advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

রাবির প্রাক্তন শিক্ষার্থী হত্যার দায় স্বীকার দুই ছিনতাইকারীর

২৮ অক্টোবর ২০২০ ০০:৫৭
আপডেট: ২৮ অক্টোবর ২০২০ ০০:৫৭
advertisement

সাভারে ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) প্রাক্তন শিক্ষার্থী মোস্তাফিজার রহমান হত্যাকা-ের ঘটনায় দুই যুবককে আটক করেছে র‌্যাব। তারা হলোÑ বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ থানার নিজাম শরীফের ছেলে আজাদ শরীফ (২৯) ও সাভারের ডগরমোড়ার আবদুল গণির ছেলে রনি ওরফে ডগি রনি (৩০)। সোমবার গভীর রাতে সাভারের রাজাশন এলাকা থেকে গ্রেপ্তার পেশাদার এই দুই ছিনতাইকারী এরই মধ্যে হত্যার দায় স্বীকার করেছে।
গত ২৪ অক্টোবর ভোরে সাভারের শিমুলতলায় বাস থেকে নামা মাত্রই ছিনতাইকারীদের কবলে পড়েন রাবির দর্শন বিভাগের প্রাক্তন শিক্ষার্থী মোস্তাফিজার রহমান। রাজশাহীর দুর্গাপুর থানার নওয়াপাড়া গ্রামের মজিবুর রহমানের ছেলে মোস্তাফিজ সাভারে গ্লোরিয়াস ইন্টারন্যাশনাল স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রশাসনিক কর্মকর্তা ছিলেন। থাকতেন ঘটনাস্থলের অদূরে ডগরমোড়া মহল্লায়। র‌্যাব-৪-এর সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার উনু মং জানান, উন্নত প্রযুক্তির সহায়তায় জড়িতদের মধ্যে দুজনকে আটক করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই প্রাক্তন শিক্ষার্থী হত্যাকা-ে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে।
নিহতের পরিবারের সদস্যরা জানান, স্ত্রী খাদিজা বেগম ও এক বছরের ছেলে মুসাকে নিয়ে সাভারে বসবাসের জন্য বাসা ভাড়া করেছিলেন মোস্তাফিজ। তবে আসার দিন সন্তানের জ্বর থাকায় পরিবার ছাড়াই ফিরে এসে হত্যার শিকার হন। মূলত গ্রাম থেকে ধারদেনা করে ১০ হাজার টাকা সঙ্গে এনেছিলেন। ছিনতাইকারীরা সেই টাকা ছিনিয়ে নেওয়ার পর মোস্তাফিজ তাদের পিছু নেন। ঘটনাস্থলের পাশে একটি সিসি ক্যামেরায় দেখা যায়, তিন ছিনতাইকারী তাকে এলোপাতাড়ি ও উপর্যুপরি কুপিয়ে সঙ্গে থাকা একটি ব্যাগ ছিনতাই করে দৌড়ে পালিয়ে যাচ্ছে।
ওই হত্যাকা-ের প্রতিবাদে রাবির শিক্ষার্থীরা আন্দোলন শুরু করলে তৎপর হয় সাভার মডেল থানা পুলিশ, র‌্যাব ও পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। হত্যাকা-ের তিন দিন পর অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের আসামি করে সাভার মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন নিহতের বাবা মজিবুর রহমান। তিনি জানান, ঢাকায় আসার গাড়ি ভাড়াও ছিল না তাদের সঙ্গে। রাজশাহীর পুলিশ সুপারের সহায়তায় তিনি ঢাকায় এসেছেন। মুজিবুর রহমান বলেনÑ ‘আমি চাই আর কোনো বাবা যেন আমার মতো সন্তানহারা না হয়। পুলিশকে বলেছি আপনারা ব্যবস্থা নেন। খুনিদেরকে যেন দ্রুত ধরা হয়, যেন উপযুক্ত বিচার হয়।’

advertisement
Evaly
advertisement