advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

দেশের ফুটবলে ময়মনসিংহের অনন্য দৃষ্টান্ত

সাইফুল ইসলাম রিয়াদ,ময়মনসিংহ থেকে
২৬ অক্টোবর ২০২০ ২০:৪২ | আপডেট: ২৬ অক্টোবর ২০২০ ২১:০১
ছবি : আমাদের সময়
advertisement

ময়মনসিংহ শহরের রফিক উদ্দিন ভূঁইয়া স্টেডিয়ামের পাশ থেকেই শোনা যাচ্ছিল কলরব। স্টেডিয়ামে ঢুকতেই দেখা গেল একদল কিশোর গ্যাস বেলুন হাতে দাঁড়িয়ে। সংখ্যায় ৭৬ জন। কড়া রোদের মধ্যে থাকলেও তাদের চোখে-মুখে ছিল উচ্ছ্বাস। নব জাগরণের উচ্ছ্বাস। ময়মনসিংহ জেলা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের (ডিএফএ) কিশোরদের নিয়ে এই উদ্যোগ এক প্রকার নবজাগরণই।

জেলার বিভিন্ন উপজেলার সাড়ে তিনশ ফুটবলার থেকে ৭৬ ফুটবলারকে নিয়ে দীর্ঘ মেয়াদী ক্যাম্প শুরু করেছে ডিএফএ। এক মাস রফিক উদ্দিন ভূঁইয়া স্টেডিয়ামে ক্যাম্প-অনুশীলনের পর ৭৬ জন থেকে ৩০ জনের একটি দল করা হবে। এই অনুর্ধ্ব-১৮ ফুটবলাররা পরে চলে যাবেন বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) একাডেমিতে।  

আজ সোমবার বিকেলে জেলা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের অন্যতম এই কার্যক্রম উদ্বোধন করেন বাফুফের নব নির্বাচিত সহ-সভাপতি আতাউর রহমান মানিক ও টেকনিক্যাল ডিরেক্টর পল স্মলি। গ্যাসবেলুন উড়িয়ে ক্যাম্প উদ্বোধনের পর ফুটবলারদের সঙ্গে কথা বলেন মানিক-স্মলি। পরে এই ৭৬ জন বিভিন্ন দলে ভাগ হয়ে নিজেদের মধ্যে খেলেন আর তাদের পর্যবেক্ষণ করেন স্মলি। মূলত আজ ফুটবলারদের খেলার কথা ছিল না, কিন্তু বাফুফের টেকনিক্যাল ডিরেক্টর আসবেন তাই খেলারও আয়োজন করা হয়।

ক্যাম্পের উদ্বোধন শেষে বাফুফের নব নির্বাচিত সহ-সভাপতি মানিক ভূয়সী প্রশংসা করেন জেলা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের। তার মতে তাদের এই উদ্যোগ সারা দেশের ফুটবলের জন্য অনন্য দৃষ্টান্ত হতে পারে। ‘আমি মনে করি এটি দেশের ফুটবলের জন্য অনন্য দৃষ্টান্ত। এরপর অন্যরাও শুরু করবে। বাফুফেও ধীরে ধীরে যাতে সারা দেশের ৬৪ জেলায় ক্যাম্প চালু করা যায় সেই চেষ্টা চালাচ্ছে। খুব স্বল্প সময়ের মধ্যে চালু হবে’- উদ্বোধন শেষে মানিক ঠিক এভাবেই বলছিলেন।

গত ১৫-১৬ অক্টোবর প্রায় সাড়ে তিনশ ফুটবলার থেকে ৭৬ জনকে বাছাই করেন বাংলাদেশের একমাত্র উয়েফা এ লাইসেন্সধারী কোচ মারুফুল ইসলাম। টানা দুই মাস ক্যাম্প হবে ফুটবলারদের নিয়ে। ক্যাম্প তদারকি করবেন দেশের স্বীকৃত কোচরাই। প্রথম এক মাস হবে অনাবাসিক। এক মাস পরেই ৭৬ জন থেকে ৩০ জন বাছাই করা হবে। এরপর শুরু হবে আবাসিক ক্যাম্প। দুই মাস পর তাদের বাফুফে একাডেমিতে পাঠানো হবে। ফুটবলারদের জার্সি-কেডস হতে যাবতীয় সরঞ্জামসহ সব খরচ বহন করবে ডিএফএ।

ডিএফএ প্রেসিডেন্ট দেলওয়ার হোসেন মুকুল বলেন, ‘আমরা দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা থেকেই কাজটা করছি। বাফুফে নির্বাচনের আগে আমি মানিক ভাইকে বলেছিলাম, তিনি বলেছিলেন তুমি শুরু করো। কোচ মারুফুল ইসলামকে দিয়ে খেলোয়াড় বাছাই করেছি। ৩০ জনকে বাছাই করার পর যারা থাকবে তাদেরও বাদ দেওয়া হবে না। তাদের ডিভিশনাল ফুটবলে রাখা হবে। এখন সব খরচ আমরাই বহন করছি; যেহেতু বাফুফে তদারকিতে আছে বিষয়টি তারাও দেখবে।’

বয়সভিত্তিক খেলোয়ারদের বয়স নিয়ে বেশিরভাগ সময়ই জলঘোলা হয়। অনেকে জন্ম নিবন্ধন করার সময়ে বয়স কমিয়ে দেন। এ জন্য শিক্ষাগত সনদপত্রেও বয়স কম দেখা যায়। বয়স নিয়ে যাতে সমস্যা না হয় এ জন্য অতীত  থেকে শিক্ষা নিয়ে প্রযুক্তির সহায়তায় বিভিন্ন টেস্টের মাধ্যমে বয়স নির্ণয় করা হবে। এ  বিষয়ে বাফুফে সহ সভাপতি মানিক বলেন, ‘আমরা আগে বয়স নিয়ে ঝামেলায় পড়েছিলাম। এ বার টেস্টের মাধ্যমে বয়স নির্ণয় করা হবে।’

ময়মসিংহ জেলা ফুটবলের উন্নয়নে নতুন দৃষ্টান্ত রেখেছে এবার বাকি ৬৩ জেলা কী তাদের অনুসরণ করবে?

advertisement
Evaly
advertisement