advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

সোহরাওয়ার্দী মেডিকেলের পরিচালকের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক
৩০ অক্টোবর ২০২০ ১৩:১৪ | আপডেট: ৩০ অক্টোবর ২০২০ ১৩:৩২
advertisement

শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক উত্তম কুমার বড়ুয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে হাসপাতালের যন্ত্রপাতি কেনাকাটায় ছয় কোটি ৪০ লাখ ৩১ হাজার ৮০০ টাকার দুর্নীতির। একই অভিযোগ উঠেছে হাসপাতালের নিওরোসার্জারি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক সৌমিত্র সরকার এবং নেফ্রোলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক রতন দাস গুপ্তের বিরুদ্ধেও। তাদের তিনজনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

গতকাল বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ থেকে পাঠানো একটি চিঠিতে এ তথ্য দেওয়া হয়েছে। স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. আবদুল মান্নানের স্বাক্ষরিত ওই চিঠিতে বলা হয়েছে- ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে হাসপাতালের অপারেশন থিয়েটারের আটটি লাইট, দুটি কবলেশন মেশিন ও ভেন্টিলেটরসহ দুটি অ্যানেস্থেশিয়া মেশিন প্রকৃত মূল্যের চেয়ে বেশি দামে কেনার মাধ্যমে এই দুর্নীতি হয়েছে। স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের প্রাথমিক তদন্তে এসব অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে। হাসপাতাল পরিচালকের বিষয়ে চিঠিতে বলা হয়েছে, “আপনার এহেন কার্যকলাপ সরকারি কর্মচারী আচরণ বিধিমালা ১৯৭৯ পরিপন্থী এবং সরকারি কর্মচারী বিধিমালা ২০১৮ অনুযায়ী অসদাচরণ ও দুর্নীতি হিসেবে গণ্য।

চিঠিতে আগামী ১০ কর্মদিবসের মধ্যে ‘অসদুপায় অবলম্বন ও দুর্নীতির জন্য উত্তম কুমার বড়ুয়ার বিরুদ্ধে কেন ব্যবস্থা নেওয়া হবে না’ তা ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়েছে শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক উত্তম কুমার বড়ুয়াকে। পাশাপাশি তিনি ব্যক্তিগত শুনানিতে অংশ নিতে চান কিনা তাও মন্ত্রণালয়কে জানাতে বলা হয়েছে।

ছয় কোটি ৪০ লাখ ৩১ হাজার ৮০০ টাকা দিয়ে হাসপাতালের যন্ত্রপাতি কেনাকাটা এই প্রকল্পে নিওরোসার্জারি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক সৌমিত্র সরকার এবং নেফ্রোলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক রতন দাস গুপ্ত ছিলেন বাজারদর যাচাই কমিটির সভাপতি ও সদস্য। যন্ত্রপাতি ক্রয়ে ‘সঠিকভাবে বাজার যাচাই না করে অতিরিক্ত দাম নির্ধারণ’ করায় সরকারের ছয় কোটি ৪০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে অভিযোগ আনা হয়েছে তাদের দুজনের বিরুদ্ধে।

advertisement
Evaly
advertisement