advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ষড়যন্ত্রে লিপ্ত বিএনপি-জামায়াত

চট্টগ্রাম ব্যুরো
২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ ০৯:৫০
advertisement

পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থার সঙ্গে মিলে বিএনপি-জামায়াত দেশকে অস্থিতিশীল করার ষড়যন্ত্র করছে বলে অভিযোগ করেছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। গতকাল শুক্রবার সকালে চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে মোহাম্মদ আবদুল খালেক ইঞ্জিনিয়ার, দৈনিক আজাদী এবং গণতন্ত্র শীর্ষক সেমিনার শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ অভিযোগ করেন। সৌদি

আরবের জেদ্দায় বিএনপি ও জামায়াত নেতাদের সঙ্গে পাকিস্তানি গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের বৈঠকের বিষয়ে গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরের ব্যাপারে গণমাধ্যম কর্মীরা তথ্যমন্ত্রীকে প্রশ্ন করেছিলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগকে রাজনৈতিকভাবে মোকাবিলা করতে ব্যর্থ হয়ে ক্রমাগতভাবে ষড়যন্ত্রের পথ বেছে নিয়েছে বিএনপি। পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থার সঙ্গে তাদের দহরম-মহরম অনেক পুরনো। ১৯৯১ সালের নির্বাচনের আগে পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থার পক্ষ থেকে বিএনপিকে ৫ কোটি টাকা দেওয়া হয়েছিল। এটি পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থার সাবেক প্রধান আদালতে জবানবন্দিতে বলেছেন।

মন্ত্রী আরও বলেন, পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থার সঙ্গে বিএনপি-জামায়াতের সেই সম্পর্ক এখনো অব্যাহত আছে। এর প্রমাণ হচ্ছে, মধ্যপ্রাচ্যে পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তাদের সঙ্গে তাদের নেতাদের বৈঠক। পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থার সঙ্গে মিলে বিএনপি-জামায়াত দেশকে অস্থিতিশীল করতে নানা ষড়যন্ত্র করছে। কিন্তু ষড়যন্ত্র করে লাভ হবে না। নির্বাচনের বাকি আরও সাড়ে তিন বছর।

সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্যমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমালোচনাকে সমাদৃত করেন। আওয়ামী লীগ মনে করে সমালোচনা পথচলাকে আরও শাণিত করে। সে জন্য আওয়ামী লীগ সরকার সংবাদপত্রের স্বাধীনতা ও বিকাশের নীতি নিয়ে কাজ করছে। আমরা যখন ২০০৯ সালে সরকার গঠন করি, তখন বাংলাদেশে সংবাদপত্রের সংখ্যা ছিল সাড়ে চারশ। এখন বাংলাদেশের দৈনিক সংবাদপত্র সাড়ে ১২শ। তখন অনলাইন পত্রিকা ছিল হাতেগোনা কয়েকটি। এখন কয়েক হাজার অনলাইন পত্রিকা নিবন্ধনের জন্য আবেদন করেছে।

স্বাধীন সংবাদপত্র পাঠক সমিতির সভাপতি এসএম জামাল উদ্দিনের সভাপতিত্বে সেমিনারে আরও বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী, চসিকের প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য আনোয়ারুল আজিম আরিফ, দৈনিক আজাদীর সম্পাদক এমএ মালেক, রাউজান উপজেলা চেয়ারম্যান এহসানুল হায়দার চৌধুরী বাবুল প্রমুখ।

 

advertisement
Evaly
advertisement