advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

এই টুর্নামেন্ট খেলোয়াড় দেখার মঞ্চ : নান্নু

সবাই ভালো করছে। এখানে নির্দিষ্ট করে তো একজনের নাম বলা যায় না। সবাই ভালো করছে, এটা আমাদের জন্য ইতিবাচক

ক্রীড়া প্রতিবেদক
১৮ অক্টোবর ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১৮ অক্টোবর ২০২০ ০০:০৬
advertisement

করোনাপরবর্তী বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপের মাধ্যমে প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেট খেলছে টাইগাররা। দীর্ঘ দিন খেলায় ছেদ পড়েছিল। লম্বা বিরতির পর এবার প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেটে ব্যাটিং, বোলিং ও ফিল্ডিংয়ে খেলোয়াড়রা নিজেদের স্বরূপে ফেরার চেষ্টা করছেন। এরই মধ্যে বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপের বেশ কটি ম্যাচ হয়ে গেছে। ওয়ানডে ফরম্যাটের এ টুর্নামেন্টে প্রত্যেক খেলোয়াড়ই নির্বাচকদের পর্যবেক্ষণে রয়েছে। বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু বলেন, ‘এ টুর্নামেন্টটা আমাদের জন্য খেলোয়াড়দের দেখার একটা মঞ্চÑ কে কেমন পারফর্ম করছে, কাকে কোন পজিশনে খেলাতে পারব দেখার জায়গা। সব খেলোয়াড়ের পারফরম্যান্সই দেখা হচ্ছে। টিম ম্যানেজমেন্ট বসে যাকে যেখানে দরকার সেখানের জন্য বিবেচনা করা হবে। যেভাবে টুর্নামেন্টটা চলছে তা আয়োজনই অনেক বড় বিষয়। এই মহামারীর মধ্যে কঠিন, এতদিন বায়ো বাবলের মধ্যে রেখে মাঠে এনে খেলানো। এটা একটা বিরাট ব্যাপার, সব মিলিয়ে আমি বলব বিসিবি দারুণ একটা উদ্যোগ নিয়েছে। কারণ এটা যদি ধাপে ধাপে সফল হয় তা হলে সেটি আন্তর্জাতিক ম্যাচ আয়োজনে বেশ সাহায্য করবে।’

বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপে পেসাররা আলো ছড়িয়েছেন। তাদের পারফরম্যান্সে খুশি নান্নুও। তিনি বলেন, ‘সবাই ভালো করছে। এখানে নির্দিষ্ট করে তো একজনের নাম বলা যায় না। সবাই ভালো করছে, এটা আমাদের জন্য ইতিবাচক। আমরা চাচ্ছি যে যে ফাস্ট বোলার আছে, আমরা আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে গেলে ইনজুরির পরিমাণ অনেক বেশি। তো লম্বা ব্যাক টু ব্যাক দুটো টেস্ট ম্যাচ খেলানোর জন্য পেসার পাওয়া যায় না। যেহেতু ফিটনেসের ভালো অবস্থা দেখছি তাদের, তাদের পারফরম্যান্সও ভালো এ জায়গায় এটা ধারাবাহিক থাকলে আমাদের ভবিষ্যতের জন্যই যথেষ্ট ভালো।’ টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতা বেশ পরিলক্ষিত হয়েছে। এ প্রসঙ্গে নান্নু বলেন, ‘কিছু কিছু জায়গা তো আপনাকে দেখতে হবে, বোলার যদি ভালো বল করে তা হলে টপ অর্ডার ব্যর্থ হবে আবার ব্যাটসম্যানরাও যদি ভালো করে তবে বোলাররাও ব্যর্থ হবে। সব মিলিয়ে এ কয়দিন যেটা দেখেছি আমাদের পেসাররা বেশ ভালো ফিটনেসের ছাপ রেখেছে। তাদের যে স্কিলেও উন্নতি হয়েছে সেটা বোঝা যাচ্ছে। এবং ধারাবাহিকভাবে যথেষ্ট ভালো লাইনে বল করছে। এটা হলো সবচেয়ে বড় পাওয়া। এ উন্নতিটা যদি ধারাবাহিকভাবে ধরে রাখা যায় ভবিষ্যতে আমাদের জন্য ভালো কাজে দেবে সব ফরম্যাটে ক্রিকেটার বাছাইয়ে।’ নান্নু আরও বলেন, ‘টপ অর্ডার যারা ব্যর্থ হচ্ছে, আগামীতে আরও কয়েকটা ম্যাচ আছে সেখানে সুযোগ আছে। কন্ডিশনও এখন ভালো। মাঝখানে বৃষ্টি ছিল, উইকেটে ময়েশ্চার ছিল, পেস বোলাররা বাড়তি সুবিধা পেয়েছে, টাইমিং করা একটু কঠিন ছিল ব্যাটসম্যানদের জন্য। এখন এটা কাটিয়ে উঠেছে, আজকেও দেখলাম ফ্ল্যাট উইকেট। আমার মনে হয় আগামী ম্যাচগুলোতে আরও ভালো করবে।’ প্রেসিডেন্টস কাপ শেষ হওয়ার পর খেলোয়াড়দের একটা বিরতি দেওয়ার দরকার বলে মনে করেন প্রধান নির্বাচক নান্নু। তিনি বলেন, ‘এ রকম একটা টুর্নামেন্ট শেষ হওয়ার পর কিন্তু একটা ব্রেক দরকার। কারণ আমাদের খেলোয়াড়রা দীর্ঘদিন ধরে অনুশীলন করছে। অনুশীলন থেকে এ টুর্নামেন্ট পর্যন্ত লম্বা একটা সময় বায়ো বাবলের মধ্যে ছিল। এটা কিন্তু অনেক কঠিন, এটা থেকে বের হওয়ারও দরকার আছে। এত দিন কিন্তু বন্দি করে রাখা যায় না। এখানে একটা ব্রেক দরকার আছে। করপোরেট টুর্নামেন্টের আগে ১৫-১৭ দিনের একটা ব্রেক পাবে। সব মিলিয়ে এখনো পর্যন্ত আমরা ক্রিকেটারদের কাছ থেকে যতটুকু পেয়েছি, সন্তুষ্ট। আগামী টুর্নামেন্টেও যদি এটা ধরে রাখা যায় তা হলে পরে আন্তর্জাতিক ম্যাচ আয়োজনের জন্য সহায়ক হবে।’ জাতীয় দলের খেলোয়াড়দের পাশাপাশি প্রথম শ্রেণির চুক্তিবদ্ধ ক্রিকেটাররাও ধারাবাহিকভাবে খেলায় ফিরবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন নান্নু।

advertisement
Evaly
advertisement