advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

পুলিশের ধর্ষণ বিরোধী সমাবেশ সারাদেশে

উদ্দেশ্য সচেতনতা সৃষ্টি

১৮ অক্টোবর ২০২০ ০০:০০
আপডেট: ১৮ অক্টোবর ২০২০ ০০:০৬
ধর্ষণ ও নির্যাতনের বিরুদ্ধে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে গতকাল পুলিশ সারাদেশে সমাবেশ করে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সড়ক দ্বীপে শাহবাগ থানার বিট পুলিশিং সমাবেশ -আমাদের সময়
advertisement

পুলিশের উদ্যোগে সারাদেশে ধর্ষণ ও নির্যাতনবিরোধী সমাবেশ হয়েছে। ধর্ষণ ও নির্যাতনের বিরুদ্ধে জনসচেতনতা তৈরির লক্ষ্যে গতকাল শনিবার সকাল ১০টায় সারাদেশে পুলিশের ৬ হাজার ৯১২ বিটে একযোগে এ সমাবেশ হয়। ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) ৫০ থানার ৩০২টি বিট পুলিশিং এলাকাতেও এ সমাবেশ করা হয়।

বিটগুলোর নিজস্ব ফেসবুক পেজে এ অনুষ্ঠান সরাসরি সম্প্রচার করা হয়। পুলিশ সদর দপ্তরের এআইজি (মিডিয়া অ্যান্ড পিআর) সোহেল রানা বলেন, সারাদেশে লাখ লাখ নারী-পুরুষ এসব সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন এবং কোটি কোটি দর্শক ও সাধারণ মানুষ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দেখেছেন। নিঃসন্দেহে ধর্ষণসহ নারী ও শিশু নির্যাতনবিরোধী সচেতনতা সৃষ্টিতে এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। সমাবেশে পুলিশ সদস্যসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, জনপ্রতিনিধি, নারী ও শিশু অধিকারকর্মী ও স্কুল-কলেজের ছাত্রীরা উপস্থিত ছিলেন।

পুলিশ সদর দপ্তর থেকে জানানো হয়, নারী ও শিশুনির্যাতনসহ যে কোনো প্রকার অপরাধের বিরুদ্ধে পুলিশ সোচ্চার রয়েছে। সাধারণ মানুষের সহযোগিতা ও সমর্থনে এ ধরনের অপরাধ নির্মূলে প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পুলিশ বদ্ধপরিকর।

ডিএমপির সব বিটে সমাবেশ

ডিএমপির ৫০ থানার ৩০২ বিট পুলিশিং এলাকায় গতকাল সকালে ধর্ষণ ও নির্যাতনবিরোধী সমাবেশের আয়োজন করা হয়। এতে জনপ্রতিনিধি, শিক্ষক, মসজিদের ইমামসহ সমাজের বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ অংশগ্রহণ করেন।

ডিএমপির গণমাধ্যম শাখার ডিসি ওয়ালিদ হোসেন জানান, ডিএমপির প্রতিটি বিট পুলিশিং এলাকায় আয়োজিত এই সমাবেশে ধর্ষণ ও নির্যাতনবিরোধী পোস্টার, লিফলেট, প্ল্যাকার্ড প্রদর্শনের মাধ্যমে জনসাধারণকে নারী ধর্ষণ ও নির্যাতনের বিরুদ্ধে এগিয়ে আসার এবং এ ধরনের ঘৃণ্য অপরাধের বিরুদ্ধে সচেতন হওয়ার জন্য আহ্বান জানানো হয়। ঢাকা মহানগর এলাকার আইনশৃঙ্খলা রক্ষার পাশাপাশি ধর্ষণ, নারী ও শিশু নির্যাতনের প্রতিটি ঘটনায় অপরাধীকে আইনের আওতায় আনার লক্ষ্যে পেশাদারিত্বের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছেন ডিএমপির প্রতিটি সদস্য।

ধর্ষককে পরপারে পাঠানো হবে

শাহবাগ থানাপুলিশের উদ্যোগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিতে সমাবেশ হয়। এতে ডিএমপির রমনা বিভাগের ডিসি সাজ্জাদুর রহমান জানান, তার আগের কর্মস্থলে এসপি থাকাবস্থায় এক যুবকের বিরুদ্ধে ৯ বছরের শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠে। প্রাথমিক তদন্তে দেখা যায়, এর আগেও সে বেশ কয়েকটি ধর্ষণের ঘটনায় জড়িত। শিশু ধর্ষণে অভিযুক্ত কিন্তু বারবার পার পেয়ে গেছে সে। পরে তাকে ধরে নিয়ে পরপারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।

সেই উদাহরণ দিয়ে ডিসি সাজ্জাদুর রহমান বলেন, পরপারে কীভাবে পাঠানো হয় তা সবারই জানা। সুতরাং ধর্ষণের মতো ঘটনা, বিশেষ করে শিশু ধর্ষণ যারা করবে, তাদের সে রকম শাস্তি দেওয়া হবে। সেই শাস্তিকে সর্বোচ্চ শাস্তি হিসেবে উল্লেখ করেন তিনি।

সম্প্রতি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী ধর্ষণের অভিযোগে মামলা করে টিএসসিতে অনশন করার প্রসঙ্গ টেনে ডিসি সাজ্জাদ বলেন, ওই মামলায় উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। আসামিদের আটক করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। মামলাটিতে আরও যারা জড়িত পুলিশ তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেবে। সমাবেশে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই সহকারী প্রক্টর, স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়সহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

advertisement
Evaly
advertisement