advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

জলবায়ু পরিবর্তন
অভিযোজন তহবিল চায় টিআইবি

নিজস্ব প্রতিবেদক
২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ ২৩:১৭
advertisement

জলবায়ু পরিবর্তন প্রশমন ও জীবাশ্ম জ্বালানির পরিবর্তে নবায়নযোগ্য জ্বালানির ব্যবহার বাড়াতে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দকে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। গতকাল বৃহস্পতিবার সংবাদ মাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ দাবি জানায় তারা। একই সঙ্গে বৈশ্বিক পর্যায়ে স্কুল শিক্ষার্থীদের পরিচালিত আন্দোলন ‘ফ্রাইডেস ফর ফিউচার’-এর উদ্যোগে প্রথমবারের মতো ২৫ সেপ্টেম্বরে ‘বৈশ্বিক ক্লাইমেট অ্যাকশন দিবস’ পালনেরও আহ্বান জানিয়েছে সংস্থাটি। বিবৃতিতে টিআইবি

জলবায়ু পরিবর্তনে ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোকে এ সংকট মোকাবিলায় প্রয়োজনীয় অভিযোজন এবং প্রশমনের জন্য শিল্পোন্নত দেশগুলোর প্রতিশ্রুত অনুদানভিত্তিক তহবিলের দাবি জানিয়েছে। সংস্থাটি মনে করছে, চলমান মহামারীর সুযোগ নিয়ে শিল্পোন্নত দেশগুলোর গ্রিনহাউস গ্যাস নিঃসরণ বৃদ্ধি এবং ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর প্রতিশ্রুত ক্ষতিপূরণ নিশ্চিত করা না হলে ভবিষ্যতে বৈশ্বিক জলবায়ু সংকট চরম আকার ধারণ করবে। তাই শিল্পোন্নত দেশগুলোর প্রতিশ্রুত তহবিল নিশ্চিতে ‘ফ্রাইডেস ফর ফিউচার’ আন্দোলনকে ঐক্যবদ্ধভাবে এগিয়ে নিতে হবে।

টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের ক্রমবর্ধমান বৈশ্বিক ঝুঁকি বাড়ার প্রেক্ষিতে বৈশ্বিক উষ্ণতা প্রশমনে প্রাক-শিল্পায়ন যুগের তুলনায় তাপমাত্রা কমপক্ষে ২ ডিগ্রি ও ক্রমান্বয়ে তা ১.৫ ডিগ্রিতে সীমিত রাখার যে লক্ষ্যমাত্রা প্যারিস চুক্তিতে নির্ধারিত হয়েছিল, তা উপেক্ষার কোনো সুযোগ নেই। বর্তমানে কোভিড-১৯ সংকটের কারণে বৈশ্বিক অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের নামে শিল্পোন্নত দেশগুলোর উদ্যোগে গ্রিন রিকভারির প্রস্তাব করা হলেও প্রধান কার্বন নিঃসরণকারী যুক্তরাষ্ট্রসহ অন্যান্য দেশ এ ব্যাপারে উল্টো অবস্থান নিয়েছে। ফলে বৈশ্বিক গ্রিনহাউস গ্যাস নিঃসরণের ঝুঁকি উদ্বেগজনকভাবে বাড়ছে।

জলবায়ু পরিবর্তনজনিত কারণে ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর জন্য প্যারিস চুক্তিতে ২০২০ সাল থেকে প্রতিবছর ১০০ বিলিয়ন ডলারের প্রতিশ্রুতি থাকলেও বাস্তবে সামান্য আর্থিক সহায়তা দেওয়া হয়েছে বলে জানান ড. ইফতেখারুজ্জামান। তিনি বলেন, কোভিড-১৯ সংকটের পাশাপাশি উপর্যুপরি বিভিন্ন দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোকে অগ্রাধিকারভিত্তিতে সবুজ জলবায়ু তহবিল থেকে অভিযোজন এবং প্রশমন বাবদ প্রাপ্য অনুদান প্রদানে শিল্পোন্নত দেশগুলোকে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে। একই সঙ্গে বাংলাদেশকে জীবাশ্ম জ্বালানি ব্যবহারে অগ্রাধিকার দেওয়ার মতো প্রকৃতি ও পরিবেশ বিধ্বংসী কার্যক্রম থেকে সরে আসার আহ্বান জানান তিনি।

advertisement
Evaly
advertisement