advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ভারত, চীন ও রাশিয়ার বাতাসকে ‘নোংরা’ বললেন ট্রাম্প

অনলাইন ডেস্ক
২৩ অক্টোবর ২০২০ ১২:৪৬ | আপডেট: ২৩ অক্টোবর ২০২০ ১৭:০১
মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প
advertisement

ভারত, চীন ও রাশিয়ার বাতাসকে ‘নোংরা’ বলে মন্তব্য করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। গতকাল বৃহস্পতিবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের দ্বিতীয় ও শেষ বিতর্কে অংশ নিয়ে এ মন্তব্য করেন তিনি। এ সময় জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় ডেমোক্র্যাট প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেনের পরিকল্পনার সমালোচনা করেন ট্রাম্প।

সংবাদসংস্থা এএফপির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় (বাংলাদেশ সময় শুক্রবার সকাল) দেশটির টেনেসি অঙ্গরাজ্যের ন্যাশভিলে রিপাবলিকান প্রার্থী ট্রাম্প ও ডেমোক্র্যাট প্রার্থী বাইডেন বিতর্কে মুখোমুখি হন। বিশ্বজুড়ে জলবায়ু পরিবর্তন পরিপ্রেক্ষিতে প্যারিস চুক্তি থেকে আমেরিকা নাম তুলে নেওয়া নিয়ে এদিন বিতর্ক চলছিল।

বিতর্কের এক পর্যায়ে ট্রাম্প বলেন, ‘চীনের অবস্থা দেখুন। কি রকম নোংরা একটি দেশ। রাশিয়া বা ভারতের অবস্থা দেখুন, কি নোংরা। তাদের বাতাস নোংরা।’

এ সময় ট্রাম্প অভিযোগ করেন, বাইডেনের জলবায়ু-সংক্রান্ত পরিকল্পনাটি টেক্সাস, ওকলাহোমার মতো তেলসমৃদ্ধ অঙ্গরাজ্যের জন্য অর্থনৈতিক বিপর্যয় বয়ে আনতে পারে।

বাইডেন বলেছেন, ‘জলবায়ু পরিবর্তন মানবতার অস্তিত্বের জন্য একটি হুমকি। এই হুমকি মোকাবিলা করার জন্য আমাদের নৈতিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে।’

জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে পৃথিবীর উষ্ণতা ইতিমধ্যে বেড়ে গেছে। পৃথিবী ও তার অধিবাসীদের জলবায়ু পরিবর্তনের খেসারত দিতে হচ্ছে। জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ না নিলে সামনে আরও বিপদ আছে বলে আশঙ্কা বিশেষজ্ঞদের।

জলবায়ু পরিবর্তন ইস্যুতে শুরু থেকেই ট্রাম্প বিতর্কিত অবস্থানে। তিনি ক্ষমতায় এসে যুক্তরাষ্ট্রকে বহুল আলোচিত প্যারিস জলবায়ু চুক্তি থেকে বের করে আনেন। এ নিয়ে ট্রাম্প সমালোচিত।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী মার্ক এসপারের দিল্লি সফরের আগে ভারতের বাতাসের মান নিয়ে ট্রাম্প মন্তব্য করলেন। প্রথম বিতর্কের সময়ও ট্রাম্প ভারত সম্পর্কে নেতিবাচক মন্তব্য করেছিলেন। তখন তিনি ভারতের করোনার তথ্য নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন।

ট্রাম্প এদিন বলেন, ‘দূষণ বেশি ছড়াচ্ছে ভারত ও চীন, কিন্তু তাদের তেমনভাবে কলকারখানা বন্ধ করতে বলা হচ্ছে না। অন্যদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে অনেক বেশি পরিবেশ রক্ষার বিষয়ে পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে।’

advertisement
Evaly
advertisement