advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

কাজী জাফরউল্লাহ ও নিক্সন গ্রুপ মুখোমুখি : সদরপুরে ১৪৪ ধারা জারি

ফরিদপুর ও সদরপুর প্রতিনিধি
১৮ অক্টোবর ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১৮ অক্টোবর ২০২০ ০০:০৫
advertisement

ফরিদপুর-৪ আসনের তিনটি উপজেলায় (ভাঙ্গা, সদরপুর ও চরভদ্রাসন) আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনাকর পরিস্থিতি বিরাজ করছে। একদিকে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফরউল্লাহ গ্রুপ ও অন্যদিকে স্বতন্ত্র এমপি মুজিবর রহমান চৌধুরী নিক্সন গ্রুপ একে অপরের বিরুদ্ধে মাঠে নেমেছে। এ অবস্থায় অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে সদরপুরে প্রশাসনের পক্ষ থেকে উপজেলা চত্বরের এক কিলোমিটার এলাকাজুড়ে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়।

জানা যায়, গত ১০ অক্টোবর চরভদ্রাসন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপনির্বাচন কেন্দ্র করে এমপি নিক্সন চৌধুরী প্রশাসনকে জড়িয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করায় আওয়ামী লীগে তোলপাড় শুরু হয়। এ ছাড়া নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গ করে মুজিবর রহমান নিক্সন সভা করায় বৃহস্পতিবার তার বিরুদ্ধে মামলা করে নির্বাচন কমিশন। তার বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের পর উত্তপ্ত হয়ে ওঠে ফরিদপুর-৪ আসনের গোটা এলাকা। নিক্সনের বিচার চেয়ে বিক্ষোভ-সমাবেশ অব্যাহত রেখেছে আওয়ামী লীগের একাংশ। কাজী জাফরউল্লাহ সমর্থিত গ্রুপটি এ সভা-সমাবেশ করছে।

অন্যদিকে নিক্সনের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে তার সমর্থকরাও সভা-সমাবেশ করছেন বিভিন্ন স্থানে। এরই ধারাবাহিকতায় সদরপুর উপজেলায় গতকাল শনিবার একই স্থানে পাল্টাপাল্টি সমাবেশের ডাক দেয় দুপক্ষ। স্থানীয়রা জানান, কাজী জাফরউল্লাহ ও নিক্সন চৌধুরী গ্রুপ শনিবার উপজেলা চত্বরে একই সময়ে একই স্থানে সমাবেশের ডাক দিয়ে প্রচার চালায়। এতে শুক্রবার রাত থেকেই উত্তেজনাকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়। ফলে সহিংসতা ঠেকাতে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে উপজেলা চত্বরের এক কিলোমিটার এলাকাজুড়ে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়। শনিবার সকাল ৯টা থেকে রবিবার সকাল ৯টা পর্যন্ত ১৪৪ ধারা জারির কথা জানান সদরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) পুরবী গোলদার। শনিবার সকাল থেকেই উপজেলা চত্বরে ব্যাপক সংখ্যক পুলিশ, র‌্যাব, ডিবি পুলিশ মোতায়েন রাখা হয়। সকাল ১০টার দিকে নিক্সন চৌধুরীর সমর্থকরা খ- খ- মিছিল নিয়ে উপজেলা চত্বরের দিকে এগিয়ে যেতে চাইলে পুলিশ তাদের বাধা দেয়। পরে তারা অন্য স্থানে গিয়ে বিক্ষোভ মিছিল করেন।

সদরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পুরবী গোলদার জানান, যে কোনো প্রকার অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়। তবে এখন পর্যন্ত পরিস্থিতি প্রশাসনের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এদিকে চরভদ্রাসন উপজেলা সদরে শনিবার দুপুরে নিক্সন চৌধুরীর সমর্থকরা বিক্ষোভ মিছিল করে মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান। একই সময় কাজী জাফরউল্লাহ গ্রুপটি মিছিল করতে চাইলে পুলিশ তাদের সরিয়ে দেয়। এ নিয়ে চরভদ্রাসন উপজেলা আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনাকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে।

advertisement
Evaly
advertisement