advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

জাল স্বাক্ষর দিয়ে ঋণের টাকা আত্মসাৎ বিআরডিবি কর্মকর্তার

ফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি
২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১৬:৪৯ | আপডেট: ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১৯:৫৮
প্রতীকী ছবি
advertisement

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে গুচ্ছ গ্রাম সমিতির গরু মোটাতাজাকরণ প্রকল্পের ঋণের টাকা বিতরণের নামে স্ট্যাম্পে জাল স্বাক্ষর করে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে পল্লী উন্নয়ন বোর্ডের (বিআরডিবি) কর্মকর্তা-কর্মচারীর বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় উপজেলার বিআরডিবির সভাপতি, সহ-সভাপতিসহ উপকারভোগীরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন। অভিযোগে বিআরডিবির পল্লী প্রগতির গ্রাম সংগঠক সাইফুর রহমান এবং সহকারী পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা ও সাবেক উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা বাবু বিজয় কুমার রায়ের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করেছে। 

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার শিমুলবাড়ী ইউনিয়নের যোতিন্দ্র নারায়ণ গুচ্ছ গ্রাম পুরুষ ও মহিলা দলের ঋণ প্রদানের নাম করে সুবিধাভোগীদের মাঝে পুরুষ দল ১৬ জন ও মহিলা দল ১৮ জন গ্রুপ করেন। প্রত্যেকে ১৬ হাজার টাকা করে ৫০ টাকার স্ট্যাম্পে মাস্টার রোল তৈরি করে দুই গ্রুপে ৫ লাখ ৪৪ হাজার টাকা বিতরণ দেখানো হয়। কিন্তু দুই গ্রুপের মহিলা ও পুরুষ মিলে সাতজনের নামে ভুয়া মাস্টার রোল ও জাল স্বাক্ষর করে সাবেক উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তার যোগসাজসে মোট ১ লাখ ১২ হাজার টাকা আত্মসাৎ করেছেন বলে ভুক্তভোগীরা অভিযোগ করেছেন।

ভুক্তভোগী মোশারফ হোসেন, নুর ইসলাম, শফিকুল, নাছিমা ও আর্জিনা বেগম বলেন, স্ট্যাম্পে ও মাস্টার রোলে আমাদের স্বাক্ষর জাল করে আমাদের টাকা না দিয়ে অফিসাররা তুলে নিয়েছে। এমনকি আমাদের কোনো প্রকার পাস বইও দেয়নি।

বিআরডিবি’র পল্লী উন্নয়নের সভাপতি মজিবর রহমান বলেন, ‘সুবিধাভোগীদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে সরেজমিনে গিয়ে তদন্ত করে সত্যতা পাওয়া গেছে। সাতজনের নামে নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে জাল স্বাক্ষর ও ভুয়া মাস্টাররোল বানিয়ে তাদের নামে ঋণ বিতরণ দেখালেও বাস্তবে তারা কোনো ঋণের টাকা পায়নি। তবে তদন্ত প্রতিবেদন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে জমা দেওয়া হয়েছে।’

প্রকল্পের দায়িত্বে থাকা সাবেক উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা বাবু বিজয় কুমার রায় ও বিআরডিবি’র পল্লী প্রগতির গ্রাম সংগঠক সাইফুর রহমান জানান, বিভাগীয় ব্যবস্থা যা হবে তাই মেনে নেবেন তারা। 

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তৌহিদুর রহমান বলেন, ‘একটি লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে এবং ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য অভিযোগটি জেলায় পাঠানো হয়েছে।’

advertisement
Evaly
advertisement