advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

পেঁয়াজ ছাড়া অন্য কিছুতে আগ্রহ নেই

চট্টগ্রাম ব্যুরো
২২ অক্টোবর ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ২১ অক্টোবর ২০২০ ২৩:২০
advertisement

চট্টগ্রাম নগরীতে আটটি নির্দিষ্ট স্থানে ভোগ্যপণ্য বিক্রি শুরু করেছে ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি)। প্রতিষ্ঠানটি চিনি, ডাল, সয়াবিন তেল ও পেঁয়াজ বিক্রি করলেও ক্রেতাদের আগ্রহ শুধুই ৩০ টাকা কেজির পেঁয়াজে। অন্য পণ্যগুলোর প্রতি কোনো আগ্রহ নেই তাদের। ফলে পেঁয়াজ কিনতে সাধারণ মানুষের দীর্ঘ লাইন দেখা গেছে। গতকাল বুধবার সকালে টাইগার পাস, আন্দরকিল্লা, আগ্রাবাদ, কাস্টম মোড়, অলংকার মোড়, দামপাড়া, মুরাদপুর, কোতোয়ালি মোড় এলাকায় ট্রাকে করে খাদ্যপণ্য বিক্রি করতে দেখা যায় টিসিবির কর্মীদের। এ সময় নিম্ন আয়ের অর্ধশতাধিক মানুষকে কম দামে এসব খাদ্যপণ্য ক্রয়ের জন্য লাইন ধরে অপেক্ষা করতে দেখা গেছে। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, খুচরা বাজারে ভারতীয় পেঁয়াজ ৮০ টাকা ও দেশি বিক্রি হচ্ছে ৯০ টাকায়, চীনা পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৭০ টাকায়। খাতুনগঞ্জের পাইকারি বাজারে এখনো পেঁয়াজের কেজি ৭০ টাকার ওপরে রয়েছে। কিন্তু টিসিবি একই মানের পেঁয়াজ বিক্রি করছে ৩০ টাকা কেজি দরে। ফলে ক্রেতাদের মধ্যে পেঁয়াজের চাহিদা বেশি। আন্দরকিল্লা মোড়ে টিসিবির ট্রাক থেকে পেঁয়াজ কিনতে আসা রিকশাচালক সাদ্দাম হোসেন বলেন, এক ঘণ্টা অপেক্ষা করে এক কেজি পেঁয়াজ আর ডাল সংগ্রহ করতে পেরেছি। পেঁয়াজের পাশাপাশি আলু বিক্রি করা হলে ভালো হতো। ষচট্টগ্রাম ব্যুরো

অন্যান্য সবজি তো ৭০ টাকার নিচে নেই। খাওয়ার মতো ছিল আলু। সেটাও এখন নাগালের বাইরে।

টিসিবির চট্টগ্রাম আঞ্চলিক কার্যালয়ের প্রধান জামাল উদ্দিন আহমদ বলেন, চট্টগ্রাম শহরে আটটি ট্রাকে পেঁয়াজসহ টিসিবির পণ্য বিক্রি হচ্ছে। এ ছাড়া আনোয়ারা, মিরসরাই ও খাগড়াছড়িতে তিনটি ট্রাক পাঠানো হয়েছে।

তিনি বলেন, পেঁয়াজ প্রতিকেজি ৩০ টাকায় ভোক্তা পর্যায়ে বিক্রি হচ্ছে। একজন ভোক্তা সর্বোচ্চ এক কেজি করে কিনতে পারবেন। এ ছাড়া মসুর ডাল ও চিনি ৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

advertisement
Evaly
advertisement