advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

নারী ও শিশু ধর্ষণে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চায় কুয়েত প্রবাসীরা

কুয়েত প্রতিনিধি
৯ অক্টোবর ২০২০ ০৯:২৩ | আপডেট: ৯ অক্টোবর ২০২০ ০৯:২৩
advertisement

মা-মেয়ে, বোন ও স্ত্রীসহ প্রিয়জনের মুখে হাসি ফোঁটাতে হাজার হাজার মাইল দূরে সকাল সন্ধ্যা হাড়ভাঙা পরিশ্রম করে যাচ্ছেন প্রবাসী বাংলাদেশিরা। ক্লান্ত শরীরের বিশ্রামের ফাঁকে যখন টিভি, পত্রিকা ও সামাজিক মাধ্যমে নারী শিশু নির্যাতন, ধর্ষণ ও খুনের সংবাদ চোখে পড়ে তখনই বুকটা কেঁপে উঠে রেমিট্যান্সযোদ্ধাদের।

অনেক প্রবাসীর পরিবারে পুরুষরা দেশের বাইরে থাকে। মা-বোন, মেয়ে, স্ত্রী সন্তান থাকে দেশে। এমন পরিস্থিতিতে প্রবাসীরা তাদের পরিবার নিয়ে উদ্বিগ্ন ও উৎকণ্ঠার মধ্যে থাকে। দূর পরবাসে থাকা কুয়েত প্রবাসীরা সারাদেশ নারী, শিশু ধর্ষণ নির্যাতন ও নিপীড়নের সঙ্গে জড়িতদের ও ধর্ষকের দ্রুত বিচারের দাবি জানিয়েছেন।

হারুন মোল্লা নামে এক প্রবাসী বলেন, ‘আমি একজন কুয়েত প্রবাসী। আজ দেশে কী হচ্ছে? এসব বিষয় ভাবতে বড়ই কষ্ট লাগে। দেশে আজ কেউ নিরাপদ নয়। নারীর প্রতি সহিংসতামূলক আচরণ বেড়ে গেছে। এই ধরনের অপরাধের প্রশ্রয়দাতাদের বিচারের আওতায় আনা না হলে শিশু ধর্ষণ, নির্যাতন ও খুন কমবে না। এভাবে চলতে থাকলে অপরাধ বাড়তে বাড়তে যখন চূড়ান্ত পর্যায়ে চলে যাবে। তারা হায়েনার চেয়ে ভয়ংকর হয়ে উঠবে। তখন আর কিছুই করার থাকবে না। রাজনৈতিক পরিচয়ে নয় একজন ধর্ষক হিসেবে শাস্তি দিলে সমস্যার সমাধান হবে। পাশাপাশি ধর্মীয় শিক্ষার দিকেও দৃষ্টি দিতে হবে’।

আরেক প্রবাসী ফারুক মিয়া বলেন, ‘পৃথিবীজুড়ে প্রবাসী বাংলাদেশিরা যে যেখানেই থাকুক না কেন, প্রতিটা মুহূর্ত সকল প্রবাসীর অন্তরে বাংলাদেশ থাকে। দেশের সমৃদ্ধি, জানমালের নিরাপত্তা, স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলার স্বপ্ন দেখে। কিন্তু আফসোস! বাংলাদেশের বর্তমান প্রেক্ষাপটে নুনের চেয়ে খুন সস্তা হয়ে গেছে। আইনের শাষণ না থাকার ফলে একের পর এক ধর্ষণের মহা উৎসব চলছে। নারীদের ইজ্জত আজ ভুলণ্ঠিত হচ্ছে। বাঙালি জাতি হিসেবে নিজে খুব লজ্জিত মনে হচ্ছে’।

প্রবাসী মো. সুরুজ বলেন, সারাদেশে প্রতিটা দিন যেভাবে ধর্ষণের ঘটনা ঘটছে আমরা প্রবাসীরা আতংকিত। আমাদের ঘরে মা-বোন স্ত্রী সন্তানের নিরাপত্তা নিয়ে আমরা শঙ্কিত। তাই আমরা প্রতিটা ধর্ষণ এবং অপরাধের সুষ্ঠ বিচারের দাবি জানাচ্ছি’।

advertisement
Evaly
advertisement