advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুট
দুদিন বন্ধ থাকার পর সীমিত আকারে চলছে ফেরি

লৌহজং (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি
৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ ০০:৪২
advertisement

শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুটে নাব্যতা সংকটে গত এক মাস ধরেই অনিয়মিত হয়ে পড়েছে ফেরি চলাচল। বেশিরভাগ সময় দিনে বন্ধ থাকার পর রাতে ছোট আকারের ফেরি চলাচল করেছে। গত দুই দিন ছিল সম্পূর্ণ বন্ধ। অবশেষে গতকাল মঙ্গলবার সকালে ফের সীমিত আকারে ফেরি চলাচল শুরু হয়। তবে এখনো গুরুত্বপূর্ণ এ রুটের ফেরি বহরে রো রো এবং ডাম্প ফেরি বন্ধ রাখা হয়েছে। তাই এ ঘাট ব্যবহারকারী দক্ষিণাঞ্চলের লাখো মানুষকে এখনো দুর্ভোগ পোহাতে হয়। ঘাটের দুপাড়ে পণ্যবাহী ট্রাকসহ

নানা ধরনের শতশত যান এখনো আটকা পড়ে আছে।

বিআইডব্লিউটিসির এজিএম মো. সফিকুল ইসলাম জানান, পদ্মা সেতুর চ্যানেলের মুখে নাব্যতা সংকট দেখা দেওয়ায় আবারও এ সমস্যার মুখে পড়েন ফেরি চালকরা। এখানে ড্রেজিং চলছে। অনেকটা ঝুঁকি নিয়ে ছোট আকারের ফেরিগুলো চলছে। বড় ফেরি চলাচলের অবস্থা নেই।

জানা গেছে, এ রুটে বিআইডব্লিউটিএর নিজস্ব সব চ্যানেলই এখন অচল। কোটি কোটি টাকার তেল পুড়িয়ে ড্রেজিং করার পরও লৌহজং টার্নিং চ্যানেল পরিত্যক্ত। পাশের হাজরা চ্যানেলের সঙ্গে ঘেঁষা নতুন চন্দ্রারচর চ্যানেল ঘোষণার পর এখনো চালু করা যায়নি। তবে বিআইডব্লিউটিএ চেয়ারম্যান কমডোর গোলাম সাদেক এ প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, মাসখানেকের মধ্যে নতুন বিকল্প চ্যানেল চালু হবে।

এদিকে রাতে নৌযান চলাচল নিষিদ্ধ রয়েছে। এর পরও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে গভীর রাতে পদ্মা পাড়ি দেওয়ার সময় তিনটি ট্রলার আটক করেছে নৌপুলশি।

মাওয়া নৌপুলিশ ফাঁড়ির ইনর্চাজ সিরাজুল কবির জানান, যাত্রীদের সতর্ক করে ছেড়ে দিলেও চালকদের হাজতে রাখা হয়েছে। উত্তাল পদ্মায় প্রবল স্রোতের মধ্যে রাতে যাত্রীবাহী ট্রলার চলাচল খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। তাই যাত্রীদের আরও সচেতন হতে হবে।

advertisement
Evaly
advertisement