advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

আ.লীগের দুই গ্রুপে চলছে পাল্টাপাল্টি সভা-সমাবেশ

গুরুদাসপুর (নাটোর) প্রতিনিধি
২২ নভেম্বর ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ২২ নভেম্বর ২০২০ ০০:১২
advertisement

গুরুদাসপুর পৌরসভা নির্বাচনে সম্ভাব্য প্রার্থীদের প্রচার জমে উঠেছে। বিশেষ করে এবারের পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিবদমান দুই গ্রুপের দুই সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী বর্তমান মেয়র মো. শাহনেওয়াজ আলী ও নতুন সম্ভাব্য প্রার্থী মো. আরিফুল ইসলাম বিপ্লবের সমর্থনে চলছে পাল্টাপাল্টি নির্বাচনী সভা-সমাবেশ। আর নেতাদের পাল্টাপাল্টি বক্তব্যে একে অন্যের গোপন তথ্য ফাঁস করায় মজা লুটছে আমজনতা।

মেয়র প্রার্থী আরিফুল ইসলাম বিপ্লবের সমর্থনে অনুষ্ঠিত প্রায় জনসমাবেশেই প্রধান অতিথি হিসেবে স্থানীয় সংসদ সদস্য অধ্যাপক মো. আবদুল কুদ্দুস বক্তব্য দিচ্ছেন। তিনি মেয়র শাহনেওয়াজ আলীর বিরুদ্ধে বিভিন্ন ভুলত্রুটি ও অভিযোগ তুলে ধরছেন। সর্বশেষ আনন্দনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে বিপ্লবের সমর্থনে জনসভায় সংসদ সদস্য আবদুল কুদ্দুস বক্তব্য দেন। তার সেই বক্তব্য অনুযায়ী ‘পৌরসভার উন্নয়নে ৮৫ কোটি টাকার ডিও লেটার দিয়েছি; কিন্তু কোথায় সেই উন্নয়ন’ শিরোনামে স্থানীয় একটি দৈনিকে সংবাদ প্রকাশিত হয়। সেই বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে মেয়র শাহনেওয়াজ আলীও বিভিন্ন সভা-সমাবেশে পাল্টা বক্তব্য রাখছেন। তার মতে, এমপি সাহেব মিথ্যাচার করছেন।

এ প্রতিবেদকের এক প্রশ্নের উত্তরে শাহনেওয়াজ আলী বলেন, আমার পৌরসভার উন্নয়নে ৮৫ কোটি টাকার ডিও লেটার দেওয়ার মধ্যে একটা রহস্য ছিল। ডিও লেটার প্রদানের দিন আমার সঙ্গে এমপি মহোদয় ছবি উঠিয়ে তা সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে দিয়ে একটা চাঞ্চল্যকর পরিবেশ সৃষ্টি করেছিলেন। আমার নেতাকর্মীদের মাঝে ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি করতে চেয়েছিলেন এবং উনি বোঝাতে চেয়েছিলেন যে, উনার সঙ্গে আমার কোনো দ্বন্দ্ব নেই। আমাদের মাঝে সুসম্পর্ক রয়েছে। কিন্তু ডিও লেটারের ৮৫ কোটি টাকা এখনো পাসই হয়নি। ৮৫ কোটি টাকার এক টাকাও এখনো পাইনি। এমপি মহোদয় যদি বলতে পারেন, বিগত ১০ বছরে পৌরসভার উন্নয়নে একটা টাকার অনুদান দিয়েছেন, তা হলে আমি পৌরসভার মেয়র পদ থেকে রিজাইন দিয়ে দেব।

নৌকার বিরোধিতা প্রসঙ্গে মেয়র শাহনেওয়াজ বলেন, আমার পৌরসভা নির্বাচনে নৌকায় কোনোদিনও ভোট দেননি এমপি মহোদয়। আমাকে হারানোর জন্য প্রতিটি নির্বাচনেই বিরোধিতা করেছেন। বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নৌকাকে সমর্থন না দিয়ে বিএনপি নেতা আমজাদ চেয়ারম্যানের পক্ষে কাজ করেছেন তিনি। তাই নৌকার বিরোধিতাকারীর সঙ্গে আমার কোনো আঁতাত নেই। এবার এমপি সাহেব নৌকার বিরুদ্ধে গিয়ে ভোট করলে এলাকা ছাড়া করব।

শাহনেওয়াজ আরও বলেন, আসন্ন পৌর নির্বাচনে দলীয় প্রধান প্রধানমন্ত্রী ও জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করার সুযোগ দিলে ইনশাআল্লাহ আমি গতবারের চেয়েও বিপুল ভোটে মেয়র নির্বাচিত হব।

advertisement
Evaly
advertisement