advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

আলু আছে আলু নেই

অভিনব পদ্ধতিতে বেশি দামেই বিক্রি হচ্ছে

নিজস্ব প্রতিবেদক
২২ অক্টোবর ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ২১ অক্টোবর ২০২০ ২২:৩৯
advertisement

কারওয়ানবাজারের পাইকারির দোকানগুলোর সামনে কোনো আলু নেই। কোথাও কোথাও ফাঁকা দোকানে টানিয়ে দেওয়া হয়েছে আলু নেই। তবে এটা শেষ কথা নয়। খোঁজ নিয়ে কিনতে গেলে মিলবে আলু। দাম বেশি দিলে গোডাউন থেকে আলু এনে দেওয়াও হচ্ছে। এমন অভিনব কৌশলে বিক্রি হচ্ছে আলু।

বাজারে অস্থিরতা থাকায় গত মঙ্গলবার সরকার আলুর খুচরা দাম নির্ধারণ করে দেয়। কিন্তু বেঁধে দেওয়া এই দামে পাইকারি বাজারেও গতকাল বিক্রি হয়নি। বাজারে আলুর সংকট ও পাইকারিতে দাম বেশি বলে সরকার নির্ধারিত দামে আলু বিক্রি করতে পারছে না বলে জানান তারা।

গতকাল কারওয়ানবাজারে গিয়ে দেখা যাচ্ছে কোনো দোকানের সামনে আলু নেই। আলু আছে কিনা জানতে চাইলে গোডাউন থেকে আলু এনে দেওয়ার কথা বলেন তারা। এমন লুকিয়ে বিক্রি করছে কেন জানতে চাইলে ব্যবসায়ীরা জানাচ্ছেন, সরকারে বেঁধে দেওয়া দামে তারা এখনো আলু পাননি। আগে বেশি দামে কেনা বেশি থাকায় আলু বিক্রি করতে হচ্ছে বেশি দামে। তবে দুই-চারদিনের মধ্যে সরকারের নির্ধারিত দামে আলু পেলে বাজার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ হবে বলেও মনে করেন তারা।

গত ৭ অক্টোবর আলুর দাম হিমাগার পর্যায়ে ২৩ টাকা, পাইকারিতে

২৫ টাকা ও খুচরায় ৩০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছিল। যদিও এ দাম কোথাও কার্যকর হয়নি। এর পর গত মঙ্গলবার কৃষি মন্ত্রণালয়ের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান কৃষি বিপণন অধিদপ্তর গত মঙ্গলবার কেজিপ্রতি ৫ টাকা বাড়িয়ে নতুন করে আলুর দাম নির্ধারণ করে। সরকারি বিভিন্ন সংস্থা ও ব্যবসায়ীদের মধ্যে অনুষ্ঠিত এক মতবিনিময়সভায় আলুর দাম খুচরা বাজারে কেজিপ্রতি ৩৫ টাকা নির্ধারণ করা হয় এবং হিমাগারে প্রতি কেজি আলু ২৭ টাকা, পাইকারিতে ৩০ টাকা দাম নির্ধারণ করা হয়েছে।

রাজধানীর অন্য বাজারে সরকারের বেঁধে দেওয়া দামে গতকাল রাজধানীর কোথাও বিক্রি করতে দেখা যায়নি। গতকাল রাজধানীর আনন্দবাজার কাঁচাবাজারে সরেজমিনে দেখা গেছে, কেজিপ্রতি আলু বিক্রি হচ্ছে ৪৫-৫০ টাকা দরে। জানতে চাইলে খুচরা ব্যবসায়ীরা জানান, আড়তে এখনো দাম কমেনি। ৪২ থেকে ৪৩ টাকা দরে আড়ত থেকে কিনতে হয়। এর সঙ্গে গাড়ি ভাড়া আছে। তাই ৪৫-৫০ টাকা দরে বিক্রি করতে হয়।

জানতে চাইলে খুচরা ব্যবসায়ী মোহসীন জানান, কারওয়ানবাজার আড়ত থেকে কেজিপ্রতি ৪২ টাকা দরে কিনতে হয়েছে। অনেক আড়ত বন্ধ। কয়েকটি খোলা থাকলেও আলু নেই। এ কারণে দাম বাড়তি। আড়তে আলু না থাকার কারণ জানতে চাইলে অন্য এক ব্যবসায়ী বলেন, সরকার নিজের মতো করে দাম নির্ধারণ করায় কোল্ডস্টোর থেকে আলু ছাড়ছে না। স্টোরে আলু আটকে রাখা হয়েছে। এ কারণে আড়তে আলু আসছে না। ফলে দামও কমছে না।

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের উপপরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার বলেন, ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হোক আমরা সেটা চাই না। তবে আজ থেকে যে আলু বিক্রি হবে সেটি সরকারের নির্ধারিত দামেই বিক্রি করতে হবে। সরকার যে মূল্য নির্ধারণ করে দিয়েছে, কেউ এর বাইরে গিয়ে ব্যবসা করলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এর আগে আলুর দাম নিয়ন্ত্রণে দেশজুড়ে অভিযান চালানো হয়। এর পর গত রবি ও সোমবার দুদিন ঢাকার কারওয়ানবাজারে আলু বিক্রি বন্ধ ছিল।

advertisement
Evaly
advertisement