advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

অধিনায়ক হওয়ার স্বপ্ন দেখেননি তামিম

ক্রীড়া প্রতিবেদক
২২ নভেম্বর ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ২২ নভেম্বর ২০২০ ০০:১৩
মিরপুরে ব্যাটিং অনুশীলন করতে নেটে যাচ্ছেন তামিম ইকবাল -বিসিবি
advertisement

গত মার্চে মাশরাফি বিন মোর্ত্তজা ওয়ানডের নেতৃত্ব ছাড়ার পর আনুষ্ঠানিকভাবে বিসিবি এ দায়িত্ব তুলে দিয়েছে তামিম ইকবালের হাতে। করোনা ভাইরাসের কারণে ওই মাস থেকেই সব ধরনের ক্রিকেট বন্ধ হয়ে যায়। তাই নেতৃত্বের ঝা-া হাতে উঠলেও তামিমকে ২২ গজের ময়দানে জাতীয় দলের হয়ে এখন পর্যন্ত কোনো পরীক্ষা দিতে হয়নি। গত অক্টোবরে বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপ দিয়ে দেশে প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেট শুরু হয়েছে। তিন দলের ৫০ ওভারের ওই টুর্নামেন্টে তামিম একাদশের অধিনায়ক ছিলেন তামিম। তার দলকে তিনি ফাইনালে তুলতে পারেননি। তবে তামিম জাতীয় দলকে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন শ্রীলংকা সফরে। গত বছর বিশ্বকাপ শেষে শ্রীলংকা সফরে গিয়েছিল বাংলাদেশ। চোটের কারণে ছিটকে গিয়েছিলেন নিয়মিত অধিনায়ক মাশরাফি। সে সময় তামিমের নেতৃত্বে শ্রীলংকা সফরে গিয়ে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হয়েছেন টাইগাররা। আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্ব পাওয়ার পর অধিনায়ক তামিমের পথচলা এখনো শুরু না হলেও অনেকে শুনতে পাচ্ছেন ব্যর্থতার সুর। তার অধিনায়কত্ব নিয়ে প্রশ্ন ডালপালা মেলছে। তামিম অবশ্য তাতে কর্ণপাত করছেন না বরং তিনি কাঠগড়ায় তুলছেন সংবাদকর্মীদের। অভিজ্ঞ এই ব্যাটসম্যান জানান, তিনি ছোটবেলা থেকে কখনোই দেশের অধিনায়কত্ব করার স্বপ্ন দেখেননি। গতকাল ফরচুন বরিশালের অনুশীলনের ফাঁকে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে তামিম বলেন, ‘অধিনায়কত্বের চাপ, আমি তো এখন পর্যন্ত ওই রকম কোনো ম্যাচই খেলিনি। অধিনায়কত্বের চাপ এটা আসলে আপনাদের (সাংবাদিকদের) বানানো। আমি এখনো কোনো আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলিনি। আমি যেদিন অধিনায়কত্ব পেয়েছি ওই দিন বলেছি যে অধিনায়কত্ব আপনারা বিচার করবেন ছয় মাস বা এক বছর পর।’ তিনি আরও বলেন, ‘একটা বাচ্চার হাঁটতে কিন্তু নয় মাস সময় লাগবে। একদিনে সে না হাঁটলে তো আপনি বলতে পারেন না। খেলায় আমার অধিনায়কত্ব কতটা প্রভাব ফেলছে সেটা অন্তত ২০ ম্যাচ পর বিচার করবেন। দুই তিন ম্যাচ পর সেটা করতে পারেন না। আমি ছোটবেলা থেকেই দেশের অধিনায়কত্ব করার স্বপ্ন দেখিনি। এখন সুযোগ এসেছে আমার কাছে। চেষ্টা করব পুরোপুরিভাবে করতে। ভালো হবে খারাপ হবে সেটা সময় বলবে।’

আগামী মঙ্গলবার থেকে শুরু হবে পাঁচ দলের বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপ। গতকাল বায়ো বাবলে প্রবেশ করেছেন খেলোয়াড়রা। করোনা ভাইরাস পরীক্ষা করানোর পর নেগেটিভ আসা খেলোয়াড়রা উঠেছেন হোটেলে। এদিন অনুশীলন করেছেন তারা। প্লেয়ার্স ড্রাফটে তামিমকে দলে নিয়েছে ফরচুন বরিশাল। তার হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে নেতৃত্বের ঝা-া। এই দলে আছেন মিরাজ, তাসকিন, আবু জায়েদ, আফিফ, শুক্কুরদের মতো ক্রিকেটার। তবে তামিম ছাড়া দলের ব্যাটিং লাইনআপে অভিজ্ঞ আর কোনো ব্যাটসম্যান নেই। ম্যাচ জেতানো কিংবা নির্ভর করার মতো ক্রিকেটার না থাকায় হতাশ হয়েছেন অধিনায়ক। তিনি মনে করেন, প্লেয়ার্স ড্রাফটে ভুল করেছে বরিশাল। তামিম বলেন, ‘কোনো সন্দেহ নেই আমরা ড্রাফটে কিছু ভুল করেছি। তবে সঙ্গে এটাও বুঝতে হবে, ক্রিকেট অনিশ্চয়তার খেলা। যে কোনো কিছু হতে পারে। আমার দলে এমন কিছু খেলোয়াড় আছেন যাদের আমরা হয়তো কেউ কাউন্ট করছি না। কিন্তু তাদের সবারই দারুণ টুর্নামেন্ট কাটতে পারে। যে কোনো কিছু হতে পারে।’

তামিমের দিকে নজর থাকবে সবার। তিনি দলের সবচেয়ে অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান। তার ব্যাট হাসলে তবেই তো দলীয় স্কোর হবে হৃষ্টপুষ্ট। বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান নিজেও তা জানেন। তাই তো বলছেন, ‘অবশ্যই আমার নিজের পারফরম্যান্স অনেক গুরুত্বপূর্ণ। যদি সামনে থেকে নেতৃত্ব দিতে পারি কিংবা অধিনায়কত্বের ব্যাপারটা বাদ দিয়েও, যদি ব্যাটসম্যান হিসেবে রান করতে পারি, তাদের অবশ্যই সেটা অনুপ্রেরণা দেবে। হয়তোবা টুর্নামেন্টে আমার আলাদা আলাদা ভূমিকা পালন করতে হবে।’

ফরচুন বরিশাল : তামিম ইকবাল, আফিফ হোসেন, তাসকিন আহমেদ, ইরফান শুক্কুর, মেহেদী হাসান মিরাজ, আবু জায়েদ চৌধুরী, তৌহিদ হৃদয়, তানভির ইসলাম, সুমন খান, সাইফ হাসান, আমিনুল ইসলাম বিপ্লব, মাহিদুল ইসলাম অঙ্কন, পারভেজ হোসেন ইমন, কামরুল ইসলাম রাব্বি, আবু সায়েম, সোহরাওয়ার্দী শুভ।

advertisement
Evaly
advertisement