advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

যেকোনো সময় জনবিস্ফোরণ : গয়েশ্বর

নিজস্ব প্রতিবেদক
২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ ২০:৫৩ | আপডেট: ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ ২২:৩৪
গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। পুরোনো ছবি
advertisement

সরকারের অন্যায় অত্যাচারে দেশের জনগণ বিক্ষুব্ধ হয়ে আছে উল্লেখ করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, যেকোনো সময় জনবিস্ফোরণ ঘটতে পারে। আজ রোববার বিকেলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আসম হান্নানশাহ’র মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ভার্চ্যুয়াল স্মরণসভায় তিনি এ কথা বলেন।

গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ‘অ্যাকশন অ্যাকশন, ডিরেক্ট অ্যাকশন বলার সময় চলে এসেছে। জনগণের শক্তির কাছে কোনো শক্তি টিকে থাকে না। সব সময়ই সশ্রস্ত্র মানুষ নিরস্ত্র মানুষের কাছে পরাজিত হয়েছে। দেশের মানুষ সরকারের অন্যায় অত্যাচারে ক্ষুব্ধ হয়ে আছে। যেকোনো সময় বিস্ফোরণ ঘটতে পারে। খালেদা জিয়ার আপোষহীনতার কারণে বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামে দেশের মানুষ তার ডাকে সারা দিয়েছে, এখানো তার সাথেই আছে। তার মতো আপোষহীন থেকে রাজপথে আন্দোলন সংগ্রাম করে যদি গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা করতে পারি, তাহলে দেশের মানুষ আমাদের স্মরণ করবে।’

বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘আমরা অতীতে অনেক কিছু করেছি, এসব এখন ইতিহাস। আমরা যদি নতুন কিছু করতে না পারি তাহলে ইতিহাস থেকে আমাদের সবার নাম মুছে যাবে। এখন আমরা যদি আন্দোলন সংগ্রামের ডাক দেই, আর জনগণ যদি মনে করে এটা আমাদের মনের কথা, তাহলে তারাও সাড়া দিবে।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, ‘ওয়ান ইলেভেনে আমাদের অনেক নেতা কারাগারে, কেউ বিদেশে চলে গেছেন, কেউ আত্মগোপনে চলে গেছেন। তখন দলের সংস্কারপন্থীরা একটা সুযোগ নেওয়ার ধান্দায় ছিল। প্রথমে আসম হান্নানশাহ, এরপর গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, খোন্দকার দেলোয়ার হোসেন  বেগম খালেদা জিয়ার পাশে দাঁড়ান। আমরা কারাগারে থেকে এসব সংবাদ পেয়েছি।তখন আমরা বলেছি-আমরা লোক পেয়ে গেছি, যার কারণে ষড়যন্ত্রকারীরা সফল হয়নি।‘

আসম হান্নানশাহ স্মৃতি পরিষদের উদ্যোগে এই ভার্চ্যুয়াল আলোচনা সভায় সাংবাদিক রাশেদুল হকের পরিচালনায় আরও বক্তব্য দেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান, বিএনপি নেতা আমানউল্লাহ আমান, ফজলুল হক মিলন, প্রয়াত নেতার ছেলে রিয়াজুল হান্নান।

advertisement
Evaly
advertisement