে হবে বলে জানান কর্তৃপক্ষ। পরে বিকেল ৪টার দিকে তাদেরকে না জানিয়ে সিজার করে মেরি স্টোপস হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এ সময় অপারেশন থিয়েটারে ছিলেন- হাসপাতালের ডা. সাজেদা খাতুন ও এনেথেসিয়া ডা. মনির হোসেন। কোনো ধরনের পরীক্ষা না করেই তারা রোগীর শরীরে এনেসথেসিয়া ইনজেকশন দেন ও সিজার করেন। এতে জমজ বাচ্চা (একটি ছেলে ও মেয়ে) জন্ম হয়।

যদিও আরও চারদিন পরে সিজার করার কথা ছিল। সিজার করার পর প্রচণ্ড রক্তক্ষরণে সুমির শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে গেলে মেরি স্টোপস্ হাসপাতাল থেকে মিডফোর্ট হাসপাতালে রোগীকে প্রেরণ করা হয়। পরে মিডফোর্ট হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক সুমিকে মৃত্যু ঘোষণা করেন।

এদিকে, মেরি স্টোপস্ হাসপাতালে গিয়ে নানা রকমের অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সেখানে দেখা গেছে, অপারেশন হওয়া রোগীদের ভর্তি ফরমে নাম-ঠিকানা কিছুই নেই। আবার অস্ত্রোপচারের সম্মতিপত্রেও নাম-ঠিকানা ও স্বাক্ষর নেই। এ সময় হাসপাতালের অন্য রোগীর অভিভাবকরাও অভিযোগ করে বলেন, গতকাল সিজার হয়েছে, সিজার হওয়ার পর থেকে আজ এখন পর্যন্ত কোন ডাক্তার আসেনি।

এসব বিষয় জানতে চাইলে কর্তব্যরত ডাক্তার ফাতেমাতুজ জোহরা মুক্তা জানান, এই হাসপাতালে সব ধরনের চিকিৎসা ব্যবস্থা নাই। তাই উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে মিডফোর্ড হাসপাতালে পাঠানো হয়। রোগী সেখানেই মারা যায়। তবে মিডফোর্ড হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক বলেছেন, রোগী আগেই মারা গেছে।

এ ঘটনায় নিহত সুমির পরিবার মেরি স্টোপস ক্লিনিকের বিরুদ্ধে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছে।

advertisement
Evaly
advertisement