advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

কক্সবাজারে উচ্ছেদকালে ব্যবসায়ী-পুলিশ সংঘর্ষ : সাংবাদিকসহ আহত ১০

নিজস্ব প্রতিবেদক কক্সবাজার
১৮ অক্টোবর ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১৮ অক্টোবর ২০২০ ০০:০৬
advertisement

কক্সবাজারের কলাতলী সুগন্ধা পয়েন্টে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে গিয়ে ব্যবসায়ী ও পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে পুলিশ-সাংবাদিকসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে। গতকাল শনিবার বেলা সাড়ে ৩টার দিকে বুলডোজার দিয়ে দোকানপাটগুলো উচ্ছেদকালে এ ঘটনা ঘটে।

এতে কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি শেখ মুনির উল গীয়াস, যমুনা টিভির কক্সবাজার প্রতিনিধি নুরুল করিম রাসেল, চ্যানেল এস-এর কক্সবাজার প্রতিনিধি ইকবাল বাহার চৌধুরীসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন। আহত অন্যদের পরিচয় পাওয়া যায়নি। এদিকে সংঘর্ষের পর আবার উচ্ছেদ অভিযান শুরু করে প্রশাসনের টিম। বিকাল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত চলে উচ্ছেদ অভিযান। সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগের নির্দেশনার আলোকে কক্সবাজার জেলা প্রশাসন, কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ ও কক্সবাজার পৌরসভা যৌথভাবে অভিযান পরিচালনা করে। গত ১ অক্টোবর আপিল বিভাগ কক্সবাজার কলাতলী এলাকায় সৈকতসংলগ্ন ৫২ দোকান উচ্ছেদের আদেশ দিয়েছিলেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সচিব আবু জাফর রাশেদ, কক্সবাজার সদর সহকারী কমিশনার (ভূমি) মুহাম্মদ শাহরিয়ার মোক্তার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) পংকজ বড়ুয়া, কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি শেখ মুনির উল গীয়াসের নেতৃত্বাধীন টিম।

তবে অভিযানে গিযে ব্যবসায়ীদের প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হয় প্রশাসনের যৌথ টিম। কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সচিব ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবু জাফর রাশেদ বলেছেন, বেলা সাড়ে ৩টার দিকে পূর্বঘোষিত অনুযায়ী উচ্ছেদ অভিযান শুরু করতে চাইলে সেখানে থাকা অবৈধ দখলদাররা বাধা প্রদান করে। এ সময় ব্যবসায়ীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুড়তে থাকে।

ব্যবসায়ীদের বিক্ষোভ থামাতে ফাঁকা গুলি, রবার বুলেট ও টিয়ারশেল ছুড়ে পুলিশ। একপর্যায়ে সেখানে উপস্থিত হন কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মজিবুর রহমান। তিনি অবৈধ দখলদার ব্যবসায়ীদের শান্ত করার চেষ্টা করেন। আলোচনায় বসেন তাদের নিয়ে।

প্রায় আধা ঘণ্টাব্যাপী উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ চলমান ছিল। পুলিশের শক্ত অবস্থান ও প্রতিরোধের মুখে বিক্ষোভকারী দোকানদাররা পিছু হটে। ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে ১৬ জন আহত হয়েছে বলে সুগন্ধা ব্যবসায়ী মালিক সমিতির সভাপতি আবদুর রহমান জানিয়েছেন।

advertisement
Evaly
advertisement