advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

কাশ্মীরের গালওয়ানে চীনের হামলা ছিল ‘পূর্বপরিকল্পিত’

অনলাইন ডেস্ক
৪ ডিসেম্বর ২০২০ ২৩:০৯ | আপডেট: ৫ ডিসেম্বর ২০২০ ০০:৪২
গালওয়ান উপত্যকা। পুরোনো ছবি
advertisement

আকস্মিক উত্তেজনা থেকে নয়, বরং চীন পূর্ব পরিকল্পনা করেই কাশ্মীরের ভারত নিয়ন্ত্রিত পূর্ব লাদাখের গালওয়ান উপত্যকায় গত জুনে হামলা চালিয়েছিলো। ‘ইউনাইটেড স্টেট-চায়না ইকনোমিক অ্যান্ড সিকিউরিটি রিভিউ কমিশনের (ইউএসসিসি) এক প্রতিবেদনে এমনটি জানানো হয়েছে। কমিশন জানিয়েছে, চীন সরকার তার প্রতিবেশী দেশগুলোর বিরুদ্ধে বহু বছর ধরেই এ ধরনের কর্মকাণ্ডে উস্কানি দিয়ে আসছে।

রিভিউ কমিশনের বরাত দিয়ে ভারতের সংবাদ মাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়ার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘কাশ্মীরের গালওয়ান উপত্যকায় গত জুনে যে আগ্রাসন চালিয়েছে তা চীন সরকার পূর্ব পরিকল্পনা করে করেছে। ওই অঞ্চলে ‘প্রাণঘাতী হামলা’ চালানোর পরিকল্পনা মূলত আগে থেকেই ছিলো।’

গত জুনে গালওয়ানে চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মি (পিএলএ) এর হামলায় নিহত হয়েছিলেন ২০ জন ভারতীয় সেনা। ওই ঘটনার পর গালওয়ানে ব্যাপক উত্তেজনা তৈরি হয় ভারত-চীনের মধ্যে।

১৯৭৫ সালের পরে ফের লাইন অব অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোলে (এলএসি) রক্ত ঝরার জন্য চীনের আগ্রাসী আচরণকেই দায়ী করা হয়েছে ওই রিপোর্টে। সেখানে ‘প্রমাণ’ হিসেবে গালওয়ান সংঘর্ষের দুই সপ্তাহ আগে চীনের সরকারি সংবাদমাধ্যম গ্লোবাল টাইমসে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন সামনে আনা হয়েছে।

গালওয়ানে হামলার আগে ওই এলাকায় সশস্ত্র প্রায় এক হাজার চীনা সেনা মোতায়েন এবং পরিকাঠামো নির্মাণের প্রসঙ্গ তুলে ধরা হয় প্রতিবেদনে। এ প্রসঙ্গে বিভিন্ন উপগ্রহ চিত্রও তুলে ধরেছে ‘ইউনাইটেড স্টেট-চায়না ইকনমিক অ্যান্ড সিকিউরিটি রিভিউ কমিশন।’

কমিশনের প্রতিবেদনে আরও উল্লেখ করা হয়, ‘বেইজিং তার প্রতিবেশীদের বিরুদ্ধে বহুবছর ধরেই জবরদস্তি চালিয়েছে। জাপান থেকে ভারত এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার অনেক দেশগুলিতে সামরিক বা আধাসামরিক বাহিনীকে উস্কে দিয়েছে চীন। চীনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী তার পরিধি স্থির করার জন্য বেইজিংকে সামরিক শক্তি ব্যবহার করার আহ্বান জানিয়েছিলেন।

advertisement
Evaly
advertisement